ধ*র্ষণ শেষে শিশুটির হাতে ১০ টাকা ধরিয়ে দিতেন বুদ্দু মিয়া ।

টাঙ্গাইলের মির্জা’পুরে ১১ বছর বয়সী এক স্কুলছাত্রীকে ধ’র্ষণের দায়ে বুদ্দু মিয়া (৫৫) নামের এক ব্যক্তিকে গ্রে’ফতার করে পু’লিশ। বৃহস্পতিবার (২১ নভেম্বর) গ্রে’ফতার বুদু মিয়াকে আ’দালতে সোপর্দ করেছে মির্জা’পুর থানা পু’লিশ। গ্রে’ফতারকৃত বৃদ্দু মিয়া কদিম ধল্যা গ্রামের মৃ’ত মহিজ উদ্দিনের ছেলে। বুধবার (২০ নভেম্বর) উপজে’লার জামুর্কী’ ইউনিয়নের কদিম ধল্যা গ্রামে গ্রে’ফতারকৃতর চালকলে ( ধান-চাল ভাঙ্গানোর কারখানা) এই ধ’র্ষণের ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় শি’শুটির বাবা বাদী হয়ে থানায় মা’মলা দায়ের করেছেন। মা’মলা সূত্রে জানা যায়, বুধবার সকাল ১০ টার দিকে ধ’র্ষণের স্বীকার শি’শুটি বুদ্দু মিয়ার চালকলে চাল গুড়ো করতে গেলে শি’শুটিকে পাশের একটি ঘরে নিয়ে ধ’র্ষণ করে বুদ্দু মিয়া। শি’শুটির খোঁজ নিতে চাল মিলে গেলে ধ’র্ষণের দৃশ্য চোঁখে পরে শি’শুটির বড় ভাইয়ের। পরে তার ডাক চি’ৎকারে স্থানীয়দের হাতে ধ’রা পরে বুদ্দু মিয়া।

শি’শুটি জানায়, এর আগেও অনেকবার তাকে চালকলে নিয়ে অসভ্য কাজ (ধ’র্ষণ) করেছে বুদ্দু মিয়া। এরপর হাতে দশ টাকা ধরিয়ে দিয়ে কাউকে বিষয়টি না বলার জন্য ভয় দেখিয়ে ছেড়ে দিতো বলে জানায় শি’শুটি। ধ’র্ষিত শি’শুটির পরিবার খুবই দরিদ্র। সেই সুযোগে বুদ্দু মিয়া এমন জঘন্য কাজ করেছে দাবি করে বুদ্দু মিয়ার দৃষ্টান্তমূলক শা’স্তি দাবি করেছেন এলাকাবাসী। মা’মলার ত’দন্ত কর্মক’র্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) হারিছুল ইস’লাম জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ধ’র্ষণের কথা স্বীকার করেছেন গ্রে’ফতারকৃত বুদ্দু মিয়া। শি’শুটিকে মেডিকেল পরিক্ষার জন্য নেয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি।