যেভাবে বুঝবেন আপনার কিডনির সমস্যা হয়েছে ।

শরীরের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ কিডনি। প্রধানত দেহের ছাঁকনি হিসেবে কাজ করে এবং রক্ত থেকে দূষিত বর্জ্য পদার্থগুলো ছেঁকে বের করে দেয়। তবে কিডনির সমস্যা হলে বুঝবেন কীভাবে ? শরীরের নানা উপসর্গ আপনাকে জানান দেবে যে, আপনি কিডনির সমস্যায় ভুগছেন ৷ জেনে নিন সেই উপসর্গ সম্পর্কে- হাত ও পা ফুলে যাওয়া : কিডনি ঠিক মত কাজ না করলে শরীরে পানির পরিমাণ বাড়ে। ফলে হাত-পা ফুলে যাওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়।

দুর্বল অনুভব হওয়া : কিডনির সমস্যায় শরীর থেকে সোডিয়াম বেরিয়ে যেতে পারে। ফলে আপনি সহজেই ক্লান্ত অনুভব করেন। শুষ্ক ত্বক : ত্বক যদি শুষ্ক হতে থাকে ও চুলকায় তাহলে সাবধান হন। কিডনির কাজ না করলে ত্বকের সমস্যা হবে।প্রস্রাবে রক্তের ছোঁয়া : স্বাভাবিক অবস্থায় কিডনি শরীর থেকে বর্জ্য পদার্থ ছাঁকার কাজ করে। কিন্তু সেই প্রক্রিয়া ঠিকভাবে না হলে রক্ত মিশতে পারে আপনার প্রস্রাবে।

ঘনঘন প্রস্রাবের প্রবণতা : কিডনি আমাদের প্রস্রাব তৈরির প্রক্রিয়ায় সাহায্য করে। কিডনির কাজ না করতে পারলে বার বার প্রস্রাবের প্রবণতা তৈরি হবে। সকালে খালি পেটে কাঁচা রসুন খেলে কী কী উপকার হয় অনেকের কাছেই সকালে খালি পেটে কাঁচা রসুন খাওয়াটা ভীষণ অস্বাস্থ্যকর মনে হতে পারে। কিংবা অনেকেই মনে করতে পারেন যে এটা স্রেফ একটা কুসংস্কার।

কিন্তু আসলেই কি তাই? একদম না! খালি পেটে রসুন খাওয়া দেহের জন্য ভীষণ স্বাস্থ্যকর একটি ব্যাপার। বরং খালি পেটে রসুন খেলে এমন কিছু উপকার হয়, যেটা অন্য খাবারের সাথে রান্না করা করা অবস্থায় খেলে হয় না। চলুন, জেনে নিই খালি পেটে রসুন কীভাবে খাবেন ও কেন খাবেন। কীভাবে খাবেন: খালি পেটে রসুন অবশ্যই খেতে হবে সকালে, নাস্তা করার আগে। চিবিয়ে খেতে না চাইলে পানি দিয়ে গিলে ফেলুন দুই কোয়া রসুন। তবে হ্যাঁ, অবশ্যই টুকরো করে নেবেন।

কেন খাবেন: খালি পেটে রসুন খেলে রসুনের কার্যকারিতা আরো বেড়ে যায়, এটি পরিণত হয় একটি শক্তিশালী অ্যান্টিবায়োটিকে। গবেষকদের মতে খালি পেটে রসুন খাওয়া হাইপারটেনশন ও স্ট্রেস কমাতে সহায়তা করে, অন্যদিকে হজমের গণ্ডগোল রোধ করে। স্ট্রেস থেকে পেটে গ্যাসের সমস্যা হলে সেটাও প্রতিরোধ করে খালি পেটে রসুন। অন্যদিকে পেটের গণ্ডগোল জনিত অসুখ, যেমন ডায়রিয়া হলে এই খালি পেটে রসুন দ্রুত তা সারিয়ে দেয়। সকালে খালি পেটে রসুন খাওয়া শরীরের রক্ত পরিশুদ্ধ করে ও লিভারের ফাংশন ভালো রাখতেও সহায়তা করে। যাদের রসুনে অ্যালার্জি আছে তাঁরা এড়িয়ে চলুন।