পানির দরে বিক্রি হচ্ছে ইলিশ!

মাছের আড়তগুলো সয়লাব হয়ে গেছে ইলিশে। বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার দুই দিনে ৫ হাজার মণেরও বেশী ইলিশ এসেছে দক্ষিণের সর্ববৃহৎ পাইকারী ইলিশ মোকাম বরিশালের পোর্ট রোড আড়তে। এভাবে হঠাৎ করে বাজারে ইলিশের সরবরাহ বেড়ে যাওয়ায় বৃহস্পতিবার (৩১ অক্টোবর) কেজিপ্রতি দাম নেমে এসেছিল ২০০ টাকায়, পরদিন শুক্রবার (১ নভেম্বর) দাম বেড়েছে কিছুটা।

এদিকে মাছের বাজার ইলিশে সয়লাব হওয়ায় অন্যান্য মাছের দাম কমেছে অবিশ্বাস্যভাবে। বড় সাইজের এক কেজি পোয়া মাছ বিক্রি হয়েছে ২ থেকে আড়াই শ’ টাকা দরে। পোর্ট রোডের মাছ বিক্রেতা লালু সিকদার জানান, বরিশালের মানুষের প্রথম পছন্দ ইলিশ। বাজারে ইলিশ সস্তা হওয়ায় এখন অন্যান্য মাছের তেমন চাহিদা নেই ক্রেতাদের। তাই ইলিশ ব্যতিত অন্যান্য সকল দেশীয় মাছের দাম সর্বকালের সর্বনিম্ন বলে জানান তিনিসহ অন্যান্য মাছ বিক্রেতারা। ক্রেতা হাবিবুর রহমান সোহেল বলেন, আধা কেজি ওজনের ৮টি ইলিশ মাত্র ১ হাজার ৬০০ টাকায় কিনেছি।

চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে এগুলোর দাম ছিল সাড়ে ৩ থেকে ৪ হাজার টাকা। পাশাপাশি ছোট ইলিশের কেজি ২০০ টাকা। বাজারে প্রচুর ইলিশ আসায় দাম কমেছে। তবে জেলে ও মৎস্য ব্যবসায়ীরা বলছেন, নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার পর ধরা পড়া ইলিশের মধ্যে অধিকাংশের পেটে ডিম। সেক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞার সময়সীমা আরও ১৫ দিন পিছিয়ে অর্থাৎ ২২ অক্টোবর থেকে শুরু করে ২২ দিন করলে ভালো ফল পাওয়া যেত।