সন্তান বাঁচাতে রাস্তায় পথচারীর হাত পা ধরে ভিক্ষা করছেন অসহায় মা

প্রচন্ড রোদ! এই রোদেই ব্যাস্থতম রাস্তায় দাড়িয়ে মেয়ের জীবন বাঁচাতে পাগলের মত কাঁদতে কাঁদতে পথচারীর হাত পা ধরে টাকা ভিক্ষা চাচ্ছেন একজন অসহায় মা! এই হৃদয় বিদারক ঘটনাটি কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার ভিতরবন্দ ইউনিয়নের দোওয়ালীপাড়া গ্রামে। তার মায়ের সাথে কথা বলে জানা যায়, তার মেয়ে সাথী (২) জন্মগতভাবে হৃদরোগে আক্রান্ত (হার্টে ফুটা) হয়ে দিনে দিনে ধিরে ধিরে মৃত্যুর দিকে ধাবিত হচ্ছে। ডাক্তাররা বলেছে দ্রুত তার হার্টের সার্জারী ও উন্নত চিকিৎসার না করা হলে হয়তো বাচ্চাটিকে যে কোন খারাপ পরিস্থতির সন্মুখিন হতে হবে। ডাক্তার আরও বলেছে অপারেশন করতে প্রায় দুই লক্ষ টাকার প্রয়োজন হবে।

প্রায় ৪ মাস চেষ্টার পরে শিশুটির মা মাত্র ৪০ হাজার টাকার যোগাড় করেছেন। শিশুটির চিকিৎসার জন্য আরও ১ লক্ষ ৬০ হাজার টাকার প্রয়োজন। বাচ্চাটির পিতা শাহালম,মাঃ শাপলা ও নানা আব্দুস সাত্তার বাচ্চাটিকে বাঁচাতে মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়ে টাকা সংগ্রহ করার চেষ্টা করছে। শিশুটির মায়ের সাথে কথা বলে জানা যায়, হঠাৎ মেয়েটির দম বন্ধ হয়ে আসে, হাটতে গেলে দম বন্ধ হয়ে ধপ করে পড়ে যায়,হঠাৎ প্রচন্ড জ্বর আসে বমি করে। বাচ্চাটিকে বাঁচাতে সমাজের হৃদয়বান বৃত্তবানদের এগিয়ে আসার অনুরোধ করেছেন শিশুটির পুরো পরিবার। প্রতিবেদকের দুটি কথাঃ আমি শিশুটির এতো করুন অবস্থা নিজ চোখে দেখে কোনোভাবেই নিজেকে স্বান্তনা দিতে পারিনি।

একজন অসহায় মা তার সন্তানকে বাঁচাতে ব্যাস্থতম রাস্তায় দাড়িয়ে পাগলের মতো মানুষের হাতে পায়ে ধরে ভিক্ষা করছে! আমি আপনাদের সকলের সহযোগিতা নিয়ে বাচ্চাটির চিকিৎসাটা করাতে চাই। দয়া করে অবুঝ শিশুটির চিকিৎসার জন্য আপনারা এগিয়ে আসুন। জয় হোক মানবতার— বাচ্চাটির পাশে দাড়াতে সঞ্চয়ী হিসাব নংঃ১৩৫৮৭ হিসাবের নামঃ ছালেহা বেগম( বাচ্চার নানী) ব্যাংকের নামঃ অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড। শাখার নামঃ ভিতরবন্দ হাট শাখা, নাগেশ্বরী, কুড়িগ্রাম।