বিদেশফেরত জামাই ঠাঁই পেলেন না শ্বশুরবাড়িতেও

১৫ মার্চ জাপান থেকে এসে এক ব্যক্তি টাঙ্গাইল শহরের ভাড়া বাসায় উঠতে যান, কিন্তু বাসার মালিক ও অন্য ভাড়াটেরা রাজি না হওয়ায় তিনি স্ত্রী ও দুই সন্তান নিয়ে গ্রামের বাড়ি বাসাইল উপজেলায় চলে আসেন। সেখানেও গ্রামবাসী তাঁদের তাড়িয়ে দেন। পরে আজ সোমবার সকালে সখীপুর পৌর শহরে তিনি শ্বশুরবাড়িতে চলে আসেন। শ্বশুরবাড়ির আশপাশের বাড়ির লোকজন বিষয়টি টের পেয়ে পুলিশে খবর দেন।

পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে দেখে, ওই জামাই শ্বশুরবাড়ির বাইরের একটি বাজারে ঘোরাঘুরি করছেন। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত দুপুরে তাঁকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। পরে আদালত শ্বশুরবাড়িতে সবাইকে হোম কোয়ারেন্টিনে রাখার প্রস্তাব দিলে শ্বশুরবাড়ির লোকজন ও প্রতিবেশীরা রাজি হননি। উপায় না দেখে ওই জামাইসহ চারজনকে টাঙ্গাইল শহরের বাসায় হোম কোয়ারেন্টিনে

থাকার শর্তে পুলিশের সহযোগিতায় পাঠিয়ে দেওয়া হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আসমাউল হুসনা লিজা। ইউএনও জানান, নিজ বাড়ি বাসাইলে তাঁর স্থান না হওয়ায়, এমনকি শ্বশুরবাড়ির লোকজনও রাজি না হওয়ায় তাঁদের টাঙ্গাইলের ভাড়া বাসায় পাঠিয়ে দেওয়া হয়। ওই বাসায় হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করতে টাঙ্গাইল সদর উপজেলা প্রশাসনকে জানানো হয়।