Home - প্রবাসী - সৌদি প্রবাসীর ভুলে টাকা চলে গেলো অন্য বিকাশ নম্বরে,১৫ দিনেও ফেরত পেলেন না!

সৌদি প্রবাসীর ভুলে টাকা চলে গেলো অন্য বিকাশ নম্বরে,১৫ দিনেও ফেরত পেলেন না!

সৌদি আরবে ক’রো’না আ’ক্রা'’ন্ত স্বামীর পাঠানো টাকা পেলেন না স্ত্রী। এ ঘটনায় পটুয়াখালীর বাউফল থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হলেও কোনো সমাধান মিলছে না। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বাউফল পৌর শহরের ২নং ওয়ার্ডের মোশারেফ হোসেন প্রায় ২৫ বছর ধরে সৌদি আরবে অবস্থান করছেন। বাউফলের বাসায় তার স্ত্রী ফারহানা আক্তার ৩ সন্তান নিয়ে বসবাস করেন।

প্রতিমাসে সৌদি আরব থেকে তিনি টাকা পাঠানোর পর সংসারের খরচ মেটান। ক’রো’নার কারণে সৌদি আরবে বেশ কিছুদিন থেকে ব্যবসা-বাণিজ্য ব’ন্ধ। অনেকটা বেকার জীবনযাপন করছেন তিনি। এরই মধ্যে ক’রো’নায় আ’ক্রা'’ন্ত হন মোশারেফ। এ অবস্থায় গত ১৫ জুন সৌদি আরব থেকে বিকাশের মাধ্যমে স্ত্রীর কাছে ৩০ হাজার টাকা পাঠান তিনি। ভু’লে ওই টাকা অন্য বিকাশ নাম্বারে চলে যায়।

মোশারেফের স্ত্রী ফারহানা ওই নাম্বারে ফোন করে অনেক আকুতি-মিনতি করলেও অ’পরপ্রান্ত থেকে টাকা দেই দিচ্ছি বলে কাল'ক্ষেপণ করা হয়। একপর্যায়ে ফোনটির সুইচ ব’ন্ধ করে দেয়া হয়। উপায় না পেয়ে ফারহানা বাউফল থানা পু'লিশের দ্বারস্থ হন। পু'লিশের পরামর'্শে তিনি ২০ জুন একটি সাধারণ ডায়রি করেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত পু'লিশ ওই নাম্বার ব্যবহারকারীকে খুঁজে বের করতে পারেনি।

ফারহানা বলেন, আমা'র করো'না আ'ক্রা'ন্ত স্বামীর পাঠানো টাকা না পেয়ে সন্তানদের নিয়ে অনেক কষ্ট করছি। এ বি'ষয়ে জানার জন্য ম''ঙ্গলবার বাউফল থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমানকে ফোন করা হলে তিনি বলেন। মিটিংয়ে আছি পরে যোগাযোগ করুন।সৌদি আরবে ক’রো’না আ’ক্রা'’ন্ত স্বামীর পাঠানো টাকা পেলেন না স্ত্রী। এ ঘটনায় পটুয়াখালীর বাউফল থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হলেও কোনো সমাধান মিলছে না।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বাউফল পৌর শহরের ২নং ওয়ার্ডের মোশারেফ হোসেন প্রায় ২৫ বছর ধরে সৌদি আরবে অবস্থান করছেন। বাউফলের বাসায় তার স্ত্রী ফারহানা আক্তার ৩ সন্তান নিয়ে বসবাস করেন। প্রতিমাসে সৌদি আরব থেকে তিনি টাকা পাঠানোর পর সংসারের খরচ মেটান। ক’রো’নার কারণে সৌদি আরবে বেশ কিছুদিন থেকে ব্যবসা-বাণিজ্য বন্ধ। অনেকটা বেকার জীবনযাপন করছেন তিনি।

এরই মধ্যে ক’রো’নায় আ’ক্রা'’ন্ত হন মোশারেফ। এ অবস্থায় গত ১৫ জুন সৌদি আরব থেকে বিকাশের মাধ্যমে স্ত্রীর কাছে ৩০ হাজার টাকা পাঠান তিনি। ভুলে ওই টাকা অন্য বিকাশ নাম্বারে চলে যায়।

মোশারেফের স্ত্রী ফারহানা ওই নাম্বারে ফোন করে অনেক আকুতি-মিনতি করলেও অ’পরপ্রান্ত থেকে টাকা দেই দিচ্ছি বলে কাল'ক্ষেপণ করা হয়। একপর্যায়ে ফোনটির সুইচ ব’ন্ধ করে দেয়া হয়।

উপায় না পেয়ে ফারহানা বাউফল থানা পু'লিশের দ্বারস্থ হন। পু'লিশের পরামর'্শে তিনি ২০ জুন একটি সাধারণ ডায়রি করেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত পু'লিশ ওই নাম্বার ব্যবহারকারীকে খুঁজে বের করতে পারেনি।

ফারহানা বলেন, আমা'র করো'না আ'ক্রা'’ন্ত স্বামীর পাঠানো টাকা না পেয়ে সন্তানদের নিয়ে অনেক ক’ষ্ট করছি। এ বি'ষয়ে জানার জন্য ম''ঙ্গলবার বাউফল থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমানকে ফোন করা হলে তিনি বলেন, মিটিংয়ে আছি পরে যোগাযোগ করুন।