কাবা শরীফের ভিতরে প্রবেশ করে কাশ্মীরিদের মুক্তির জন্য দোয়া করলেন ইমরান খান ।

গত ২৫ সেপ্টেম্বর পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান দুই দিনের সফরে সৌদি আরবে থাকাকালীন বাইতুল্লাহ শরিফে ওমরাহ হজ পালন করেন। ওমরাহ শেষে তিনি অবরুদ্ধ কাশ্মীরের নির্যাতিত মানুষের মুক্তির জন্য দোয়া করেন। সৌদি আরব ও পাকিস্তানের বেশকিছু গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বৃহস্পতিবার ইমরানের ওমরাহ পালন নিয়ে এমন খবর জানানো হয়েছে।

পাক প্রধানমন্ত্রী সৌদিতে দুদিনের রাষ্টীয় সফর শেষে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিতে যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশে রওনা দেন। প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, পবিত্র কাবা শরিফের দরজা প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ও তার সঙ্গে থাকা প্রতিনিধি দলের জন্য উন্মুক্ত করা হয়। ইমরান তার সঙ্গীদের নিয়ে ভেতরে প্রবেশ করেন। সেখানে তিনি কাশ্মীর ও গোটা বিশ্বের মুসলিম সমাজের জন্য দোয়া করেন।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ওমরাহ পালন ছাড়াও মক্কার পবিত্র মসজিদ আল মসজিদ আল হারামে জুমার নামাজ আদায় করেন। সেখানে মহানবী হজরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের রওজা জেয়ারত করেন।

ইমরানের খানের জন্য দোয়া চাইলেন দেশটির শীর্স্থানীয় আলেম ও পাক তাবলিগ জামাতের মুরুব্বি মাওলানা তারিক জামিল।গত ১ অক্টোবর (মঙ্গলবার) কানাডার ভ্যানকুভারে প্রবাসীদের আয়োজনে একটি সেমিনারে বক্তৃকালে তিনি বলেন, আল্লাহ আমাদের একজন ভালো নেতা উপহার দিয়েছেন।আপনারা ইমরান খানের জন্য দোয়া করুন। মাওলানা তারিক জামিল বলেন, তার সঙ্গে (ইমরান খান) আমার অনেক ভালো সম্পর্ক।

তার মতো সৎ-সত্যবাদী এবং অন্তরে দীনের দরদ রাখনেওয়ালা প্রধানমন্ত্রী আমি কোনদিন দেখিনি। প্রসঙ্গত, ভারত অধিকৃত কাশ্মীরে মানবিক সংকট ও সেখানকার নাগরিকদের অবরুদ্ধ জীবনযাপনের বিষয়টি জাতিসংঘে উপস্থাপন করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।তার বক্তব্য নিয়ে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন পাকিস্তানের শীর্স্থস্থানীয় ওরামায়ে কেরাম। ধর্মীয় মহলেও তিনি ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হচ্ছেন।

শুক্রবার জাতিসংঘের ৭৪তম সাধারণ অধিবেশনে দেয়া ভাষণে পাক প্রধানমন্ত্রী কা’শ্মীর ইস্যুটি বিশ্ব নেতাদের সামনে গুরুত্বের সঙ্গে তুলে ধরেন। প্রায় ৫০ মিনিটের দীর্ঘ ভাষণে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ফিলিস্তিন-ইসলায়েলে বৈ’রি সম্পর্ক, বিশ্বব্যাপী মুসলিম নি’র্যাতন ও ইসলাম ও মুসলিমদের বিরুদ্ধে চলমান প্রো’পাগান্ডা ও ইসলামফো’বিয়ার বি’রুদ্ধে সো’চ্চার আওয়াজ তুলেছেন। জাতিসংঘে ইমরান খানের ভাষণের পর ২৪ ঘন্টার মধ্যেই কা’শ্মীরের পরি’স্তিতি পাল্টে যায়। রাজপথে নেমে আসে মজলুম কা’শ্মিরীরা।

জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ‘আপত্তিজনক’ মন্তব্য করেছেন। এর পাশাপাশি তিনি তার বক্তব্যে ভারতকে পরমাণু যুদ্ধের হুমকিও দিয়েছেন। এমন অভিযোগ এনে ইমরান খানের বিরুদ্ধে ভারতের বিহার রাজ্যে মামলা দায়ের করা হয়েছে। ভারতের বিহারের মুজাফফরনগর আদালতে শনিবার (২৮ সেপ্টেম্বর) তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। আগামী ২১ অক্টোবর ওই মামলার শুনানি হবে। ভারতীয় আইনজীবী সুধীর কুমার ওঝা মুজফ্ফরপুরের মুখ্য বিচার বিভাগীয় আদালতে ইমরানের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১২৪(এ), ১২৫ ও ৫০৫ ধারা অনুযায়ী ওই মামলা দায়ের করেন। সূত্র: সময় টিভি।