মেয়েকে ধর্ষণের সময় ধর্ষকের ধাক্কায় মায়ের মৃত্যু

ম''ঙ্গলবার রাতে হাওড়ার বাগনানের গোপালপুর গ্রামে মে’য়েকে ধ’র্ষনের সময় মা দেখে ফে’লায় মা’কে ধা’ক্কা মা’রে ধ’র্ষকরা। সিঁড়িতে পরে গিয়ে জ’খম হলে হা’সপাতা’লে নেওয়ার পর মা’রা যান মা। অ’ভিযু’ক্তদের এক জন বাগনান-২ পঞ্চায়েতের তৃণমূল স’দস্য রমা বেরার স্বা’মী কুশ বেরা। তিনি তৃণমূল ক’র্মীও। অন্য অ’ভিযু’ক্ত বাচ্চু মণ্ডল ত’রুণীর পড়শি। অ’ভিযু’ক্তদের গ্রে'’ফতারের দা’বিতে আমতা মোড়ে মুম্বাই রোড অ’বরোধ করে বিজেপি। বেলা আড়াইটে থেকে প্রায় এক ঘণ্টা অ’বরোধ চলে।

কিছুক্ষণের মধ্যেই বাগনানের বাইনান গ্রামের একটি বাড়ি থেকে মোবাইলের সূত্র ধরে পু’লিশ দুই অ’ভিযু’ক্তকে গ্রে'’ফতার করে। বিজেপি সাং’সদ সৌমিত্র খান এবং লকেট চট্টোপাধ্যায় এ দিন তরুণীর পরিবারের স''ঙ্গে কথা বলেন। এ বি’ষয়ে জে’লা (গ্রামীণ) তৃণমূল সভাপতি পুলক রায় বলেন, ‘‘দু’ষ্কৃতীদের কোনও রাজনৈতিক রং হয় না। পু’লিশকে বলা হয়েছে, যথাযথ ত’দন্ত করে অ’ভিযু’ক্তদের বি’রু'দ্ধে ক’ড়া ব্য’বস্থা নিতে।’’ ম’ন্ত্রী অরূপ রায় বলেন, ‘‘ত’রুণীর স''ঙ্গে অ’ভিযু’ক্ত যু’বকের স’ম্পর্ক ছিল।

ত’রুণীর মা ছাদে উঠে দেখে ফে’লায় তাঁকে ঠে’লে ফে’লে খু’ন করা হয়।’’ অ’ভিযু’ক্তদের ক’ড়া শা’স্তি চেয়েছেন অরূপবাবু। পু’লিশ ও স্থা’নীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, বিএ দ্বিতীয় বর্ষের ছা’ত্রী ওই ‘তরুণী। তাঁর মা সামনে আসতেই ধা’ক্কা দেওয়া হয়। টাল সামলাতে না পেরে ম’হিলা সিঁড়ি দিয়ে গড়িয়ে প’ড়ে যায়। তাঁকে প্রথমে গ্রামীণ হা’সপাতা’লে নিয়ে যাওয়া হয়।

সেখান থেকে উলুবেড়িয়া মহকুমা হা’সপাতা’লে। পু’লিশের কাছে লিখিত অ’ভিযোগে ওই ত’রুণী শুধুমাত্র কুশের নামই জানিয়েছেন। কুশ একটি রান্নার গ্যাস সংস্থায় ‘ডেলিভা’রি ম্যান’-এর কাজ করে। তাঁর স’ন্দে'হ, সেই দ্বিতীয় জনকে স''ঙ্গে আনে। কুশের বি’রু'দ্ধে এলাকায় মাতব্বরির অ’ভিযোগ এনেছেন অনেকে।