বাংলাদেশে ক’রোনা ভা’ইরাস নিয়ে পাওয়া গেল সুখবর

আজ দুপুরে জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেছেন, ‘করোনাভাইরাস শনাক্তকরণে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে এবং এতে কারও আক্রান্ত হওয়ার লক্ষণ মেলেনি।’ আজ ১০ মার্চ মঙ্গলবার দুপুরে আইইডিসিআরে সংবাদ সম্মেলন করে তিনি এ তথ্য জানান। এ সময় ডা. ফ্লোরা বলেন,

‘গত ২৪ ঘণ্টায় আমরা আরও ৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করেছি। তাদের শরীরে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি পাইনি। সবমিলিয়ে আমরা ১২৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করেছি। এখন পর্যন্ত ৩ জনের শরীরেই করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।’ এর আগে গত ৮ মার্চ সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পক্ষ থেকে জানানো হয়, দেশে তিনজন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন।

তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেলেই কমবে করোনার সং’ক্রমণের গতি>>> বিশ্বব্যাপী মহামারি আকার নিয়েছে করোনাভাইরাস। আক্রান্ত ও মৃ’তের সংখ্যা বাড়ছেই। এখন পর্যন্ত এক লাখ ১০ হাজার ৫৬ জন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। আর মা’রা গেছেন তিন হাজার আটশ ২৮ জন। অপরদিকে করোনায় আক্রান্ত ৬২ হাজার ২৭৬ জন চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। সারা বিশ্বের ১০৯টি দেশ ও অঞ্চলে এই ভাইরাসের প্রকোপ ছড়িয়ে পড়েছে। শুধুমাত্র চীনের মূল ভূখণ্ডেই করোনাভাইরাসে

আক্রান্তের সংখ্যা ৮০ হাজার ৭৩৫ এবং মৃ’ত্যু হয়েছে তিন হাজার একশ ১৯ জনের। চীনের পর করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি দক্ষিণ কোরিয়ায়। দেশটিতে এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা সাত হাজার ৩৮২ এবং মৃ’ত্যু হয়েছে ৫১ জনের। এই ভাইরাস হানা দিয়েছে ভারতেও। তবে এই মা’রণ ভাইরাসের করাল থাবার থেকে ভারতকে আড়াল করে ঢালের মতো রয়েছে আবহাওয়া। এমনটাই দাবি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ড. অরিন্দম বিশ্বাসের।

চিকিৎসক ড. অরিন্দম বিশ্বাস বলেন, ভারতের মানুষদের আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। কারণ, ভারতের আবহাওয়া করোনাভাইরাসের জন্য একেবারেই উপযুক্ত নয়। তাই আতঙ্কিত হওয়ার থেকে সতর্ক হওয়া বেশি জরুরি। আসলে শীতকাল সব ধরনের ভাইরাসের বৃদ্ধির জন্য উপযুক্ত সময়। তাই পরিবেশের তাপমাত্রা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গেই কমে আসবে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের গতি।