প্র’বাসীদের রে’মিট্যান্সে ২ শতাংশ নগদ দেয়া শু’রুঃ অ’র্থমন্ত্রী ।

প্রবাসী বাংলাদেশিদের বৈধ চ্যানেলে গত ১ জুলাই থেকে প্রেরিত রেমিট্যান্সের বিপরীতে ২ শতাংশ হারে নগদ সহায়তা দেয়া শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।বুধবার সচিবালয়ে সরকারি ক্রয়-সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা জানান। প্রসঙ্গত আগামী ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে রেমিট্যান্স দেয়ার ঘোষণা দেয়া হয়।

অর্থমন্ত্রী বলেন, রেমিট্যাকে বৈধ চ্যানেলে আনতে উৎসাহিত করার জন্য ২ শতাংশ নগদ সহায়তার দেয়ার জন্য ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে ঘোষণা দিয়েছিলাম। সিস্টেম ডেভেলাপ করার জন্য এটা বাস্তবায়নে আমাদের সময় লেগে গিয়েছে। তবে এই মুহূর্তে কেউ ব্যাংকে গেলে রেমিট্যান্স পাঠাতে পারবে এবং ২ শতাংশ হারে নগদ সহায়তাও পাবে।তিনি আরও বলেন, গত তিন মাসে অর্থাৎ ১ জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত যত রেমিট্যান্স বাংলাদেশে পাঠিয়েছে তাদের সে ক্লেমটা রয়েছে। তারাও ২ শতাংশ হারে নগদ সহায়তা পাবেন।

এ সিস্টেমটি পুরোপুরি চালু হতে হয়তো দু-একদিন সময় লাগতে পারে। তারপরও সারা বিশ্বে আমাদের রেমিট্যান্স আহরণে যেসব এজেন্সি কাজ করে এটি কার্যকরের জন্য তাদের আমরা বিষয়টি অবহিত করেছি। তারা যেন এটি বাস্তবায়নে কোনো কালক্ষেপণ না করে। অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘১ হাজার ৫০০ মার্কিন ডলার প্রতি ট্রান্সজেকশনে কোনো প্রশ্ন করা হবে না, কোনো কাগজ চাওয়া হবে না।

১ হাজার ৫০০ মার্কিন ডলার বেশি হলে কাগজপত্র দেখাতে হবে।তবে একজন যদি তিন তিনবার রেমিট্যান্স পাঠায় এবং সেটা যদি ১ হাজার ৫০০ মার্কিন ডলারের মধ্যে থাকে তাহলে কোনো প্রশ্ন করা হবে না, কোনো কাগজও দেয়া লাগবে না।’ তিনি বলেন, এ ঘোষণা দেয়ায় অনেক কাজে এসেছে। এর ফলে গত তিন মাসে প্রায় ১৫-১৬ শতাংশ রেমিট্যান্স প্রবৃদ্ধি হয়েছে। আগে প্রতিবছর ১৫ থেকে ১৬ বিলিয়ন রেমিট্যান্স আসত। এবার সেটি ১৮ থেকে ২০ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত হবে বলে আশা করছি।

গত তিন মাসে বাংলাদেশে পূর্বের যে কোনো তিন মাসের চেয়ে বেশি রেমিটেন্স এসেছে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। বুধবার ( ২ অক্টোবর) বিকেলে সচিবালয়ে সরকারি ক্রয়-সংক্রান্ত মন্ত্রীসভা কমিটির বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের মন্ত্রী এ তথ্য জানান।

আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, বৈধ চ্যানেলে রেমিটেন্স প্রেরণকে উৎসাহিত করার জন্য দুই শতাংশ নগদ প্রণোদনার ব্যবস্থা রাখায় প্রবাসীরা ইতোমধ্যে ইতিবাচক সাড়া দিয়েছেন। ফলে গত তিন মাসে সাড়ে চার বিলিয়ন মার্কিন ডলার রেমিটেন্স অর্জিত হয়েছে, যা পূর্বের তুলনায় প্রায় ১৬ শতাংশ বেশি। তিনি বলেন, আশা করছি এবার ১৮ থেকে ২০ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত হবে রেমিটেন্স।

মন্ত্রী আরো বলেন, দুই শতাংশ নগদ প্রণোদনা ঘোষণা দেওয়ার পর থেকেই সরকার এবং বাংলাদেশ ব্যাংকসহ সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষ দেশে রেমিটেন্স প্রেরণকে অগ্রাধিকার দিয়ে নিবিড়ভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

এখন থেকে ১৫০০ ডলার পর্যন্ত রেমিটেন্সের ক্ষেত্রে কোনো প্রশ্ন করা হবে না। এছাড়া প্রতি লেনদেনে ১৫০০ ডলারের মধ্যে থাকলে দিনে যতবার ইচ্ছা রেমিটেন্স প্রেরণ করা যাবে বলেও জানান অর্থমন্ত্রী।