সবাইকে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ কায়েম করার জন্য মুশফিকের অনুরোধ ।

সবাইকে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ কায়েম করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন জাতীয় দলের টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। নিজের জন্মদিনে ভক্ত ও সমর্থকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে এ আহ্বান জানান তিনি। নিজের অফিশিয়াল ফেসবুক পেজে লাইভে এসে মুশফিক বলেন, হ্যাঁলো আসসালামু আলাইকুম। আশা করি সবাই ভালো আছেন।

এই দিনে আপনাদের অনেক শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা পেয়েছি। সেজন্য আমি সবার প্রতি কৃতজ্ঞ। তবে শুধু এই দিনটা নয়, গোটা মাসটাই আমার জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। আমার সব ফ্রেন্ডসদের ধন্যবাদ, তারা আমার জীবনের গুরুত্বপূর্ণ অংশ। কেননা আমার জীবনের জার্নিটা সহজ ছিল না। কিন্তু তারা সবসময় সঙ্গ দিয়েছেন। এছাড়া আমার কোচ ও টিচারদের অসংখ্য ধন্যবাদ। আশা করি ভবিষ্যতেও আপনারা আমাদের পাশে থাকবেন।

এরপর সবাইকে নামাজ পড়ার অনুরোধ জানিয়ে মুশফিক বলেন, ‘এই দিনে আপনাদের প্রতি ছোট একটা রিকোয়েস্ট, আপনারা যে যেখানে যে অবস্থায় থাকুন না কেন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ কায়েম করার চেষ্টা করবেন। এটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আপনারা যদি আমাকে ভালোবেসে থাকেন তাহলে সহজ এই কাজটা করার চেষ্টা করবেন।

জাতীয় দলের জনপ্রিয় ক্রিকেটার মুশফিকুর রহিম ফেসবুকে তার ভেরিফায়েড পেজে মসজিদের একটি ছবি আপ করে স্ট্যাটাস দিয়েছেন ‘মসজিদের পাশেই পরম শান্তি’

মুশফিকুর রহিম নামাজ পড়তে গিয়ে মসিজদের ছবি তুলে নিজের ফেসবুক পেজে আপ করে লেখেন,যদি আপনি নামাজি হন আর আপনার হোটেলের পাশে যখন কোনো মসজিদ থাকে তবে এর চেয়ে আনন্দের বা শান্তির আর কিছুই নেই।’

পবিত্র কোরআনের ৩০তম পারার ৯৫ নম্বর সূরার প্রথম আয়াত وَالتِّينِ وَالزَّيْتُونِ ‘ওয়াত্তীনি ওয়াযাইতূনি। বর্ণিত সূরায় আল্লাহতায়ালা তীন গাছের নামে শপথ করেছেন। সূরার প্রথম শব্দ তীন অনুসারে এ সূরার নামকরণ করা হয়েছে- সূরা আত-তীন। তীনের বাংলা অর্থ আঞ্জীর বা ডুমুর।মধ্যপ্রাচ্য এবং পশ্চিম এশিয়ায় এ ফলের উৎপাদন বাণিজ্যিকভাবে করা হয়।

এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ অর্থকরী ফসল। আফগানিস্তান থেকে পর্তূগাল পর্যন্ত এই ফলের বাণিজ্যিক চাষ হয়ে থাকে। এর আদি নিবাস মধ্যপ্রাচ্যে। তবে শখের বসে খুলনার মাটিতে একটি তীন গাছ মিসর থেকে এনে লাগানো হয়। বর্তমানে খুলনার মাটিতে বেড়ে উঠছে পবিত্র কোরআনে বর্ণিত সেই তীন গাছ। ধরছে ফলও।

খুলনার বটিয়াঘাটা উপজে’লার জলমা’র দাওহাতুল খাইর কমপ্লেক্স পরিচালিত সোসাইটি অব সোস্যাল রিফর্ম স্কুলের আঙ্গিনায় ২০১১ সালে সোসাইটি অব সোস্যাল এন্ড টেকনোলজিক্যাল সার্পোট কুয়েতের প্রাক্তন মহাপরিচালক আবু মুহাম্ম’দ আসসাওয়াদফি আল ফিকাহ মিসর থেকে এই গাছটি আনেন। গাছটি রোপন করেন দাওহাতুল খাইর কমপ্লেক্স এর পরিচালক সুফি সালাই’মান মাসদ।

দাওহাতুল খাইর কমপ্লেক্স এর প্রশাসনিক কর্মক’র্তা সানোয়ার হুসাইন বলেন, খুলনার আবহাওয়ায় মধ্যপ্রাচ্যের এই গাছটি অন্যান্য গাছের মতোই বেড়ে উঠেছে। গাছটিতেও ফলও ধরেছে। গাছটির ফল আমি খেয়েছি। এটি অনেক সুস্বাদু। তার দাবী, এ গাছটি বাংলাদেশে এই একটিই আছে।

সোসাইটি অব সোস্যাল রিফর্ম স্কুলের প্রধান শিক্ষক মো. মাসুম বিল্লাহ বলেন, পবিত্র কোরআনে বর্ণিত সূরা তীন যে গাছের নামে সেই তীন গাছ এ স্কুলে থাকায় অনেকে এটি দেখতে আসেন। বিশেষ করে যখন ফল ধরে তখন শিক্ষার্থী ও অ’ভিভাবকদের আগ্রহ থাকে গাছটির প্রতি বেশি। এছাড়া অনেক দর্শনার্থী গাছটির খবর পেয়ে দেখতে আসেন।

জানা যায়, আঞ্জির হচ্ছে ডুমুর জাতীয় এক ধরনের ফল। এর গাছের বৈজ্ঞানিক নাম Ficus carica । ফাইকাস গণভুক্ত প্রায় ৮০০ প্রজাতির মধ্যে আঞ্জির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রজাতি। এই ফলের আকার কাকডুমুরের চেয়ে বড়; এটি একটি জনপ্রিয় মিষ্টি ও রসালো ফল।

হিন্দি, মা’রাঠি, ফার্সি ও উর্দু ভাষায় এই ফলকে আঞ্জির বলা হয় এবং আরবি ভাষায় এর নাম তীন। এ গাছ ৬ মিটার পর্যন্ত লম্বা হয়ে থাকে। পবিত্র কোরআনে এই ফলকে আল্লাহর বিশেষ নিয়ামত বা অনুগ্রহরূপে ব্যক্ত করা হয়েছে। বাইবেলেও এই ফলের কথা উল্লেখ রয়েছে।