করোনা প্র’তিরোধের উপায় জানালেন কাবা শরীফের ইমাম

চীন থেকে উৎপত্তি হওয়া করোনাভাইরাস এখন বিশ্বব্যাপী মহা’মারি আকার ধারণ করেছে। ফলে আ’তঙ্কিত হয়ে পড়েছেন প্রায় সবাই। করোনা প্রতি’রোধে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সাময়িকভাবে ব’ন্ধ করে দেয়া হয়েছে মসজিদ, মাদ্রাসা, মন্দির, গির্জা, স্কুল ও দর্শণীয় স্থান। স্থ’গিত করা হয়েছে মুসলমানদের মর্যাদাপূর্ণ ইবাদত ওমরাহও। করোনা আ’তঙ্কে মানুষের জন্য প্রতিক্রি’য়া, করণীয় ও আহ্বান ব্যক্ত করেছেন কাবা শরিফের
প্রধান ইমাম শায়খ সুদাইসি।

গত রোববার (৮ মার্চ) এশার নামাজের পর কাবা শরিফ চত্বরে করোনা ভাইরাস প্র’তিরোধে বাইতুল্লাহর মেহমানদের উদ্দেশে বয়ান পেশ করেন। তার সেই বক্তব্য সংক্ষেপে তুলে ধরা হলো- সেখানে তিনি আল্লাহ ও তার রাসুলের প্রশংসা করে উপস্থিত লোকদের বলেন, ‘হে আমার
মুসলমান ভাইয়েরা! বিশ্বব্যাপী প্রাণঘা’তী এক ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। এ ভাইরাস আল্লাহর হিকমতেই কার্যকর। এটা বান্দার প্রতি আল্লাহর পরীক্ষা। যাতে বান্দা তার দিকে ফিরে আসে।

আল্লাহ নিজেই বান্দাকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন, আমি অবশ্যই তোমাদের পরীক্ষা করব কিছুটা ভয়, ক্ষুধা, সম্পদ ও জীবনের ক্ষ’তির মাধ্যমে। তবে ধৈ’র্যশীলদের জন্য রয়েছে সুসংবাদ।’ সুতরাং এ ভাইরাসসহ যাবতীয় বিপদ থেকে আ’ত্মরক্ষায় বান্দার জন্য জরুরি হলো আল্লাহর
সাথে সম্পর্ক রাখা। করোনা ভাইরাস আ’তঙ্কে আল্লাহর প্রতি আস্থাহীন হওয়া উচিত নয় বরং ভাইরাস মুক্ত থাকতে তাওবা করা এবং তাঁর ওপর ভরসা রাখা এবং দোয়া করা।

যাতে আল্লাহ তাআলা ভাইরাস থেকে মুসলমানদের হেফাজত করেন। কাবা শরিফের প্রধান ইমাম আরও বলেন, ‘সৌদি সরকার পবিত্র দুই মসজিদ মক্কা ওমদিনায় সাময়িকভাবে কিছু দিনের জন্য ওমরা ও জেয়ারত স্থ’গিত, রাতে তাওয়াফ বন্ধসহ কিছু জরুরি পদক্ষে’প গ্রহণ করেছে। যাতে অন্যান্য দেশ থেকে আগত ধর্মপ্রাণ মুসলমান এ ভাইরাসে আ’ক্রান্ত না হয় এবং তা সং’ক্রামক হয়ে ব্যাপকভাবে না ছড়িয়ে পড়ে।

এটি ওমরাহ পালনকারী ও দর্শনার্থীদের জন্য জরুরি ও গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ।’ পরিশেষে তিনি বলেন, ‘করোনা ভাইরাসে অ’স্থির, দু’শ্চিন্তাগ্রস্ত ও ভ’য় না পেয়ে আল্লাহর সন্তুষ্টি ও তাঁর রহমতের আশায় তাওবা করে তার দিকে ফিরে আসা এবং তা থেকে আ’ত্মরক্ষায় হাদিসে বর্ণিত দোয়া করা সবার জন্য জরুরি। তিনি মুসলিম উম্মাহর জন্য ভাইরাস ও মহামারি থেকে হেফাজতের জন্য দোয়া করেন।’