আসছে বড় ঘূ’র্ণিঝড়!

আসছে বড় ঘূ’র্ণিঝড় – আগামী দুই মাসে বড় দুটি ঘূ’র্ণিঝড়ের পূ’র্বাভাস দি’য়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। সেইসঙ্গে তীব্র তা’পপ্রবাহও বয়ে যেতে পারে বলে জা’নানো হ’য়েছে। আবহাওয়া অধিদফতরের দী’র্ঘমেয়াদি পূ’র্বাভাস থেকে জা’না যায়, মার্চ মাসে সা’মগ্রিকভাবে স্বা’ভাবিক বৃ’ষ্টিপাতের স’ম্ভাবনা আছে। এ মাসে দিনের তাপমা’ত্রা স্বা’ভাবিক (৩৪-৩৬ ডিগ্রি) অপে’ক্ষা সামান্য কম থাকার স’ম্ভাবনা আছে।

তবে মাসের শেষের দিকে দেশের পশ্চিম ও উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের ওপর দিয়ে একটি মৃ’দু অথবা মাঝারি ধরনের তাপ প্রবাহ বয়ে যেতে পারে। যার মাত্রা মৃ’দুর ক্ষে’ত্রে ৩৬ থেকে ৩৮ ডিগ্রি আর মাঝারির ক্ষে’ত্রে ৩৮ থেকে ৪০ ডিগ্রি। মার্চ মাসের শেষ সপ্তাহে দেশের উত্তর-পূ’র্বাঞ্চলে ভারী বৃ’ষ্টিপাতের কারণে আ’কস্মিক ব’ন্যার স’ম্ভাবনা র’য়েছে বলেও আবহাওয়ার পূ’র্বাভাসে বলা হয়েছে।

এপ্রিল মাসের দীর্ঘমেয়াদি পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, স্বা’ভাবিক/স্বা’ভাবিকের চেয়ে কিছুটা বেশি বৃ’ষ্টিপাতের স’ম্ভাবনা র’য়েছে এ মাসে বঙ্গোপসাগরে এক থেকে দু’টি নি’ম্নচাপ হতে পারে। এর মধ্যে একটি ঘূ’র্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে। এছা’ড়া দেশের উত্তর থেকে ম’ধ্যাঞ্চল পর্যন্ত ব’জ্রসহ মাঝারি অথবা তী’ব্র কা’লবৈশাখী ঝড় হতে পারে। এ মাসে দেশের উত্তর ও উত্তর-প’শ্চিমাঞ্চলে ৪০ ডিগ্রির বেশি একটি তীব্র তা’পপ্রবাহ

এবং অন্যত্র ১ থেকে ২টি মৃদু অথবা মাঝারি তা’পপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। এদিকে মে মাসের দী’র্ঘমেয়াদি পূ’র্বাভাসে বলা হয়েছে, এ মাসে দেশে স্বা’ভাবিক বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে। বঙ্গোপসাগরে নি’ম্নচাপ সৃষ্টি হতে পারে এবং এর মধ্যে একটি ঘূ’র্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে। দেশের উত্তর, উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও ম’ধ্যাঞ্চলে ব’জ্রসহ সারাদেশে কা’লবৈশাখী ঝড় হতে পারে।

এ মাসে উত্তর ও উত্তর-প’শ্চিমাঞ্চলে ১ থেকে ২টি তীব্র তা’পপ্রবাহ এবং অন্যত্র তা’পপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। ভারতে ৩৩ কোটি দেবতা আছে করোনা কিছুই করতে পারবে না: বিজেপি নেতা>>> করোনা ভাইরাসে আ’ক্রান্ত হয়ে দিনদিন মৃ’তের সংখ্যা বেড়েই চলছে। এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসে মৃ’ত্যু হয়েছে ৩ হাজার ২৮৫ জনের। বিভিন্ন দেশে দেড় লক্ষ মানুষ এ ভাইরাসে আ’ক্রান্ত হয়েছে।

এছাড়া চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ৫৩ হাজার ৬৮৮ জন। ইতোমধ্যে বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আ’ক্রান্ত তিনজন রোগী শনাক্ত হয়েছে। এদিকে, এই ভাইরাসে ভারতে ইতিমধ্যে ১ জনের মৃ’ত্যুর খবর পাওয়া গেছে। তবে বিজেপি নেতা বলছেন ভারতে ৩৩ কোটি দেবতা আছে করোনা কিছুই করতে পারবে না। কিছুদিন আগে পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছিলেন, ‘মায়ের প্রসাদ খেলে করোনা হবে না।

মায়ের আশীর্বাদ আমাদের মাথায় রয়েছে বলেই আমরা সুরক্ষিত।‘ দিলীপের তত্ত্ব ঘিরে শোরগোল পড়ে যায় চিকিৎসক মহলে।একুশ শতাব্দীতে দাঁড়িয়ে বিজেপি নেতার এমন কথায় অসন্তুষ্ট হয়েছিলেন অনেকে। এবার সেই পথে হেঁটে বিজেপির নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয় বললেন, ‘ভারত ৩৩ কোটি দেব-দেবীর দেশ, করোনা কারো কিছু করতে পারবে না ।কিন্তু এদিকে করোনা থেকে বাঁচতে অতিরিক্ত গোমূত্র পানে অ’সুস্থ বাবা রামদেব!

ভারতের প্রখ্যাত যোগগুরু বাবা রামদেব করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে বাঁ’চতে অতিরিক্ত গোমূত্র পান করায় অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের বিভিন্ন পোস্টে দাবি করা হচ্ছে। এই দাবির স্বপক্ষে রামদেবের পুরনো কিছু ছবি শেয়ার করছেন অনেকেই। তবে ভারতের ইংরেজি দৈনিক টাইমস অব ইন্ডিয়া বাবা রামদেবের অসুস্থ হওয়ার এই খবরের সত্যতা যাচাইয়ে দীর্ঘ অনুসন্ধান চালিয়েছে।

টাইমস অব ইন্ডিয়া বলছে, ভাইরাল হওয়া ছবিটি আসলে ২০১১ সালের। কালো টাকার বিরুদ্ধে টানা অনশন করা রামদেব যেদিন তা প্রত্যাহার করেন, সেদিন হাসপাতালে ওই ছবি নেয়া হয়েছিল। একটানা অনশনে থাকার ফলে দুর্বল হয়ে পড়েছিলেন তিনি। সুতরাং করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে রামদেবের গোমূত্র খাওয়ার দাবিটি সত্য নয়। বর্তমানে বিশ্বে ম’হামারি আকারে ছড়িয়ে পড়েছে প্রা’ণঘাতী করোনাভাইরাস।

এই মারণ-ভাইরাসের লাগামহীন বিস্তার ঠেকাতে এবং প্রতিষেধক তৈরির জন্য রাত-দিন একাকার করে ফেলছেন বিজ্ঞানীরা। তবে সম্প্রতি হিন্দু ভারতের কট্টর হিন্দুত্ববাদী রাজৈনিতক দল হিন্দু মহাসভা করোনা ঠেকাতে গোমূত্র একমাত্র মহৌষধি বলে দাবি করেছে। রামদেবের অসুস্থ হওয়ার খবরের সঙ্গে একটি ছবিও পোস্ট করছেন অনেকে। যেখানে দেখা যায়, হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন রামদেব।

ছবি দেখে প্রাথমিকভাবে যোগগুরু অসুস্থ বলেই মনে হচ্ছে। তাকে ঘিরে রয়েছেন অনুগামীরাও। ইংরেজিতে Baba Ramdev Weak Hospital লিখে গুগল-সার্চ করলে দেশটির গণমাধ্যমে প্রকাশিত আসল ছবিটির সন্ধান মেলে। ওই খবর অনুযায়ী, দেরাদুনে অনশন ভাঙার পর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল রামদেবকে। ২০১১ সালের ১২ জুন ওই ছবিটি তোলা হয়। এছাড়াও বাবা রামদেবের মুখপাত্র তিজারওয়ালা এসকের গত ৫ মার্চের একটি টুইট সাম্প্রতিক জল্পনায় জল ঢেলেছে।

তিনি লিখেছেন, এসবই ভুয়া খবর। লজ্জারও বিষয়। সম্মাননীয় রামদেব সম্পূর্ণ সুস্থ রয়েছেন। বিভিন্ন খবরের চ্যানেলকেও সাক্ষাৎকার দিয়েছেন তিনি। গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর চীনের হুবেই প্রদেশের উহানে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস ধরা পড়ে। তখন থেকে বিশ্বের শতাধিক দেশে এই ভাইরাস সংক্রমণ ঘটিয়েছে এক লাখ ৪৫ হাজার ৬৯৮ জন এবং ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৫ হাজার ৪৩৬ জন।