মধ্যপ্রাচ্য থেকে কর্মময় জীবন শেষ করে দীর্ঘ ১৭ বছর পর দেশে ফেরার পথে বিমানবন্দরে প্রবাসীর মৃ’ ত্যু !

কর্মময় জীবন শেষ করে দীর্ঘ ১৭ বছর পর দেশে ফিরবেন, কিন্তু দেশে ফেরার পথেই মা রা গেলেন কুয়েত প্রবাসী এক বাংলাদেশি। রোববার (২০ অক্টোবর) হৃদ রোগে আ ক্রান্ত হয়ে কুয়েতের ফরওয়ানিয়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মা’ রা যান তিনি।

নি হত প্রবাসীর নাম মোহাম্মদ আলম (৪৩), বাড়ি টাঙ্গাইলের মির্জাপুর। রোববার বাংলাদেশ বিমানে রাত দেড়টার একটি ফ্লাইটে ঢাকায় যাওয়ার কথা ছিল আলমের। এ উদ্দেশে স্থানীয় সময় রাত ১০টায় কুয়েত বিমানবন্দরে পৌঁছান। সঙ্গে থাকা মালামাল বুকিংয়ের কাজ শেষে এক পর্যায়ে বুকে ব্যথা অনুভব করেন তিনি।

তখন স্থানীয় ফরওয়ানিয়া হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। সেখানে প্রায় ৩ ঘণ্টা চিকিৎসার পর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক আলমকে মৃ’ ত ঘোষণা করেন।প্রবাসীরা জানান, ১৭ বছর আগে কুয়েতে আসেন তিনি। ‘কেওসি’ নামে একটি তেল কোম্পানিতে কাজ করতেন মোহাম্মদ আলম।

আরো পড়ুন… সংযুক্ত আরব আমিরাতের মন্ত্রিসভা 2020 সালের 1 জানুয়ারি থেকে জন স্বাস্থ্য রক্ষায় মিষ্টিযুক্ত খাবার , মিষ্টিজাতীয় পানীয় এবং বৈদ্যুতিন ধূমপানের ডিভাইস ব্যবহার কমাতে এসব পণ্যের উপর ৫০ থেকে ১০০ শতাংশ ভ্যাট যুক্ত করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে ।

মন্ত্রিপরিষদ জেনারেল সচিবালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে যে সংযুক্ত আরব আমিরাত সরকারের জনস্বাস্থ্য সচেতনতা বাড়ানোর লক্ষ্যে চিনি এবং তামাক সেবনের সাথে সরাসরি জড়িত দীর্ঘস্থায়ী রোগ প্রতিরোধ করার জন্য।”

এক বিবৃতিতে আরো বলা হয়েছে, “পানীয়, তরল, ঘন, গুঁড়ো বা পানীয় হিসাবে রূপান্তরিত হতে পারে এমন কোনও পণ্য আকারে যাই হোক না কেন যুক্ত চিনি বা অন্যান্য মিষ্টি যুক্ত যে কোন পণ্যগুলিতে ৫০ শতাংশ শুল্ক আদায় করা হবে।” “সিদ্ধান্তটি ক্রেভোক্তাদের স্বাস্থ্যকর খাদ্য পছন্দ করার জন্য চিনি উপাদান যুক্ত খাবার পরিষ্কারভাবে চিহ্নিত করা প্রয়োজন।যাতে তারা তাদের চাইলে চিনি যুক্ত খাবার এড়িয়ে যেতে

পারে। “বৈদ্যুতিন ধূমপানে ডিভাইসে ব্যবহৃত তরল নিকোটিন বা তামাক যুক্ত থাকুক বা নাই থাকুক ইলেকট্রনিক ধূমপান ডিভাইসগুলিতেও ১০০ ভাগ শুল্ক বা ট্যাক্স ধার্য করা হবে। সিদ্ধান্তটির লক্ষ্য হ’ল ক্ষতিকারক পণ্যগুলির ব্যবহার হ্রাস করা যা স্বাস্থ্যের ক্ষতি করে এবং পরিবেশ ঝুঁকিতে রয়েছে, ।

” সংযুক্ত আরব আমিরাত সরকার নির্দিষ্ট পণ্যগুলিতে শুল্ক প্রবর্তন শুরু করে, যা সাধারণত মানুষের স্বাস্থ্যের বা পরিবেশের জন্য ক্ষতিকারক,” মন্ত্রিসভার সাধারণ সম্পাদক সচিবের উপসংহারে বলা হয়েছে।