শাবনূরের গ’র্ভে সালমান শাহের সন্তান!

চিত্রনায়ক সালমান শাহর মৃ’ত্যু নিয়ে ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) জবানব’ন্দি দেন তার স্ত্রী’ সামিরা হক ওয়ায়েজ। সালমান শাহর প্রকৃত নাম ছিল ওরফে চৌধুরী মোহাম্ম’দ শাহরিয়ার ইমন। এ নিয়ে একটি অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশ করে বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক দেশ রূপান্তর। প্রতিবেদনে বলা হয়, ওই জবানব’ন্দিতে সামিরা সালমানকে ইমন হিসেবে সম্বোধন করেন। তিনি জানান তার শাশুড়ির মা’রধর সহ, সালমান শাহর তার প্রতি প্রেম নিবেদন, শাবনূরের প্রেগন্যান্ট হওয়াসহ নানা ঘটনা। গত বছরের ২৪ মে পিবিআইকে ১৬১ ধারায় দেওয়া দুই পৃষ্ঠার ওই জবানব’ন্দির একটি অনুলিপি পেয়েছে দেশ রূপান্তর। সেখানে সামিরার সঙ্গে সালমানের প্রেম, বিয়ের আগে ‘সামিরাকে নিয়ে সালমানের পাগলামি’ এবং তার দুবার আত্মহ’ত্যার চেষ্টা নিয়েও বিস্তর বর্ণনা রয়েছে।

সামিরা জবানব’ন্দিতে বলেন, ‘আমি সামিরা হক ওয়ায়েজ (৪০), জিজ্ঞাসাবাদে আমি এই জবানব’ন্দি করিতেছি যে ১৯৯০ সালের ১২ জুলাই চট্টগ্রামের একটি ফ্যাশন শোতে সালমান শাহ ওরফে ইমনের খালা মলির মাধ্যমে ইমনের সঙ্গে আমা’র পরিচয় হয়। এরপর সাত দিন ইমন ঢাকায় যায়নি। ইমনের খালা মলি ইমনকে আমাদের লুসি বিউটি পার্লারে নিয়ে আসে। ফ্যাশন শো শেষে ইমন প্রায় সময় আমাদের বাসার সামনে দাঁড়িয়ে থাকত। আমাদের টিঅ্যান্ডটি নম্বরে ইমন আমাকে ফোন করত। সে আমাকে বিয়ে করতে চায়, আমাকে ছাড়া সে বাঁচবে না, আমাকে না পেলে আত্মহ’ত্যা করবে বলে তার র’ক্ত দিয়ে আমাকে চিঠি লিখত।

১৯৯১ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে আমা’র সঙ্গে ফোনে কথা বলার সময় ইমনের মা’র সঙ্গে ফোন করা নিয়ে কথা-কা’টাকাটি হয় তার, এরপর ইমন নিজ বাসা৯০টি ইনোক্টিন (ঘুমের ওষুধ) খেয়ে ম’রতে চেয়েছিল। বিষয়টি ইমন আমাকে ফোনে জানালে আমি ইমনের ভাই বিল্টুকে জানাই।’ সামিরা বলেন, ‘১৯৯১ সালের ১৮ আক্টোবর “ও লেভেল” পরীক্ষা দেওয়ার জন্য ঢাকায় আমা’র চাচা এনামুল হকের বাসায় আসি। সেখানে ইমন এসে আমা’র সঙ্গে দেখা করে। সেখান থেকে সে আমাকে গ্রিন রোডে তার বাসায় নিয়ে যায়। সেখানে সে তার বাবা, মা ও ভাই বিল্টুর সঙ্গে আমাকে পরিচয় করিয়ে দেয়।

১৯৯২ সালের নভেম্বর মাসে কেয়ামত থেকে কেয়ামত ছবির শুটিংয়ের সময় ইমনের মা’র সঙ্গে ইমনের কথা-কা’টাকাটি হয়। ওই সময়ই ইমন স্যাভলন খেলে তাকে মেট্রোপলিটন হা*সপা*তালে নিয়ে ওয়াশ করানো হয়েছিল। ইমন ফেনসিডিলে আসক্ত ছিল। প্রথমে বেনসন সিগারেট পরে মালবোরো সিগারেট খেত ইমন। ১৯৯২ সালের ২০ ডিসেম্বর ইমনের সঙ্গে আমা’র বিবাহ হয়। বিবাহের পর হতে আমি স্বামীর সঙ্গে ঘরসংসার করে আসছিলাম। ইমনের মা আমাকে মা’রধর করত। তাই ইমন গ্রিন রোডের বাসা ছেড়ে ইস্কাটন রোডে বাসা ভাড়া করে আমাকে নিয়ে আলাদাভাবে থাকতে শুরু করে।

আমাদের বাসার কাজের মেয়ে জরিনাকে আমা’র শাশুড়ি তার বাসায় কাজ করার জন্য নিয়ে এসেছিল। তিনি জরিনাকে মা’রপিট করে বের করে দিয়েছিলেন। এরপর আমা’র শ্বশুর জানান যে জরিনার সঙ্গে ইস্কাটন প্লাজার বাসার দারোয়ান আবদুল খালেকের অ’বৈধ স’ম্পর্ক ছিল। এই অ’বৈধ স’ম্পর্কের একটি ক্যাসেট নাকি আমা’র শ্বশুরের কাছে ছিল। বিষয়টি জরিনাকে আমি জিজ্ঞাসা করেছিলাম, কিন্তু জরিনা অস্বীকার করেছিল। আমা’র শ্বশুর তখন দারোয়ান খালেকের সঙ্গে আমা’র অ’বৈধ খা’রাপ স’ম্পর্ক আছে বলে ইমনকে জানালে তাদের বাপ-ছেলের মধ্যে ঝগড়া হয়েছিল।জবানব’ন্দিতে সামিরা আরও বলেন,

‘১৯৯৬ সালের ১৫ জুলাই ইমন ভারতে গিয়েছিল। আমি তখন চট্টগ্রামে ছিলাম। সংবাদ পেয়ে আমি চিটাগাং থেকে ঢাকায় আসি, ঢাকায় এসে ইমনকে পাইনি। ইমন শাবনূরকে নিয়ে ভারত গিয়েছিল। ইমনের হাতে তখন প্রায় ২৭টি ছবি ছিল। প্রায় সবগুলো ছবিতে শাবনূরের সঙ্গে ইমনের জুটি ছিল। ইমন ভারত থেকে দেশে এসে শাবনূরকে নিয়ে ১৯৯৬ সালের ১ আগস্ট সিঙ্গাপুর গিয়েছিল। সিঙ্গাপুর গিয়ে শাবনূর ইমনকে জানিয়েছিল যে সে প্রেগন্যান্ট। সিঙ্গাপুরে তারা একটি হোটেলে ছিল। সেখানে শাবনূরের বাবা ও ভাই গিয়েছিল। শাবনূর ইমনকে বিয়ে করার জন্য চাপ দিয়েছিল। ইমন কৌশলে সিঙ্গাপুর থেকে বাংলাদেশে এসে বিষয়টি আমাকে বলেছিল।

যে ইমন প্রায় চার বছরের সংসারজীবনে আমাকে কোনো সন্তান দিতে পারল না, সেই ইমনের কারণে শাবনূর নাকি প্রেগন্যান্ট, কথাটা আমা’র কাছে হাস্যকর মনে হয়েছিল। আর আমি তো জানতাম ইমনের এ বিষয়ে সমস্যা ছিল। আমা’র বাচ্চা না হওয়ার কারণে আমাদের পাশের বাসার সুইটি ভাবিসহ আমি ডাক্তারের কাছে গিয়েছিলাম। ডাক্তার আমাকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে জানিয়েছিল যে আমা’র কোনো সমস্যা নেই। এখন আমা’র এক ছেলে ও দুই মেয়ে। শাবনূর আমাদের বাসায় আসত। আমি তা পছন্দ করতাম না।

এর আগে ইমন শাবনূরকে নিয়ে কক্সবাজারে একটি আউটডোর শুটিংয়ে গিয়েছিল। সেখানে শাবনূর হোটেল উপলের একটি রুমে ইমনকে ব্লক (আ’ট’কে) করে দিয়েছিল। ইমন সেখান থেকে কৌশলে বেরিয়ে এসে বিষয়টি আমাকে জানিয়েছিল। শাবনূরের মা ও আমা’র শাশুড়ি ইমনকে শাবনূরের সঙ্গে বিয়ে দেওয়ার জন্য খুবই আগ্রহী ছিল।’ জবানব’ন্দির আরেক অংশে সামিরা বলেন, ‘আমি চট্টগ্রাম গেলে ১৯৯৬ সালের ৩১ আগস্ট ইমন ও বিল্টু এবং খলনায়ক ডন আমাকে আনার জন্য চট্টগ্রাম গিয়েছিল।

১৯৯৬ সালের ১ সেপ্টেম্বর ডন চলে আসে। আমি ৩ সেপ্টেম্বর ইমনের সঙ্গে ঢাকায় আসি। শাবনূর-সালমান শাহ (ইমন) জুটি খুব জনপ্রিয় ছিল। শাবনূর ইমনকে ফোন করত এবং বাসায় আসত। আমা’র ও ইমনের সঙ্গে শাবনূরের খুব ভালো স’ম্পর্ক ছিল। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে অ’বৈধ স’ম্পর্ক গড়ে উঠেছিল। ১৯৯৬ সালের ৫ সেপ্টেম্বর ইমন উত্তরায় একটি শুটিংয়ে গিয়েছিল। শুটিং শেষে বিকেল সাড়ে ৬টার সময় এফডিসিতে আসে এবং আমাকে সেখানে যাওয়ার জন্য ফোন করে ইমন। আমি তখন আমা’র শ্বশুরকে নিয়ে এফডিসিতে যাই। সেখানে একটি রুমে ছবির ডাবিং চলছিল। ডাবিংয়ের ফাঁকে শাবনূর বারবার ইমনকে জড়িয়ে ধরছিল এবং বিভিন্ন অশালীন আচরণ করছিল।

এতে আমি খুব অস্বস্তি বোধ করছিলাম এবং সেখান থেকে চলে আসার চেষ্টা করছিলাম। ওই দিন বাদল খন্দকারের সঙ্গে ইমনের একটি ছবির চুক্তি হয়েছিল। বাদল খন্দকার ছবি শিডিউলের জন্য ইমনকে দেড় লাখ টাকা দিয়েছিল। ডাবিং শেষে আমি, ইমন ও বাদল খন্দকার একটি গাড়িতে এবং আমা’র শ্বশুর আবুলকে নিয়ে আরেকটি গাড়িতে করে বাসায় চলে আসি। আমা’র শ্বশুর বাসায় না উঠে নিচ থেকে চলে গিয়েছিল। আবুল শুটিংয়ের মালামালগুলো বাসায় রেখে রাত বেশি হয়ে যাওয়ার কারণে খাবার খেয়ে আমাদের বাসায় থেকে গিয়েছিল।

আমি, ইমন ও বাদল খন্দকার বাসায় এসে খাবার খাই। বাদল খন্দকার আমাকে শান্ত থাকতে বলে চলে গিয়েছিল। পরের দিন দুপুর সাড়ে ১২টার সময় হোটেল সোনারগাঁওয়ে চিত্রনায়িকা পপির সঙ্গে ইমনের একটি নতুন ছবির বিষয়ে আলোচনা হওয়ার কথা ছিল। ইমন শাবনূরের সঙ্গে নতুন করে ছবি করবে না বলে বাদল খন্দকারের সামনে একটি কন্ট্রাক ছিঁড়ে ফেলে দিয়েছিল। পরে রাত আনুমানিক সাড়ে ১১টা থেকে পৌনে ১২টার সময় শাবনূর পরপর দুইবার ইমনের সিটিসেল মোবাইল ফোনে কল করেছিল। ইমন সিটিসেল মোবাইল ফোনটি নিয়ে তখন বাথরুমে গিয়ে চি’ৎকার করে কথা বলেছিল এবং তাকে আর যেন ফোন না দেয় বলে কথা শেষ করে দিয়েছিল।

এরপর রাত অনুমান ১২ ঘটিকার সময় ওই ফোনে শাবনূর আবারও একটি কল দিয়েছিল। ইমন তখনো বাথরুমে গিয়ে কথা বলেছিল। ওই সিটিসেল ফোনটি শাবনূরই ইমনকে গিফট করেছিল। তখন আমি রাগ করে নিচে চলে গিয়েছিলাম। নিচে ডিউটিতে থাকা দারোয়ান দেলোয়ার ও খালেকদের ইমন বলে দিয়েছিল যে আমি যেন বাইরে যেতে না পারি। পরে আমি বাসায় চলে আসি এবং কা’ন্নাকাটি করি। তখন ইমন শাবনূরের দেওয়া গিফট একটি টেবিল ফ্যান, একটি চেয়ার ও সিটিসেল মোবাইল ফোনটি রাগ করে ভেঙে ফেলেছিল। এরপর ইমন ম’দ খেয়েছিল, তখনো আমি কা’ন্নাকাটি করছিলাম। অনুমানিক রাত ৩টা থেকে ৪টার সময় আমি ও ইমন দুজনই বেডরুমে ঘুমিয়ে পড়েছিলাম।

পরের দিন সকাল ৯টার সময় আমা’র শ্বশুর আসেন। আমি তাকে নাশতা খাইয়ে ৫০ হাজার টাকা দিই। তিনি টাকাগুলো নিয়ে চলে যান।এরপর আমি আমা’র বেডরুমে গিয়ে ঘুমিয়ে থাকি। এরপর ইমন ঘুম থেকে জেগে উঠে আমা’র দিকে কিছুক্ষণ তাকিয়ে ছিল। এরপর সে বাথরুমে যায়। বাথরুম থেকে বের হয়ে এসে ড্রেসিংরুমে গিয়ে ভেতর থেকে দরজা বন্ধ করে দিয়েছিল। এর কিছুক্ষণ পর ওম’র (সালমানের পালিত ছেলে) অন্য বাথরুমে গোসল করে বের হয়। ওম’রের পরনের কাপড় ড্রেসিংরুমে ছিল। ডলি (সালমানের বাসার গৃহকর্মী ও ওম’রের মা) ও ওম’র তখন ড্রেসিংরুমের দরজা বন্ধ দেখে দরজা খোলার জন্য ইমনকে ডা’কাডাকি করছিল।

ডা’কাডাকিতে আমি ঘুম থেকে উঠে আসি এবং দরজা খোলার জন্য ইমনকে ডা’কাডাকি ও ড্রেসিংরুমের দরজায় নক করি। দরজা না খোলায় আবুলকে দিয়ে চাবি আনিয়ে দরজা খু`লে আম’রা দেখি ইমন ফ্যানের সঙ্গে রশি দিয়ে গলায় ফাঁ’স লাগিয়ে ঝুলে আছে। আম’রা তখন চি’ৎকার করতে থাকি। আমি ও মনোয়ারা মিলে ইমনকে পায়ের দিক থেকে আলগাইয়া ধরি। ড্রেসিংরুমে থাকা অ্যালুমিনিয়ামের মই আবুল ধরে এবং ডলি মই বেয়ে ওপরে উঠে বঁটি দিয়ে ইমনের গলার রশি কে’টে দেয়। রশিটি স্কিপিং রোপ ও আয়রন কর্ড দিয়ে বানানো ছিল। আম’রা ইমনকে ফ্লোরে নামিয়ে রাখি। দোকান থেকে সরিষার তেল এনে গরম করে ইমনের হাতে পায়ে ও শ`রীরে মালিশ করি।

ইমনের মলদ্বার দিয়ে মল ও প্রস্রাব নির্গত হওয়ায় আবুল ও ডলি ইমনের প্যান্ট পাল্টিয়ে দেয়। তখন আবুল ইমনের প্যান্টের পকেট থেকে একটি চিরকুট পায়। এর মধ্যে রমনা থানার ওসিসহ পু’লিশ আমাদের বাসায় আসে। আবুল ইমনের পকে’টে পাওয়া চিরকুট আমা’র হাতে দিয়ে দেয়। এর কিছুক্ষণ পর পু’লিশ এসে আমাকে জিজ্ঞাসাবাদ করায় আমি পু’লিশের হাতে সেই চিরকুট দিয়ে দিই। পাশের বাসার সালমান হোসেনসহ প্রতিবেশীরা সবাই এসেছিল। পাশের ক্লিনিক থেকে ডাক্তার ডেকে আনা হয়েছিল। ডাক্তার ইমনকে দেখে বলেছিল যে ইমন আর বেঁ`চে নেই। এরই মধ্যে আমা’র শ^শুর-শাশুড়ি ও দেবর বিল্টু আসেন। আমা’র শাশুড়ি চি’ৎকার দিয়ে আমাকে বলেন যে, ‘তুই, আমা’র ছেলেকে মে’রে ফেলেছিস।

তোকে আর বাঁচতে দেব না।’ সে আমাকে গালাগালি করার সময় ভয়ভীতি প্রদর্শন করতে থাকে। তখন আমি ভয়ে পাশের ইয়াসমিন আন্টির কাছে গিয়ে দাঁড়াই। তখন তিনি ইয়াসমিন আন্টির সঙ্গে আমাকে নিয়ে ঝগড়া শুরু করে দেন। ওই সময় বাদল খন্দকার, মতিন রহমান, শাহ আলম কিরণ, মোহাম্ম’দ সেলিম এবং পাশের বাসার সুইটি ভাবি ও তার স্বামী সালমানসহ সবাই উপস্থিত ছিলেন। ইমনকে তখন সবাই মিলে সেখান থেকে হলি ফ্যামিলি হা*সপা*তালে নিয়ে যায়। তখন পু’লিশের বজলুল করিম সাহেব ও রমনা থানার ওসি আমা’র বাসায় তাদের টিম নিয়ে তল্লা’শি করে এবং আমাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে।

ইমনকে হলি ফ্যামিলি হা*সপা*তালে নিলে সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তার তাৎক্ষণিকভাবে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হা*সপা*তালে নিয়ে যেতে বলে। ইমনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হা*সপা*তালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃ’ত ঘোষণা করেন।’ সেদিন বাদল খন্দকারসহ আরও অনেকের সামনে ইমনের ভাই বিল্টু তার গলা চেপে ধরে মা’রধর করেছিল উল্লেখ করে সামিরা বলেন, ‘আমা’র চি’ৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসেছিল এবং আমাকে সেদিন বিল্টুর হাত থেকে রক্ষা করেছিল। বিল্টু আমা’র বাসায় তালা লাগিয়ে আমাকে বাসা থেকে বের করে দিলে আমি নিচতলায় ঝুমি ও ঊর্মিদের বাসায় গিয়ে আশ্রয় নিয়েছিলাম। ওনারা ফোন করে আমা’র বাবা-মাকে সংবাদ দিলে ওই দিন সন্ধ্যা ৭টা থেকে ৮টার দিকে আমা’র বাবা-মা চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় এসেছিলেন।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হা*সপা*তালের কার্যক্রম শেষে এফডিসি থেকে ইমনের লা’শ গ্রিন রোডের বাসায় নিয়ে যায়। ইমনের লা’শ সিলেটে যাওয়ার সময় আমা’র শ্বশুর ও মামাশ্বশুর আলমগীর কুমকুম আমা’র কাছে এসেছিলেন। আমা’র শ্বশুর আমাকে জড়িয়ে ধরেন এবং সিলেট যেতে নিষেধ করেন। কারণ হিসেবে তিনি বলেন, সিলেট গেলে সেখানে আমা’র সমস্যা হতে পারে। তবে আমা’র মামাশ্বশুর আলমগীর কুমকুম আমাকে লা’শের সঙ্গে সিলেট যেতে বলেছিলেন। আমা’র মামাশ্বশুরের কথায় ইমনের লা’শের সঙ্গে সিলেট যাইনি।

পরে আমি ইস্কাটন থেকে আমা’র বাবা-মায়ের সঙ্গে ধানমন্ডিতে আমা’র ফুপা অ্যাডভোকেট জুলমত আলী খানের বাসায় যাই। ইমনকে সিলেট হযরত শাহ’জালালের মাজার শরিফ কবরস্থানে দাফন করা হয়। ঘটনার এক সপ্তাহ পর আমাদের পাশের ফ্ল্যাটের সুইটি আমাকে ফোন করে জানায় যে বাসায় আমা’র শ^শুর-শাশুড়ি, আমা’র দেবর বিল্টুসহ আরও লোকজন নিয়ে বিভিন্ন সময় আসা-যাওয়া করছে এবং বাসার বিভিন্ন জিনিসপত্র নিয়ে যাচ্ছেন। আমি এই সংবাদ পেয়ে আমা’র বাবাকে ঘটনাটি জানাই। আমা’র বাবা পু’লিশকে ঘটনাটি জানালে পু’লিশ ঘটনাস্থল গিয়ে বাসাটি সিলগালা করে। ইমন মা’রা যাওয়ার তিন মাস পর আমি আমা’র বাবা-মায়ের সঙ্গে চট্টগ্রাম চলে যাই। এরপর ১৯৯৯ সালের ৫ মা’র্চ মু’স্তাক ওয়াইজের সঙ্গে পারিবারিকভাবে আমা’র পুনরায় বিয়ে হয়।’