স্কুল বন্ধের ঘটনা ঘটেনি, আ’তঙ্কিত না হয়ে সতর্ক থাকতে বললেন শিক্ষামন্ত্রী

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস নিয়ে আতঙ্কিত না হওয়ার আহ্বান জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বলেছেন, এখনও স্কুল বন্ধ করার ঘটনা ঘটেনি, আমাদের সতর্ক হতে হবে। কেউ আতঙ্কিত হবেন না। পরিস্থিতি মোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে। রোববার (১৫ মার্চ) বিকেলে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্কুল হকি টুর্নামেন্টের ফাইনালে পুরস্কার বিতরণী শেষে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কখা বলেন।

দীপু মনি বলেন, স্থানীয়ভাবে করোনার কোনো সংক্রমণ নেই। বিদেশ থেকে আসা ঠেকাতে সর্বাত্মক চেষ্টা করছি আমরা। বাংলাদেশে করোনাভাইরাস আরো ১০ থেকে ১৫ গুণ ভয়ঙ্কর হবে: মার্কিন চিকিৎসাবিজ্ঞানী>>> করোনা ভাইরাসে আ’ক্রান্ত হয়ে দিনদিন মৃ’তের সংখ্যা বেড়েই চলছে। এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসে মৃ’ত্যু হয়েছে ৩ হাজার ২৮৫ জনের। বিভিন্ন দেশে দেড় লক্ষ মানুষ এ ভাইরাসে আ’ক্রান্ত হয়েছে।

এছাড়া চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ৫৩ হাজার ৬৮৮ জন। ইতোমধ্যে বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আ’ক্রান্ত তিনজন রোগী শ*নাক্ত হয়েছে। এমতাবস্তায়, মা’র্কিন সংক্রমক রোগ বিশেষজ্ঞ মাইকেল অস্টারহোম বলেন,‘এটা তো কেবল শুরু। আ’ঘাত, ব্যাথা, দুর্ভোগ, সংক্রমণ ও মৃ’তের সংখ্যার কথা বিবেচনা করলে বোঝা যায় যে, এটা কেবল আসলেই শুরু। এই অবস্থা সামনের মাসগুলোতেও অব্যাহত থাকবে।

আর মানুষও আক্রান্ত হতেই থাকবে।’ তিনি আশ’ঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, সবচেয়ে মা’রাত্মক সিজনাল ফ্লু’র তুলনায় করোনাভাইরাস আরো ১০ থেকে ১৫ গুণ বেশি ভয়ঙ্কর হতে পারে। করোনাভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সরকার যেভাবে মানুষ সুরক্ষিত থাকার পরাম’র্শ দিচ্ছে, তাতে মনে হচ্ছে না যে- এসব পরাম’র্শ মেনে চললে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়া থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে।

করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে মাস্ক ও হাত মোজা ব্যবহারের বিষয়টিকে ‘বোকামি’ (ননসেন্স) বলেও মত দেন তিনি। করোনা মোকাবিলায় নিজের হোটেলগুলোকে হাসপাতাল বানাচ্ছেন রোনালদো>>> নিজের দুইটি বিলাসবহুল হোটেলকে তিনি ছেড়ে দিচ্ছেন হাসপাতাল হিসেবে ব্যবহার করার জন্য…… ম’হামারি করোনাভাইরাস মোকাবিলায় অনন্য নজির স্থাপন করতে চলেছেন বিশ্ব ফুটবলের অন্যতম সেরা তারকা,

পর্তুগালের সুপারস্টার ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। নিজের দুটি বিলাসবহুল হোটেলকে তিনি ছেড়ে দিচ্ছেন হাসপাতাল হিসেবে ব্যবহারের জন্য। স্পেনের শীর্ষস্থানীয় দৈনিক মার্কার এর প্রতিবেদন অনুযায়ী, আগামীকাল সোমবার থেকেই পর্তুগালে রোনালদোর দুটি হোটেল ব্যবহৃত হবে হাসপাতাল হিসেবে। যাতে পর্তুগালে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মানুষরা সেখান থেকে বিনামূল্যে সেবা নিতে পারেন।

খবরে জানানো হয়েছে, আগামী সপ্তাহ (ইউরোপিয়ান সপ্তাহ শুরু হয় সোমবার থেকে) থেকেই লিসবন এবং মাদেইরাতে রোনালদোর যে দুটি পেস্তানা হোটেল রয়েছে, সেগুলোকে অস্থায়ী হাসপাতালে পরিণত করা হবে। যেখানে রোগীদের বিনামূল্যে সেবা প্রদান করা হবে। এ হাসপাতালের যাবতীয় খরচ বহন করবেন রোনালদো। অর্থাৎ হাসপাতালে রোগীদের পেছনে ব্যয় হওয়া অর্থ ছাড়াও এখানে যারা কাজ করবেন

তাদের পারিশ্রমিক এবং অন্যান্য সুবিধাদির বিষয়ও রোনালদোই দেখবেন। বর্তমানে ইতালিয়ান ক্লাব জুভেন্টাসে খেলেন রোনালদো। কিন্তু দেশটিতে করোনাভাইরাস অতিমাত্রায় ছড়িয়ে পড়ায় স্থগিত করা হয়েছে ঘরোয়া ফুটবলের লিগ সিরি আ। রোনালদোর সতীর্থ ড্যানিয়েল রুগানি আক্রান্ত হয়েছেন করোনায়। ফলে নিজ জন্মস্থান মাদেইরাতে হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন তিনি। নিজে পরিবার-পরিজন নিয়ে নিরাপদে আছেন ঠিকই কিন্তু তার দেশের মানুষ ঠিক আছে তো?-

এ চিন্তা থেকেই দুই হোটেলকে হাসপাতাল বানানোর পরিকল্পনা নিয়েছেন রোনালদো। লিসবন এবং মাদেইরার এ হোটেল দুটি পর্তুগালের অন্যতম খরুচে ও বিলাসবহুল দুই হোটেল। এর আগে শনিবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে করোনার ব্যাপারে সতর্কতামূলক বার্তা দিয়েছিলেন রোনালদো। ইন্সটাগ্রামে তিনি লিখেছিলেন, ‘বিশ্ব এখন কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। এ সময়ে আমাদের সকলের মনোযোগী

এবং যত্নবান হওয়া প্রয়োজন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং প্রশাসনের নির্দেশনা মেনে আমাদের পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া উচিৎ।’