আবারও ই,হুদী বি,রোধী পোস্ট করলেন রোনালদো ।

পুরো বিশ্বের কাছেই ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর ই’হুদী বি’রোধী ম’নোভা’বের কথা প’রিষ্কার। বিশ্বের এত বড় একজন খেলোয়াড় সব সময় ই’হুদী বি’রোধী ম’নোভাব পো’ষন করে এবং সেটা সু’যোগ হলেই প্র’য়োগও করে এটাও ইসরায়েলের জন্য নে’তিবা’চক ঘটনাই। ফি’লিস্তি’নে ক্রি’শ্চিয়ানো রোনালদোর আলাদা একটা ভালোবাসার জায়গা আছে। সেই ভালোবাসার জায়গাটাও রোনালদো কখনোই যেন ন’ষ্ট হতে দিচ্ছেন না।

এবার তেমনই এক কাজ করলেন রোনালদো যা দিয়ে তিনি প্র’ত্য’ক্ষ ভাবে সাপোর্ট করলেন ফি’লি’স্তিনকে। শুক্রবার পশ্চিম তীরে একটি বি’ক্ষোভ কভারেজের সময় ইসরায়েলের সেনাদের গু’লিতে বাম চোখ হা’রান মোয়াজ আমারনা নামে এক সাংবাদিক। ঘটনাটি ফি’লি’স্তিনসহ আরব দেশগুলোতে ব্যা’পক আলোচনা সৃ’ষ্টি করেছে। এই ঘটনার পর ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ছবি পোস্ট করেছেন। সেখানে দেখা যায় রোনালদোর বাম চোখে ব্যান্ডেজ করা। অর্থাৎ এক চোখ হা’রিয়েছেন তিনি এমনটাই বু’ঝিয়েছেন।

অন্যদিকে, পশ্চিম আফ্রিকার দেশ ঘানার উত্তর-পূ’র্বা’ঞ্চলের নালরাগু প্রদেশের ইয়াবালা গ্রামের ৪৭৩ জন বাসিন্দা এক স’ঙ্গে পবিত্র ধর্ম ইসলাম গ্রহণ করেছেন। আফ্রিকার ‘রেসালাতে তাওসিয়া’ ইন্সটিটিউটের স’দস্যদের দাওয়াত ও তাবলিগের ফলে ইয়াবালা গ্রামের এ লোকেরা ইসলাম গ্র’হণ করেন। ঘানার এ ইয়াবালা গ্রামের মোট বাসিন্দার সংখ্যা ১২০০। এদের ম’ধ্যে আগে ৩২০ জন ইসলাম গ্র’হণ করেছিলেন। আর এ দ’ফায় ইসলাম গ্রহণ করলেন ৪৭৩ জন। সে হিসেবে ৭৯৩ জন ইসলাম গ্রহণ করেছেন।

আফ্রিকার দেশগুলোতে ‘রেসালাতে তাওসিয়া’ ইন্সটিটিউট ইসলামের প্র’চার-প্রসারে নি’রলস কাজ করে যাচ্ছে। তাদের দাওয়াত ও তাবলিগের মেহনতেই ইসলামের সুমহান আ’দর্শে উ’জ্জীবিত হয়ে দলে দলে মানুষ ই’সলাম গ্র’হণ ক’রছেন। দাওয়াত ও তাবলিগের ধারক সংগঠন ‘রেসালাতে তাওসিয়া’ ইন্সটিটিউট। এ ইন্সটিটিউটে ই’সলামের প্র’চার-প্র’সারে নি’য়মিত ধ’র্মীয় শি’ক্ষার ক্লাসের আ’য়োজন করে চলেছেন সংগঠনটি।

দাওয়াত ও তাবলিগের কাজ ছাড়াও সংগঠনটি আফ্রিকার বিভিন্ন দেশে সমাজ-সং’স্কারমূলক কাজও করে থাকে। বিভিন্ন দেশে মসজিদ নি’র্মাণ, কূপ খনন করা ছাড়াও মু’সলমানদেরকে বিভিন্নভাবে স’হযোগিতা করে যাচ্ছে সংগঠনটি। নও মুসলিম অ’ধ্যুষিত ই’য়াবালা গ্রামের এখনো কোনো মসজিদ নি’র্মাণ হয়নি। নেই কোনো পুরনো মসজিদও। নও মু’সলিমদের উ’দ্যোগেই মসজিদ নি’র্মাণের সি’দ্ধা’ন্ত গ্র’হণ করা হয়েছে। ইতোম’ধ্যে মসজিদ নি’র্মাণে মু’সলমানরা আ’র্থিকভাবে স’হায়তাও করেছেন।

রাশিয়া থেকে হজ করবে ২৫ হাজার মুসলিম…. জনসংখ্যার দিক থেকে নবম হলেও বিশ্বের বৃহত্তম দেশ রাশিয়া। এবার বৃহত্তম এ জনপদ থেকে হজ উ’পলক্ষ্যে পবিত্র ন’গরী ম’ক্কায় যাবেন ২৫ হাজার হাজি। সৌদি আরবে হজ ক’র্তৃপ’ক্ষ এ বছর (২০১৯ সালের হজ কোটায়) ৫ হাজার হাজির সংখ্যা বৃ’দ্ধি করেছে। যা গত বছর ছিল ২০ হাজারে। হজ কোটায় ৫ হাজার হাজির সংখ্যা বা’ড়ানোর ফলে এবার বিশ্বের বৃহত্তম দেশ ও জনসংখ্যায় ন’বমতম দেশটি থেকে ২৫ হাজার মু’সলমান হজ পালন করবেন। সৌদি প্রেস এজেন্সির (এসপিএ) তথ্য মতে, গতকাল শনিবার রাশিয়ার হজ যা’ত্রীদের প্রথম দলটি সৌদি আরব এসেছেন।

সৌদি আরব ও সংযু’ক্ত আরব আমিরাতের সী’মা’ন্তব’র্তী ‘আল-বা’থহা’ প্রবেশ গেট দিয়ে তারা সৌদি আরব পৌঁছেছেন। সৌদি আরবের উ’র্ধ্বতন ক’র্মক’র্তারা তাদের অ’ভ্যর্থনা জানান। এবারের হজে রাশিয়ার ৬৪টি অ’ঞ্চল থেকে মু’সলমানরা হজে যাবে। এসব হাজিদের ম’ধ্যে অধিকাংশই ককেশাসের নাগরিক। এছাড়াও দাগেস্তা’ন, চেচনিয়া, তাতারস্তান, বাশকোটোস্টান এবং ইঙ্গুশিয়ার মু’সলমানরাও যাবে পবিত্র হজ পালনে। রাশিয়া ইউরোয়েশিয়ান অ’ঞ্চলীয় দেশ হিসেবে পরিচিত। দেশটিতে অ’র্থোডক্স খ্রি’স্টান ধ’র্মাবল’ম্বীরাই প্রথম স্থা’ন দ’খল করে আছে। আর দ্বিতীয় স্থানেই রয়েছে ই’সলাম ধ’র্মাবল’ম্বীরা। আল্লাহ তাআলা রাশিয়ার মুসলিমদের সহজ ও নি’রাপদে হজ স’ম্পাদনের তাওফি’ক দান করুন। আমিন।