বাংলাদেশি নারীকে দে,হ ব্য’বসায় বা’ধ্য করলো ভারতীয় দ’ম্পতি ।

তিন বাংলাদেশি নারী পা’চার ও নিপী**ড়নের দায়ে সিঙ্গাপুরে দুই ভা*রতীয় নাগরিককে সর্বোচ্চ দশ বছরের কা*রা*দণ্ড দেয়া হতে পারে। নতুন মা*নবপাচার আ’ইনের আওতায় এটিই প্রথম মা*মলা। ২০১৫ সাল থেকে সিঙ্গাপুরে মানব৮পা’চার আ’ইন কা’র্যকর হয়েছে। এরপর প্রথম যে ঘটনাটি সামনে এসেছে, তাতে উঠে এসেছে তিন বাংলাদেশি নারীর কথা। খবর ডয়েচে ভেলের। মাসিক ৬০ হাজার টাকা বেতনের কথা বলে বাংলাদেশ থেকে তিন না’রীকে সিঙ্গাপুরে নিয়ে এসেছিল এক ভারতীয় দ’ম্পতি।

এরপর তাদের পাস*পোর্ট ছি*নিয়ে নিয়ে আ*টক করে রাখা হয়। ভারতীয় দ’ম্পতির একটি নাই*টক্লাব রয়েছে সিঙ্গাপুরে, যেখানে প্রতিদিন বিনা পারিশ্রমিকে না’চতে বা’ধ্য করা হতো এই না’রীদের। তাদের ম’ধ্যে একজনকে জোর করে দে**হ ব্য’বসাতেও নামানো হয় বলে অ’ভিযোগ। তিন নারীর অ’ভিযোগের ভিত্তিতে প্রথমে বি’চার প্রক্রিয়া শুরু হয়। আগামী ১৯ ডিসেম্বর ঐ ভারতীয় দ’ম্পতির সা*জার মেয়াদ ঘো’ষণা করা হবে।

এতে সর্বোচ্চ ১০ বছরের জেল ও বে*ত্রা*ঘাতের সা’জা দেয়া হতে পারে। মানবপা’চার বি’রোধী সংগঠনগুলির মত, এই দৃ’ষ্টান্তমূলক সাজার ফলে সিঙ্গাপুর ক’র্তৃপ’ক্ষ ও মানবপা’চারের সাথে জ’ড়িতদের উ’দ্দেশ্যে ক’ড়া বা’র্তা দেওয়া হয়েছে। মানবপা’চার বি’রোধী সংগঠন হাগার ইন্টারন্যাশনালের প্রধান মাইকেল চিয়াম সংবাদসংস্থা রয়টার্সকে জানান, ‘চাকরিদাতাদের কখনোই ভাবা উচিত নয় যে মা*নবপা’চার ও এমন অ**পরাধ করে তারা আ’ইনকে ফাঁ’কি দিতে পারবে।’একই আ’ইনের আ’ওতায় আরো দুটি মা’মলা বর্তমানে বি’চারাধী’ন। উল্লেখ্য, সিঙ্গাপুরে মোট ৫৬ লাখ জনসংখ্যার মধ্যে ১০ লাখ বাংলাদেশি, চীনা ও বার্মিজ অ’ভিবাসী শ্র’মিক।