কোরআনের আয়াত পড়ে শুনালেন পুতিন ।

তুরস্ক ও ইরানের প্রেসিডেন্টকে আরব বিশ্বের মধ্যে শান্তি বজায় রাখতে কোরআনের আয়াত অনুসরণ করার আহবান জানালেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। গত সপ্তাহে তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারায় তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইপে এরদোয়ান ও ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানিসহ তিন দেশের কূটনীতিকদের নিয়ে অনুষ্ঠিত শীর্ষ বৈঠকে তিনি এ আহবান জানান।

রুশ প্রেসিডেন্ট তাঁর বক্তৃতায় ইয়েমেন যুদ্ধের ব্যাপারে আরব নেতাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, আরব উপদ্বীপের শান্তি, নিরাপত্তা ও স্থিতি ফিরিয়ে আনতে ইয়েমেন যুদ্ধের অবসান প্রয়োজন। এ সময় তিনি সুরা আল ইমরানের ১০৩ নম্বর আয়াতের কিছু অংশ উদ্ধৃত করেন। যার অর্থ, ‘তোমাদের প্রতি আল্লাহর অনুগ্রহ স্মরণ করো, যখন তোমরা ছিলে পরস্পরের শত্রু। অতঃপর তিনি তোমাদের অন্তরে সদ্ভাব সৃষ্টি করলেন, ফলে তাঁর অনুগ্রহে তোমরা পরস্পর ভাই হয়ে গেলে’।

অর্থাৎ, এ কথা স্পষ্ট যে তিনি আরব দেশগুলোকে নিজেদের মধ্যে সংঘাত এড়িয়ে চলার পরামর্শ দিয়েছেন। তাদেরকে এক হয়ে চলার আহবান জানিয়েছন। আরো পড়ুন… উত্তর ইউরোপের দেশ নরওয়েতে দেশটির নাগরিকদের মাঝে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ইসলাম গ্রহণের হার বৃদ্ধি পেয়েছে বলে দেশটির প্রভাবশালী দৈনিক ভারডেনস গ্যাঙ্গে (Verdens Gang) এক প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

অসলো বিশ্ববিদ্যালয়ের কালচারাল স্টাডিজ অ্যান্ড অরিয়েন্টাল ল্যাঙ্গুয়েজ বিভাগের একজন গবেষকের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে প্রতিবছর প্রায় তিন হাজার করে নরওয়েজিয় নাগরিক ইসলাম গ্রহণ করছে। যা ১৯৯০ সালের দিকে বছরে পাঁচশত জনের হার থেকে কয়েকগুণ বেশি।

এছাড়া পূর্বে নরওয়েজিয় নারীদের মাঝে মুসলিম পুরুষদের বিবাহ করার জন্য ইসলাম গ্রহণের একটি প্রবণতা থাকলেও বর্তমানে সেই চিত্র সম্পূর্ণ পাল্টে গেছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘বর্তমানে নারীরা ইসলাম সম্পর্কে পরিপূর্ণ অধ্যয়ন ও গবেষণার পর ইসলাম গ্রহণ করছে।’

ইসলাম গ্রহণকারী নরওয়েজিয় নারী মনিকা সালমুক জানান, চার বছর পূর্বে বিভিন্ন ধর্ম সম্পর্কে গবেষণা ও বিভিন্ন গ্রন্থ অধ্যয়নের পর তিনি ইসলামকে নিজের জন্য গ্রহণ করে নিয়েছেন। ৪২ বছর বয়সী নরওয়েজিয় নারী সোলভা নাবিলা স্যাক্সেলিন জানান, নরওয়েতে আশ্রয় নেওয়া মুসলিম শরণার্থীদের সাহায্য করতে গিয়ে তাদের কাছ থেকে তিনি ইসলাম গ্রহণ করার অনুপ্রেরণা পেয়েছেন।

১৯৬০ এর দশকে প্রথম নরওয়েতে মুসলমানদের অবস্থান দৃশ্যমান হতে থাকে। ১৯৭৪ সালে রাজধানী অসলোতে প্রথম মসজিদ স্থাপিত হয়। বর্তমানে নরওয়েতে মুসলমানরা দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় জনগোষ্ঠী। ২০১১ সালের হিসাব অনুযায়ী দেশটিতে মোট জনসংখ্যার ২.৩ শতাংশ মুসলমান।