সাকিবের জন্য সংবাদ সম্মেলনেই কান্না করেন সাংবাদিকরা ।

বাংলাদেশের ক্রিকেট যেন এখন সাকিবময়। এক সাকিবের নিষেধাজ্ঞার কারণেই যে এখন বাংলাদেশের ক্রিকেট আলোচিত-সমালোচিত। আর এই সাকিবের জন্যই যে ঈকান্নার রোল পড়ে সংবাদ সম্মেলনেই। সাকিবকে নিয়ে যখন বিসিবি বস সংবাদ সম্মেলনে আসেন ঠিক তখনি তাদের সাথে আসেন সাংবাদিকরাও। এই সময় সাকিব এবং পাপন দুইজনেই সংবাদ সম্মেলনে কথা বলেন।

আর সেই সময়তেই যেন এক বেদনাকাতর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। এই সাকিবের জন্যই যে তখন চোখের পানি ধরে রাখতে পারেননি একাত্তর টিভির সাংবাদিক দেব। পাপন, সাকিব এবং বিসিবির সবার সামনেই তিনি কান্না করেন। আর সেই ছবিই যেন খুব দ্রুত ভাইরাল হয়ে পড়ে। বাংলাদেশ জাতীয় ওয়ানডে দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা মনে করেন, সাকিব নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ফিরবেন এবং তার নেতৃত্বেই বাংলাদেশ আগামী ২০২৩ বিশ্বকাপের ফাইনালে খেলবে। নিজের ফেসবুকে মাশরাফি লিখেছেন, ‘দীর্ঘ ১৩ বছরের সহযোদ্ধার আজকের ঘটনায় নিশ্চিতভাবেই কিছু বিনিদ্র রাত কাটবে আমার। তবে কিছুদিন পর এটা ভেবেও শান্তিতে ঘুমাতে পারব যে, তার নেতৃত্বেই ২০২৩ সালে আমরা বিশ্বকাপের ফাইনালে খেলব। কারণ নামটি তো সাকিব আল হাসান…!!!।’

বুধবার দুপুরে দুই টেস্ট ও তিন টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলতে ভারতের উদ্দেশ্যে রওনা হবে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। অথচ তার আগেরদিন অর্থাৎ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সবধরনের ক্রিকেট থেকে আগামী ১ বছর দূরে থাকা নিষেধাজ্ঞা পেলেন দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান।স্বাভাবিকভাবেই এর প্রভাব পড়ছে পুরো দলে। এমন গুরুত্বপূর্ণ সফরের আগে দলের অধিনায়ক, সবচেয়ে সেরা তারকার এমন পরিণতি বাংলাদেশ দলের ভেতরেও নাড়া দিয়েছে প্রবলভাবে।

এরই মাঝে সাকিবের প্রতি নিজের পূর্ণ সমর্থনের কথা জানিয়েছেন উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহীম। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজের অফিসিয়াল পেজে আবেগঘন এক বার্তায় মুশফিক লিখেছেন, ‘বয়সভিত্তিক ক্রিকেট, আন্তর্জাতিক ক্রিকেট…প্রায় ১৮ বছরের বেশি সময় ধরে একসঙ্গে ক্রিকেট খেলছি। তোকে ছাড়া মাঠে খেলতে হবে, ভাবতেই মন খারাপ হয়ে যাচ্ছে। আশা করছি তুই চ্যাম্পিয়ন ক্রিকেটারের মতোই ফিরবি। তোর সঙ্গে সবসময় আমার সমর্থন আছে। সারা বাংলাদেশ তোর সঙ্গে আছে।

শক্ত থাকবি ইনশাআল্লাহ্‌।’ এর আগে শক্ত মানসিকতার পরিচয় দিয়ে স্ট্যাটাস দিয়েছেন সাকিব আল হাসানের স্ত্রী উম্মে আহমেদ শিশির। যেখানে তিনি লিখেছেন, ‘কিংবদন্তিরা কখনোই রাতারাতি কিংবদন্তি হয়ে যান না। তাদের অনেক কিছুর মধ্য দিয়েই যেতে হয়। কঠিন সময় আসবেই এবং তারা জানে কীভাবে শক্ত থেকে এসবের মোকাবেলা করতে হয়। আমরা জানি সাকিব আল হাসান কতটা শক্ত মনের মানুষ।’

‘এটা (আইসিসির নিষেধাজ্ঞা) বলা যায় নতুন শুরুর সূচনা। সে নিশ্চিতভাবেই আগের চেয়ে আরও শক্তভাবে ফিরে আসবে। ইনজুরির কারণে এর আগেও অনেকবার ক্রিকেট থেকে দূরে থাকতে হয়েছে। আমরা সবাই দেখেছি বিশ্বকাপে সে কী দুর্দান্ত প্রত্যাবর্তন করেছে। এটা শুধুমাত্র সময়ের ব্যাপার। আপনাদের সবার সমর্থন ও ভালোবাসায় আমরা আপ্লুত। সকলের এই ঐক্যটা জাতি হিসেবে খুব দরকার আমাদের।’