নাতনিকে বিয়ে করে নানা ভা’ইরাল ।

পেশায় রিকশাচা’লক ও ছয় সন্তানের জ’নক শামছুল হক শামছু (৬৫) ফে’র বিয়ে করে’ছেন। তার স্ত্রীর নাম মর'িয়ম আক্তার। পড়ে অষ্টম শ্রেণিতে। তারা দূ’র সম্প’র্কের নানা-নাতনি। গত ১০ মে তাদের বিয়ে হয়। এ খবর প্রকাশ 'হতেই সামাজিক যোগা’যোগমাধ্য’মে ভা’ইরাল হয়েছে। ঘট’নাটি ঘটে’ছে কুমিল্লার লালমাই উপজে'লার পেরুলে।

নানা শামছুল হক শামছু লালমাই উপজে'লার পেরুল দক্ষিণ ইউনিয়নের পেরুল গ্রামের দীঘির পাড় এলাকার বাসিন্দা। আর ওই ছাত্রীর বাড়ি একই উপজে'লার পশ্চিম পেরুল গ্রামে। সে পেরুল উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী। বর শামছুল হকের ছোট মেয়েও তার স''ঙ্গে প’ড়ে।

জানা গেছে, গত ১০ মে শামছুল হক শামছু ওই ছাত্রীকে ৫ লাখ টাকা দেনমোহর ও ১ লাখ টাকা উ’সুল দিয়ে বিয়ে করেন। ছাত্রীর বাবা ঢাকায় চাকরির সুবাদে তাদের পরিবার দেখাশো’না করার অসিলায় আসা-যাওয়া করতেন রিকশা’চালক শামছু। পঞ্চম শ্রেণি থেকেই স্কুলে যাওয়া আসার সময় সে শামছুল হকের রিকশায় যা’তায়াত কর’তো।

এ সময়ে তাদের মধ্যে প্রেমের স’ম্পর্ক গ’ড়ে ওঠে। স্থানীয়রা বলেন, বি'ষয়টি নিয়ে এলাকায় চাঞ্চ’ল্যের সৃষ্টি হওয়ায় ১১ মে বর-কনেকে ইউনিয়ন পরিষদ কা’র্যালয়ে লোক মা’রফত নিয়ে আসেন ইউপি চেয়ারম্যান। বর শামছুল হককে জি’জ্ঞা’সাবা’দ করলে সে বলে ৫ লাখ টাকা দেনমোহর ও ১ লাখ টাকা উসুলে তাকে আমি বিয়ে করি। এ সময় শামছুল হক বিয়ের কা’বিননা’মা ও কনের জন্মসন’দ দে’খিয়েছে।

শামসুল হকের দুই মেয়ে ও তিন ছেলের মধ্যে এক ছেলে ও এক মেয়ের বিয়ে হয়েছে। আর কনে চার ভাইবোনের মাঝে দ্বিতীয়। তার বড় বোনের এখনো বিয়ে হয়নি। ছোট দুই ভাই রয়েছে। শামছুল নতুন করে বিয়ে করেছেন এবং তার স্ত্রী সম্পর্কে তার নাতনি বি'ষয়টি প্রকাশ 'হতেই সামাজিক যোগা’যোগমা’ধ্যমে ভাই’রাল হয়ে যায়।

বিয়ে প্রস’''ঙ্গে মেয়ের চাচা মোবারক হোসেন মফু বলেন, এ ঘট’নায় আমর'া সামা’জিকভা’বে হেয় প্র’তিপন্ন হয়েছি। অ’বুঝ মেয়েটাকে ফু’সলিয়ে সে এ কা’জটা করেছে। এ বি'ষয়ে মেয়ের বাবা জানান, শামসু আমা'র বাড়ির কাজ করতো। আমি ঢাকায় একটি প্রাইভেট কোম্পানিতে চাকরি করি। আমা'র পরিবারে বিভিন্ন কাজ সে করে দিতো।

তাকে আমি খুব বিশ্বা'স করতাম। সে আমা'র মেয়েকে প্ররো’চনা দিয়ে বিয়ে করে। সে একজন রিকশাচা’লক। তার ঘরে স্ত্রী সন্তান রয়েছে। এই ব’য়স্ক একটা লোকের স’''ঙ্গে আমা'র মেয়ে কিভাবে সংসার করবে। এদিকে, বিয়ের পর স্ত্রীকে বাড়িতে না তু’লে লালমাই উপজে'লায় একটি ভাড়া বাড়িতে রে’খেছেন রিকশাচা’লক শামছুল হক। তিনি বলেন, মর'িয়ম আক্তার সম্পর্কে আমা'র নাতনি।

দীর্ঘদিন ধরে তাদের স''ঙ্গে আমা'র পারিবারিক সম্পর্ক। তাদের বি’পদে আপ’দে আমি সবসময় পাশে ছিলাম। তাকে স্কুলে আনা নেওয়ার পথে আমা'দের প্রেমের সম্প’র্ক গ’ড়ে ওঠে। আমা'র প্রথম বউ অ’পা’রেশনের রো’গী। সংসারে কাজ করতে পারে না, তাই মর'িয়মকে বিয়ে করেছি। শামছু আরও বলেন, আমা'দের দুজনের সম্ম’তিতেই বিয়ে হয়েছে।

১ লাখ টাকা উসু’লের মধ্যে আমি তাকে ১০ হাজার টাকা দিয়ে একটি কানের দুল দিয়েছি এবং নগদ ১ হাজার ৫০০ টাকা দিয়েছি। কাজী অফিস নাকি কোর্টে বিয়ে হ’য়েছে জানতে চাইলে বি'ষয়টি এড়িয়ে যা’ন রিকশাচা’লক শামুছুল। তবে অ’সম বয়সে বিয়ের ব্যাপারে তিনি বলেন, মর'িয়মের বয়স ২০ বছর তিন মাস। চেয়ারম্যান অফিসে যান, কম্পিউটারে গিয়ে দেখেন।

চেয়ারম্যান সব বি'ষয়ে অবগ’ত আছেন। তিনি ডেকে নিয়ে আমা'দের কাছ থেকে সব জেনেছেন। বিয়ের সত্যতা নি’শ্চিত করেছেন পেরুল দক্ষিণ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান সফিকুর রহমান। তিনি বলেন, বিয়েটি আ’ইনগ’তভা’বে হয়েছে। এটি কোনো বা’ল্য’বিয়ে নয়। মেয়ের বয়স জন্মসন’দ অনুযায়ী ২০ বছর তিন মাস। আমি ইউনিয়ন পরিষদে তাদের ডে’কে এ’নে সব কাগজপত্র দেখেছি, যা উপজে'লা নির্বাহী অফিসারকে অবগ’ত করেছি।

এখন মেয়ে সং’সার করতে চাইলে আমা'দের কী করার আছে? লালমাই উপজে'লা নির্বা’হী ক’র্মকর্তা (ইউএনও) ইয়াসির আরাফাত বলেন, বি'ষয়টি আমি চেয়ারম্যানের কাছ থেকে শুনেছি, মেয়েটির জন্মসনদ ২০০৮ সালের করা। তখনকার সময় এনালগ ছিল। জন্মসনদে কোনো কা’রসা’জি আছে কিনা বি'ষয়টি আমর'া ত’দন্ত করছি।লালমাই থা’নার ভা’রপ্রা’'প্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আইয়ুব বলেন, এ বি'ষয়ে থানায় কেউ অ'ভি’যোগ দেয়নি, অ’ভিযো’গ পেলে ব্যব’স্থা নেওয়া হবে।