স্বামীকে তালাক দিয়ে ননদের জামাইকে বিয়ে, অতঃপর ক’রুন প’রি’ন’তি

হেনা আক্তার। বয়স আনুমানিক ৪১ বছর। ময়মনসিংহের ভালুকায় জ’ঙ্গ’ল থেকে তার গ’লাকা’টা ম’রদেহ উ’দ্ধার করেছে পুলিশ। রোববার (১ মার্চ) সকালে উপজেলার মেদুয়ারী গ্রামে নি’হতের বড় মেয়ে মিলি আক্তারের শ্বশুরবাড়ির পাশে কুমাড়কাটা জ’ঙ্গল থেকে তার ম’রদে’হ উ’দ্ধার করা হয়। জানা যায়, ভালুকা উপজেলার মেদুয়ারী গ্রামের রফিকুল ইসলাম রবির স্ত্রী হেনা আক্তার। তিনি শনিবার দুপুরে একই গ্রামের কুমাড়কাটা পাড়ায় মেয়ের শ্বশুরবাড়িতে যান। রাতে মেয়ের শাশুড়ি সমলা আক্তার (৬০) ও নাতি শ্রাবনীকে (৭) নিয়ে পাশের রুমে ঘুমাতে যান।

রোববার ভোরে হেনা আক্তারকে ঘরে না পেয়ে পরিবার ও স্থানীয়রা তাকে খোঁ’জা’খুঁ’জি শুরু করেন। একপর্যায়ে বাড়ির পশ্চিম পাশের জ’ঙ্গ’লে গ’লা’কা’টা অবস্থায় ম’রদেহ দেখতে পেয়ে তারা পুলিশে খবর দেয়। ম’রদে’হটি উ’দ্ধা’র করে ম’য়’না’তদ’ন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ম’র্গে পাঠানো হয়েছে। নি’হতের মেয়ে মিলি আক্তার জানান, তার মা শনিবার দুপুরে তার বাড়িতে বেড়াতে আসে। তিনি রাতে তার শাশুড়ি ও মেয়ের সাথে ঘুমাতে যান।

রাতের কোনো একসময় তার মা দরজা খুলে ঘর থেকে বেরিয়ে গিয়েছিলেন। স্থানীয় ইউপি সদস্য সিরাজুল ইসলাম জানান, হেনা আক্তার আট মাস আগে স্বামী আব্দুল মতিনকে ডি’ভো’র্স দিয়ে ননদের জামাই রফিকুল ইসলাম রবির সাথে বিবাহ বন্ধ’নে আব দ্ধ হন। পরে তারা বিভিন্নস্থানে বাসা ভাড়া নিয়ে অবস্থান করছিলেন। ভালুকা মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ মাইনউদ্দিন জানান, ম’রদেহটি গলাকা’টা অবস্থায় একটি জ’ঙ্গল থেকে উ’দ্ধার করে ম’র্গে পাঠানো হয়েছে। হ’ত্যার’হস্য উৎঘাটনের জন্য পুলিশ ও সিআইডি এ ব্যাপারে তদ’ন্ত করছেন।