আমি কোনদিন তার মতো সৎ-সত্যবাদী প্রধানমন্ত্রী দেখিনিঃ মাওলানা তারিক জামিল ।

ইমরানের খানের জন্য দোয়া চাইলেন দেশটির শীর্স্থানীয় আলেম ও পাক তাবলিগ জামাতের মুরুব্বি মাওলানা তারিক জামিল।গত ১ অক্টোবর (মঙ্গলবার) কানাডার ভ্যানকুভারে প্রবাসীদের আয়োজনে একটি সেমিনারে বক্তৃকালে তিনি বলেন, আল্লাহ আমাদের একজন ভালো নেতা উপহার দিয়েছেন।আপনারা ইমরান খানের জন্য দোয়া করুন। মাওলানা তারিক জামিল বলেন, তার সঙ্গে (ইমরান খান) আমার অনেক ভালো সম্পর্ক।

তার মতো সৎ-সত্যবাদী এবং অন্তরে দীনের দরদ রাখনেওয়ালা প্রধানমন্ত্রী আমি কোনদিন দেখিনি। প্রসঙ্গত, ভারত অধিকৃত কাশ্মীরে মানবিক সংকট ও সেখানকার নাগরিকদের অবরুদ্ধ জীবনযাপনের বিষয়টি জাতিসংঘে উপস্থাপন করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।তার বক্তব্য নিয়ে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন পাকিস্তানের শীর্স্থস্থানীয় ওরামায়ে কেরাম। ধর্মীয় মহলেও তিনি ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হচ্ছেন।

শুক্রবার জাতিসংঘের ৭৪তম সাধারণ অধিবেশনে দেয়া ভাষণে পাক প্রধানমন্ত্রী কা’শ্মীর ইস্যুটি বিশ্ব নেতাদের সামনে গুরুত্বের সঙ্গে তুলে ধরেন। প্রায় ৫০ মিনিটের দীর্ঘ ভাষণে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ফিলিস্তিন-ইসলায়েলে বৈ’রি সম্পর্ক, বিশ্বব্যাপী মুসলিম নি’র্যাতন ও ইসলাম ও মুসলিমদের বিরুদ্ধে চলমান প্রো’পাগান্ডা ও ইসলামফো’বিয়ার বি’রুদ্ধে সো’চ্চার আওয়াজ তুলেছেন। জাতিসংঘে ইমরান খানের ভাষণের পর ২৪ ঘন্টার মধ্যেই কা’শ্মীরের পরি’স্তিতি পাল্টে যায়। রাজপথে নেমে আসে মজলুম কা’শ্মিরীরা।

জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ‘আপত্তিজনক’ মন্তব্য করেছেন। এর পাশাপাশি তিনি তার বক্তব্যে ভারতকে পরমাণু যুদ্ধের হুমকিও দিয়েছেন। এমন অভিযোগ এনে ইমরান খানের বিরুদ্ধে ভারতের বিহার রাজ্যে মামলা দায়ের করা হয়েছে। ভারতের বিহারের মুজাফফরনগর আদালতে শনিবার (২৮ সেপ্টেম্বর) তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। আগামী ২১ অক্টোবর ওই মামলার শুনানি হবে।

ভারতীয় আইনজীবী সুধীর কুমার ওঝা মুজফ্ফরপুরের মুখ্য বিচার বিভাগীয় আদালতে ইমরানের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১২৪(এ), ১২৫ ও ৫০৫ ধারা অনুযায়ী ওই মামলা দায়ের করেন। সূত্র: সময় টিভি।

অন্যরা যা পড়ছে… গত সপ্তাহে নিয়ন্ত্রণ রেখায় ভারতীয় বাহিনীর হাতে দুই পাকিস্তানি সেনা নিহত হওয়ার পর ভারত সীমান্তে ব্যাপক গোলাবর্ষণ করেছে পাকিস্তান। শনিবার সীমান্তে এই গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। এতে বালাকোট সেক্টরে শ কয়েকটি স্কুলের শিক্ষার্থীরা আটকা পড়েছে।

ভারতীয় পত্রিকার ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস স্থানীয়দের বরাত দিয়ে জানিয়েছে, মানকোট ক্ষেত্রের কাছে বালনোই থেকে তারকুন্ডি পর্যন্ত আন্তর্জাতিক নিয়ন্ত্রণ রেখার ৫০ কিলোমিটার ধরে প্রায় ৫০-৬০ টি গ্রাম গোলাবর্ষণের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। শনিবার সকাল পৌনে ১০টা থেকে নিয়ন্ত্রণ রেখার কাছে গোলাবর্ষণ শুরু করে পাক সেনারা।

খবরে আরো বলা হয়, ভারতীয় বাহিনীর দাবি, পাকিস্তানি সেনাদের আকস্মিক মর্টার শেল নিক্ষেপের কারণে পুঞ্চ জেলায় প্রায় ৬টি স্কুলের শিক্ষার্থীরা স্কুলের ভেতরে আটকা পড়েছে। সানদিয়োটে সরকারি হাইস্কুলের এক শিক্ষক ঐ গণমাধ্যমকে জানান, আমরা শিক্ষার্থীদের একটি কক্ষে সরিয়ে নিয়েছি। তাদের একটি দেয়ালের পাশে লুকিয়ে থাকতে বলা হয়েছে। তিনি বলেন, ওই স্কুল ভবন থেকে ৫০ মিটার দূরত্বের মধ্যে কমপক্ষে ছয়বার গোলাবর্ষণ করা হয়েছে। পাকিস্তানি সেনাদের হামলার জবাবে ভারতীয় সেনারাও গুলি চালিয়েছে বলে জানানো হয়েছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত এখনও থেমে থেমে দুই বাহিনীর মধ্যে গোলাগুলি চলছে।