বিক্ষো’ভের আগু’নে জ্ব’লছে পুরো যুক্তরাষ্ট্রে,যেকোন মুহূর্তে ট্র্যাম্পের ক্ষ’মতা হস্তান্তর

বিক্ষো’ভের আ’গু'নে জ্ব’লছে আমেরিকা।সবাই ট্র্যাম্প বিরো’ধী বিক্ষো’ভে মেতেছে।যেকোন মুহূর্তে ট্র্যাম্পের ক্ষ’মতায় মোড় নিতে পারে।আসতে পারে নতুন মুখ। এখনও প্রজ’ন্ত ১৪০০ জন বিক্ষো’ভকারীকে গ্রে'’ফতার করেছে পু’লিশ। পু’লিশ হেফাজেতে এক কৃষ্ণা''ঙ্গ আমেরিকান জর্জ ফ্লয়েডের মৃ'’ত্যুর জে’র ধরে বিক্ষো’ভকারী এবং পু'লিশের মধ্যে সং'ঘ’র্ষ নিয়ন্ত্রণে আনতে যুক্তরাষ্ট্রের ১৭ টি শহরে কা’রফিউ জারি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্র জু’ড়ে ব্যাপক মাত্রায় বিক্ষো’ভ ছড়িয়ে পড়েছে। বিক্ষো’ভকারীদের উপর টিয়ার গ্যাস এবং রাবার বুলেট ছুড়েছে দা’''ঙ্গা পু’লিশ। কয়েকটি শহরে পু'লিশের যানে আ’গু'ন দেয়া হয়েছে। এই সং'ঘ’র্ষের জন্য প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তার ভাষায় “লু’টেরা এবং বি’শৃঙ্খলাকারীদের” দো’ষারোপ করেছেন। প্রেসের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী গেল বৃহস্পতিবার থেকে শুরু করে ১ হাজার ৩শ ৩৮ জন মানুষকে গ্রে'’ফতার করা হয়েছে।

তবে শনিবার রাতের বিক্ষো’ভের পর এ সংখ্যা আরও অনেকে বেড়েছে। অ’'গ্নিসংযোগ, ভা’ঙচুর, দোকান লু’টপাটসহ আ’ন্দোলনকারীদের স''ঙ্গে পু’লিশের দফায় দফায় সং'ঘ’র্ষ চলছে। এরই মধ্যে পু'লিশ স্টেশনে আ’গু'ন দেওয়া সহ ঘটেছে স’হিং'সতার ঘটনা।

মিনেসোটা, জর্জিয়া, নিউইয়র্ক, লস অ্যাঞ্জেলস, ওকল্যান্ড, ওয়াশিংটন ডিসি ও ক্যালিফোর্নিয়াসহ যুক্তরাষ্ট্রের ১৬টি অ''ঙ্গরাজ্যের ৩০ শহরে ছড়িয়ে পড়েছে বিক্ষোভ। এমন প’রিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ২৫টি শহরে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে। গত সোমবার এক শেতা''ঙ্গ পু'লিশ কর্মকর্তা নি'র্মমভাবে শ্বা’সরোধ করে হ’ত্যা করে জর্জ ফ্লায়েডকে। পরে সেই ভি’ডিও ছড়িয়ে পড়ে। এরই মধ্যে অ’ভিযুক্ত পু’লিশ অফিসারকে গ্রে'’ফতার করা হয়েছে।