জিঞ্জিরার চুলায় তৈরি হয় ‘জনসন বেবি লোশন’

ঢাকার কেরানীগঞ্জের জিঞ্জিরায় অ’ভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ নকল প্রসাধনী জ’ব্দ করেছেন র‌্যা’বের ভ্রাম্যমাণ আ’দালত। যার অধিকাংশ শি’শুর জন্য তৈরি। অ’ভিযানে নামীদামি কোম্পানির পণ্য নকল করার অ’প’রাধে পাঁচজনকে গ্রে’ফতার করেছে র‌্যা’ব। তাদের বিভিন্ন মেয়াদে সাজা ও ১৫ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। সিলগালা করা হয় ৫টি প্রতিষ্ঠান। থরে থরে সাজানো কার্টনে ভরা নকল সব প্রসাধনী। বোঝার উপায় নেই এগুলো নকল পণ্য।

এগুলোর অধিকাংশই কোমলমতি শি’শুদের জন্য তৈরি।নামীদামি বিভিন্ন কোম্পানির নামে নকল এসব পণ্য প্যাকেটজাত হয়ে চলে যায় অ’ভিজাত এলাকার দোকন থেকে শুরু করে দেশের নানা প্রান্তে। এসব পণ্য কী’ভাবে তৈরি করা হয় তার বর্ণনা দিলেন অ’বৈধ এ কাজের সঙ্গ জ’ড়িতরা। একজন বলেন, কেমিক্যাল থাকে, সেটাকে চুলায় বসাতে হয়। দেড়ঘণ্টা পর চুলা থেকে নামিয়ে সেগুলোতে সুগন্ধি মিশিয়ে বাজারের জনসন বেবি লোশনের হুবহু নকল বোতলে ঢুকানো হয়। এগুলো প্রথমে রাজধানীর চকবাজারে এবং সেখান থেকে চলে যায় দেশের সব জায়গায়।

মঙ্গলবার রাতে কেরানীগঞ্জের জিঞ্জিরার আতাসুল এলাকায় অ’বৈধভাবে গড়ে ওঠা এমন ৫টি কারখানায় অ’ভিযান চালিয়ে সিলগালা করে দেন র‌্যা’বের ভ্রাম্যমাণ আ’দালত। ক্ষতিকর এসব কেমিক্যাল ব্যবহারের ফলে শরীরে ক্যান্সারের মতো রোগের ঝুঁ’কি রয়েছে বলেও জানান র‍্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম।যেসব দোকানে এসব নকল পণ্য বিপনন করা হতো তাদেরকেও শা’স্তি আওতায় আনা হবে বলে জানান র‌্যা’বের ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম।