অবশেষে সবকিছু থেকে সরে যাচ্ছেন নরেন্দ্র মোদি

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক টুইট বার্তায় লিখেছেন, রবিবার থেকে ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম ও ইউটিউবে নিজের সমস্ত সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেওয়ার কথা ভাবছি। (এ বিষয়ে) সবাইকে জানাব।শ মোদির টুইটকে কেন্দ্র করে ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে। কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীর পাল্টা টুইট করে লিখেছেন, ঘৃণা ছাড়ুন। সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট নয়। তাতে বিজেপির এক নেতা লিখেছেন,

গান্ধী পরিবারের সমস্ত বিপ্লব তো টুইটেই। মোদিজির এই ইঙ্গিতে এমন প্রতিক্রিয়া স্বাভাবিক। অথচ ভোটের প্রচারে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমকে অ’স্ত্র হিসেবে ব্যবহার করেছেন মোদি। সেই তিনি সত্যিই অ্যাকাউন্ট বন্ধ করবেন কি না, তা এখনো নিশ্চিত নয়।ফেসবুকে ফলোয়ারের সংখ্যায় মোদির সামনে রয়েছেন মা’র্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ২০০৯ সালে যোগ দেওয়া টুইটারেও ফলোয়ারের সংখ্যা ৫.৩৩ কোটি।

সেই মোদি হঠাৎ সোশ্যাল মিডিয়া থেকে সরে যেতে চাওয়ায় অনেকের প্রশ্ন, মোদি তো সংবাদমাধ্যমের সামনে আসেন না। এবার সোশ্যাল মিডিয়া থেকেও সরে গেলে তার সঙ্গে যোগাযোগের উপায় কী? কেউ বলছেন, দিল্লির সংঘ’র্ষে দেরিতে মুখ খোলা থেকে শুরু করে অর্থনীতি- বিভিন্ন বিষয়ে সরাসরি সমালোচনার মুখে পড়তে হচ্ছে বলেই এমন ভাবনা। বিশেষত তিনি গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন অর্থনীতির ভরাডুবি নিয়ে কিভাবে আক্রমণ করতেন, বর্তমানে তা বার বার উঠে আসছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেজন্যই হয়তো এমন সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছেন মোদি।