আমি বিয়ে করিনি, এটাই আমার বেঁচে থাকার রহস্য: শতায়ু নারী

আমি শরীরচর্চা করি। নাচ অনুশীলন করি। লাঞ্চের পর বিয়োং বাজাই। সারাদিন নিজের মতো করে থাকি। ১০৭ বছর বেঁচে থাকার কারণ। আমি বিয়ে করিনি। আমার মনে হয় এটাই রহস্য,’ এভাবেই নিজের ১০৭ বছর বয়স হওয়ার রহস্য জানালেন লুইন সিঙ্গনোর। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের বাসিন্দা। এছাড়াও লুইন নিয়মিত শরীরচর্চা করে থাকেন। তিনি বেশ স্বাস্থ্য সচেতনও, বেছে বেছে পরিমিত ডায়েটের খাবার খান। লুইস সিঙ্গনোর বোনও ১০২ বছর বয়স্ক। তবে সবচেয়ে দীর্ঘজীবী জীবিত নারী হলেন অ্যালিলিয়া মার্ফি (১১৪)। তিনিও নিউইয়র্কের হারলেমে বাস করেন।

এছাড়া, গাউট বা গেটেবাতের নাম কমবেশি আমাদের সকলেরই প্রায় জানা। রক্তে ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা বেড়ে গেলে আমাদের শরীরে বিভিন্ন জয়েন্ট অসহ্যকর এক যন্ত্রণা শুরু হয় যার ফলে আঙুল ফুলে যায় এবং লাল হয়ে যায়। এছাড়া কুনুই, গোড়ালি, কবজি, হাঁটুতেও এটি প্রভাব ফেলে। অনেকেই এই সমস্যায় ভুগে থাকেন। তবে আনারস ও শসা একত্রে খেলে এই গাউট বা গেটেবাতের সমস্যা থেকে অনেকটাই মুক্তি পাওয়া যায়।

শসার মধ্যে পিউরিনের পরিমান কম থাকে, জলের পরিমান বেশি থাকে ও আনারসের ব্রোমেল্যাইন ইউরিক অ্যাসিডের ক্রিস্টালকে গলিয়ে ফেলতে সাহায্য করে। এই দুই উপাদান একত্রে গাউট বা গেটেবাত কে প্রতিরোধ করে। স্বাস্থ্য বিষয়ক দপ্তর আনারস ও শসাকে এই সমস্যার জন্য একত্রে খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। আসুন জেনে নিই কিভাবে তৈরি করবেন শসা ও আনারসের এই মিশ্রণটি।

এই মিশ্রণটি তৈরি করার জন্য প্রয়োজন – শসা এক কাপ, আনারস এক কাপ, আদা একটি কাপের চার ভাগের এক ভাগ, পানি এক কাপ, অর্ধেকটা লেবুর রস। এবার মিশ্রণটি তৈরি করার জন্য এই সমস্ত উপাদান একটি ব্লেন্ডারে দিয়ে ব্লেন্ড করুন। তাহলেই এই মিশ্রণটি পান করার জন্য প্রস্তুত। তবে শারীরিক অবস্থা বুঝেই এই মিশ্রণটি পান করা উচিত। সেক্ষেত্রে এই মিশ্রণটি পান করার আগে কোনো ভালো চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে নেওয়া ভালো।