ভারতে ৩৩ কোটি দেবতা আছে করোনা কিছুই করতে পারবে না: বিজেপি নেতা

করোনা ভাইরাসে আ’ক্রান্ত হয়ে দিনদিন মৃ’তের সংখ্যা বেড়েই চলছে। এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসে মৃ’ত্যু হয়েছে ৩ হাজার ২৮৫ জনের। বিভিন্ন দেশে দেড় লক্ষ মানুষ এ ভাইরাসে আ’ক্রান্ত হয়েছে। এছাড়া চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ৫৩ হাজার ৬৮৮ জন। ইতোমধ্যে বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আ’ক্রান্ত তিনজন রোগী শনাক্ত হয়েছে। এদিকে, এই ভাইরাসে ভারতে ইতিমধ্যে ১ জনের মৃ’ত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

তবে বিজেপি নেতা বলছেন ভারতে ৩৩ কোটি দেবতা আছে করোনা কিছুই করতে পারবে না। কিছুদিন আগে পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছিলেন, ‘মায়ের প্রসাদ খেলে করোনা হবে না। মায়ের আশীর্বাদ আমাদের মাথায় রয়েছে বলেই আমরা সুরক্ষিত।‘ দিলীপের তত্ত্ব ঘিরে শোরগোল পড়ে যায় চিকিৎসক মহলে।একুশ শতাব্দীতে দাঁড়িয়ে বিজেপি নেতার এমন কথায় অসন্তুষ্ট হয়েছিলেন অনেকে।

এবার সেই পথে হেঁটে বিজেপির নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয় বললেন, ‘ভারত ৩৩ কোটি দেব-দেবীর দেশ, করোনা কারো কিছু করতে পারবে না ।করোনা থেকে বাঁচতে অতিরিক্ত গোমূত্র পানে অ’সুস্থ বাবা রামদেব! ভারতের প্রখ্যাত যোগগুরু বাবা রামদেব করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে বাঁ’চতে অতিরিক্ত গোমূত্র পান করায় অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের বিভিন্ন পোস্টে দাবি করা হচ্ছে।

এই দাবির স্বপক্ষে রামদেবের পুরনো কিছু ছবি শেয়ার করছেন অনেকেই। তবে ভারতের ইংরেজি দৈনিক টাইমস অব ইন্ডিয়া বাবা রামদেবের অসুস্থ হওয়ার এই খবরের সত্যতা যাচাইয়ে দীর্ঘ অনুসন্ধান চালিয়েছে। টাইমস অব ইন্ডিয়া বলছে, ভাইরাল হওয়া ছবিটি আসলে ২০১১ সালের। কালো টাকার বিরুদ্ধে টানা অনশন করা রামদেব যেদিন তা প্রত্যাহার করেন, সেদিন হাসপাতালে ওই ছবি নেয়া হয়েছিল।

একটানা অনশনে থাকার ফলে দুর্বল হয়ে পড়েছিলেন তিনি। সুতরাং করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে রামদেবের গোমূত্র খাওয়ার দাবিটি সত্য নয়। বর্তমানে বিশ্বে ম’হামারি আকারে ছড়িয়ে পড়েছে প্রা’ণঘাতী করোনাভাইরাস। এই মারণ-ভাইরাসের লাগামহীন বিস্তার ঠেকাতে এবং প্রতিষেধক তৈরির জন্য রাত-দিন একাকার করে ফেলছেন বিজ্ঞানীরা। তবে সম্প্রতি হিন্দু ভারতের কট্টর হিন্দুত্ববাদী রাজৈনিতক দল হিন্দু মহাসভা করোনা ঠেকাতে গোমূত্র একমাত্র মহৌষধি বলে দাবি করেছে।

রামদেবের অসুস্থ হওয়ার খবরের সঙ্গে একটি ছবিও পোস্ট করছেন অনেকে। যেখানে দেখা যায়, হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন রামদেব। ছবি দেখে প্রাথমিকভাবে যোগগুরু অসুস্থ বলেই মনে হচ্ছে। তাকে ঘিরে রয়েছেন অনুগামীরাও। ইংরেজিতে Baba Ramdev Weak Hospital লিখে গুগল-সার্চ করলে দেশটির গণমাধ্যমে প্রকাশিত আসল ছবিটির সন্ধান মেলে। ওই খবর অনুযায়ী, দেরাদুনে অনশন ভাঙার পর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল রামদেবকে।

২০১১ সালের ১২ জুন ওই ছবিটি তোলা হয়। এছাড়াও বাবা রামদেবের মুখপাত্র তিজারওয়ালা এসকের গত ৫ মার্চের একটি টুইট সাম্প্রতিক জল্পনায় জল ঢেলেছে। তিনি লিখেছেন, এসবই ভুয়া খবর। লজ্জারও বিষয়। সম্মাননীয় রামদেব সম্পূর্ণ সুস্থ রয়েছেন। বিভিন্ন খবরের চ্যানেলকেও সাক্ষাৎকার দিয়েছেন তিনি। গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর চীনের হুবেই প্রদেশের উহানে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস ধরা পড়ে।

তখন থেকে বিশ্বের শতাধিক দেশে এই ভাইরাস সংক্রমণ ঘটিয়েছে এক লাখ ৪৫ হাজার ৬৯৮ জন এবং ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৫ হাজার ৪৩৬ জন। করোনাভাইরাসের আ’তঙ্কে পোল্ট্রি মুরগির কেজি ১০ টাকা>>> করোনার আ’তঙ্কের জেরে ভারতজুড়ে তলানিতে গিয়ে পড়েছে পোলট্রির ব্যবসা। সোশ্যাল মিডিয়ায় গুজবের জেরে বর্তমানে মুরগির মাংস ও ডিম খাওয়ার ব্যাপারেও অনীহা প্রকাশ করেছেন সাধারণ জনতা।

ফলে করোনার প্রকোপ ও সোশ্যাল মিডিয়ায় গুজবের জেরে ব্যবসা বাঁচাতে মাত্র ১০ টাকা কেজিতেই মুরগি বিক্রি হচ্ছে পুনেতে। মহারাষ্ট্রের এক চাষী জানান, করোনার জেরে এখন একশো শতাংশ লোকসানে চলছে পোলট্রির ব্যবসা। সোশ্যাল মিডিয়ায় গু’জবে কান দিয়ে মুরগি কিনতে আগ্রহী নন কেউই। কয়েক সপ্তাহ আগে যদিও ৮০ থেকে ৯০ টাকার মধ্যে এক কেজি মুরগির মাংস বিক্রি হয়েছে।

সেই টাকাই এখন দাঁড়িয়েছে ১০টাকায়। পুনের এক পোলট্রি ফার্মের মালিক প্রমোদ হিঙ্গে জানিয়েছেন, ‘কয়েক সপ্তাহ আগে আমার প্রায় ১০ কোটি টাকার লোকসান হয়েছে। বাজারে একদম মুরগির চাহিদা নেই। ফলে প্রান্তিক গ্রামে গাড়ি করে খুব কম দামে মুরগি বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছি।’ অন্যদিকে, পশুপাল বিভাগ ও ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের তরফে জানানো হয়েছে যে,

করোনার সঙ্গে মুরগির কোনো সম্পর্ক নেই। বার্ড ফ্লু নিয়ে আগে থেকেই মানুষের মনে ভী’তি রয়েছে। সেই থেকেই তারা ভাবছেন করোনাভাইরাসও মুরগি থেকে ছড়ায়। সরকারি কর্মী ও চাষীরা মানুষজনকে কিছুটা হলেও বোঝাতে পেরেছেন। তাতে অবস্থার কিছুটা উন্নতি হয়েছে বলে ধারণা করছেন সরকারি দফতর। অ্যাসোশিয়েসনের প্রেসিডেন্ট বসন্ত কুমার শেট্টি জানিয়েছেন, গোটা মহারাষ্ট্রের পোলট্রি চাষীরা কয়েক সপ্তাহ আগে মোট ৭০০ কোটি টাকার ক্ষ’তির সম্মুখীন হয়েছে। তার কথায়, মুরগির মাংস খাদ্যবস্তু। বহুদিন ধরে এটিকে স্টক করে রাখা যায় না।

যাই দাম হোক না কেন, মুরগি বিক্রি করতে হবে। এক সপ্তাহ আগে এক কেজি মুরগির মাংস বিক্রি হয়েছে মাত্র ৭০টাকায়। সেই দাম বর্তমানে ১০ থেকে ২০ টাকায় নেমে গিয়েছে। মহারাষ্ট্রে পোলট্রি ব্যবসায় এমন করুণ পরিস্থিতিতে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন মহারাষ্ট্রের পোলট্রি ব্রিডারস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন। তাদের কথায়, ‘এই ক্ষতির জন্য সরকার আমাদের জন্য কিছুটা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন।

আমরা জানি না কীভাবে ব্যাংকের লোন, বিদ্যুতের বিল ও মাসিক খরচ চালাব। কেন্দ্রের কাছেও ক্ষতিপূরণ চেয়ে অনুরোধ করা হবে।