বাংলাদেশের ১ জন ক্রিকেটারের খেলা দেখতেই গ্যালারিতে আসেনঃ সানিয়া মির্জা ।

গোটা শহর সেজেছিলো নতুন রং দিয়ে। গোলাপি শহর বলে খ্যাত জয়পুর। কিন্তু টেস্ট উপলক্ষে সেজে ওঠা কলকাতা যেন জয়পুরের গোলাপি আভাকেও হার মানিয়েছে। ভারত-বাংলাদেশ ঐতিহাসিক টেস্ট ম্যাচের সুবাদে কলকাতাই সেজেছিল দেশের নতুন পিঙ্ক সিটি। ইতোমধ্যে ইডেন টেস্টের রেজাল্টও চলে এসেছে। ইডেনে গোলাপি বলের টেস্ট ঘিরে গত শুক্রবার উতসাহের খামতি ছিল না।

দলে দলে ক্রিকেটপ্রেমীরা এসে গ্যালারি ভরিয়েছিল। ইডেনের আবহাওয়াটাই যেন সেদিন ছিল অন্যরকম।হরভজন সিং থেকে শুরু করে সুনীল গাওয়াস্কার, প্রত্যেকের পোশাক-পরিচ্ছদেই কিছু না কিছু গোলাপির ছোঁয়া ছিল। আর এই ট্রেন্ড থেকে বাদ যাননি সানিয়া মির্জাও। গোলাপি পোশাকে ইডেনে হাজির হয়েছিলেন ভারতীয় টেনিসের গ্ল্যামা’র গার্ল সানিয়া মির্জা।

পিঙ্ক বল টেস্ট নিয়ে রীতিমতো উচ্ছসিত দেখাচ্ছিল তাঁকে। এমন এক ঐতিহাসিক মুহূর্তের সাক্ষী থাকতে পেরে তিনি যেন দারুণ খুশি।আজকাল টেস্ট ম্যাচে মাঠে তেমন লোক হয় না, কিন্তু এদিন ইডেনে ফুল হাউস দেখে সানিয়াও খুব উত্তেজিত ছিলেন। কলকাতায় ইডেনে এত দর্শক দেখে মুগ্ধ তিনি। সানিয়া বলে গেলেন, ”খুব উপভোগ করছি ব্যাপারটা। কলকাতা তো বরাবরই খেলাধুলার জন্য উজাড় করে দেয়। সেটাই আরও একবার দেখলাম। ইডেন টেস্ট নিয়ে আমি আগে থেকেই উচ্ছ্বসিত ছিলাম।

এখানে আসার পর উন্মাদনা আরও বেড়ে গেল।”দীর্ঘদিন পর আবার টেনিস সার্কিটে ফিরছেন সানিয়া মির্জা। জানালেন, ২০২০ সালে অষ্ট্রেলিয়ান ওপেনে আবার কোর্টে নামা’র জন্য প্রস্তুতি শুরু করেছেন। সানিয়া আরও জানিয়ে গেলেন, বাংলাদেশের ক্রিকেটার তামিম ইকবাল ও তাঁর স্ত্রী’ আয়েশা তাঁর ভাল বন্ধু। তাদের খেলা আর স্বামী শোয়েব মালিক খেললে তিনি অবশ্যই ক্রিকেট দেখতে বসে পড়েন। ইডেনে দাঁড়িয়ে জানিয়ে গেলেন সানিয়া মির্জা।