মালয়েশিয়া থেকে ফে’রত পা’ঠানো হল ৫৩ হাজার প্রবাসী বাংলাদেশিকে

মালয়েশিয়ায় সদ্য সমাপ্ত ব্যাক ফর গুড কর্মসূচি চলাকালে বাংলাদেশ হাইকমিশন প্রবাসী বাংলাদেশিদের সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে বিশেষ মাত্রা সংযোজন করেছে। এই কর্মসূচির আওতায় ১ লাখ ৯২ হাজার ২৬০ জন অবৈ’ধ বিদেশি তাদের নিজ নিজ দেশে ফিরেছেন। এর মধ্যে ৫৩ হাজারের বেশি বাংলাদেশি রয়েছেন। দেশটিতে দীর্ঘদিন অবৈ’ধভাবে অবস্থানরত বিদেশি নাগরিকরা মালয়েশিয়ার আই’ন ও প্র’ক্রি’য়াগত জ’টি’লতা, অ’তি’রি’ক্ত জরি’মা’না এবং কা’রা’দ’ণ্ডের ভয়ে ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও দেশে ফিরতে পারেনি। এ ছাড়া অনেক অ’বৈ’ধ প্রবাসী আ’টক আ’তঙ্কে দিন পার করছে দেশটিতে।

অ’বৈ’ধ প্রবাসীদের প্রতিনিয়ত ইমি’গ্রে’শন পুলিশ আ’টক করছে। এসব প্রবাসীরা সরাসরি ইমিগ্রেশনে আ’ত্মস’ম’র্প’ণ করলেও জটিল ও কঠোর প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়েই দিন যাচ্ছে তাদের। ইমিগ্রেশনে আবেদন দাখিল করার পর ১৪ দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়। অপেক্ষায় থাকাদের খাওয়া এবং যাতায়াত সমস্যায় পড়তেও হয়। অধিকাংশদেরই বিপুল অংকের জরিমানা ও ফ্লাইট টিকিট ক্রয় করাও সম্ভব হচ্ছিল না। রোগী হলে ভোগা’ন্তি আরও বেশি। এমতাবস্থায় হতাশা বিরাজ করছে প্রবাসীদের মাঝে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। বাংলাদেশ হাইকমিশন মালয়েশিয়া সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী, প্রতিরক্ষামন্ত্রী, মানবসম্পদ মন্ত্রী এবং ঊর্ধতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে স্বেচ্ছায় দেশে ফিরতে ইচ্ছুকদের সুবিধা প্রদানের বিষয়ে আলোচনা করে। সম্প্রতি বাংলাদেশ ও মালয়েশিয়ার মধ্যে অনুষ্ঠিত জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের সভায় এ বিষয়ে আলোচনা হয়। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তাবিষয়ক উপদেষ্টা, প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী এবং পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর সফরকালে মালয়েশিয়া সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে এ বিষয়ে আলোচনা করেন। নিরলস কূটনৈতিক প্রচেষ্টার ফলশ্রুতিতে মালয়েশিয়া সরকার অবৈধ অভিবাসীদের সহজে দেশে ফিরে যাওয়ার জন্য সাধারণ ক্ষমা ব্যাক ফর গুড কর্মসূচি ঘোষণা করে যা ১ আগস্ট ২০১৯ থেকে ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ পর্যন্ত চালু ছিল।