কুমিল্লায় ২ চাচা মিলে যেভাবে ধ’র্ষণ করলো স্কুল ছাত্রীকে ।

কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার মো’কাম ইউনিয়নের পরিহ’লপাড়া গ্রামে প্রেমিক কে তা’ড়িয়ে দিয়ে স্কুল ছাত্রীকে গণধ’র্ষনের ঘ’টনায় মেয়ের চাচা আবদুল গফুর (৪৮)’কে গ্রে’ফতার করেছে বুড়িচং থানা পুলিশ।এঘটনায় জ’ড়িত অ’পর চাচা আলমগীর গ্রে’ফতার এড়াতে পা’লিয়ে বেড়াচ্ছে। জানা যায়, জেলার বুড়িচং উপজেলার মো’কাম ইউনিয়নের পরিহ’লপাড়ায় গত ১৬ নভেম্বর ক’র্মসুত্রে পিতা জাকির হোসেন ও নানী অ’সুস্থতার কারণে মা আয়শা বেগম বাড়িতে ছিলেন না।

রাত আনুমানিক সোয়া ১২ টায় প্রেমিক প্রেমিকার সাথে দেখা করতে আসলে বিষয়টি টে’র পেয়ে প্রতিবেশী চাচা সম্পর্কীয় একই গ্রামের শাহজাহানের ছেলে আলমগীর (৪৩) ও জেঠা সম্পর্কীয় মজিদের ছেলে গফুর (৪৮) তরুণ-তরুণী উভয় কে আ’টক করে।এসময় প্রেমিককে মা’রধ’র করতে থাকলে একপর্যায়ে সে দৌড়ে পা’লিয়ে যায়। এসু’যোগে চাচা ও জেঠা মিলে স্কুল ছাত্রীকে ধ’র্ষন করে এবং ঘটনার ভিডিও ইন্টারনেটে ছে’ড়ে দেওয়ার ভ’য়ভী’তিসহ কাউকে না বলার হু’মকী দিয়ে চলে যায়।

এদিকে প্রেমিকার মোবাইল ব’ন্ধ দেখে দু’শ্চিন্তায় পড়ে যায় প্রেমিক। পরদিন সকালে প্রেমিকা মোবাইল ফোনের ইমোতে প্রেমিককে জানায় তার ধ’র্ষনের ঘটনা এবং সে আত্মহ’ত্যারও হু’মকী দেয়।পরে প্রেমিক তার ৩/৪ জন সহযোগী নিয়ে পরিহ’লপাড়া গ্রামের একটি দোকানের সামনে পেয়ে শনিবার দুপুরে ধ’র্ষক গফুরকে মা’রধো’র করার সময় সে দৌড়ে পা’লিয়ে যায়।এদিকে একইদিন দুপুরে মা আয়সা বেগম মেয়ের ধ’র্ষনের খবর পেয়ে ছুটে আসে বাড়িতে। আয়সা বেগম সাংবাদিকদের জানান, বাড়িতে আসার পর আমার স্বামীর ভাই হাবিবের স্ত্রী’র কাছে (শবনম) ধ’র্ষনের কথা বলেছে শুনি।

পরে বিষয়টি নিয়ে বা’ড়াবা’ড়ি না করার জন্য ধ’র্ষকদের পরিবারের কাছ থেকে চা’প প্র’য়োগের কারণে তারা ভ’য়ে চু’প হয়ে যায়।এ ঘটনায় ধ’র্ষিতার মা আয়েশা বেগম বা’দী হয়ে ২২ নভেম্বর শুক্রবার বুড়িচং থা’নায় একই গ্রামের শাহজাহানের পুত্র আলমগীর হোসেন (২৮) ও মৃ’ত আব্দুল মজিদের পুত্র আব্দুল গফুর (৪৮) কে আ’সামী করে ধ’র্ষন মা’মলা দা’য়ের করে।মা’মলা প্রেক্ষিতে থানা পুলিশ অ’ভিযান চালিয়ে ধ’র্ষক আব্দুল গফুর (৪৮) কে গ্রে’ফতার করে কুমিল্লা আ’দালতে প্রে’রণ করেছে। বুড়িচং থানা পুলিশ পরিদ’র্শক (ত’দন্ত) সাফায়েত হোসেন মা’মলা ও আ’সামী গ্রে’ফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।