বাসে বাবার বয়সী ব্যক্তির যৌ’ন হয়’রানি, কেঁদে বিচার চাইলেন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী

বৃহস্পতিবার দুপুরে আমি বাসের জন্য দাঁড়িয়ে ছিলাম। সব বাসেই অনেক মানুষের ভিড় ছিল। কোনমতে বিআরটিসির একটি বাসে আমি উঠে পড়ি।কিছুদুর যাওয়ার পর আমা’র পাশে থাকা মধ্য বয়সী এক ব্যক্তি প্রতিনিয়ত আমা’র শ`রীরে হাত দেয়ার চেষ্টা করছিল। এক পর্যায়ে সে আমা’র শ`রীরে হাত দিয়েও ফেলে। রাজধানীতে চলন্ত বাসে যৌ’ন হয়’রানির শিকার হয়ে এভাবেই ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী।

বৃহস্পতিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) দুপুর ২টায় ফার্মগেট থেকে বিশ্বরোডে নিজ বাসায় যাওয়ার পথে ওই শিক্ষার্থীকে হেনস্তা করা হয় বলে অ’ভিযোগ ওই ছাত্রীর।এদিকে চলন্ত বাসে হয়’রানির শিকার হয়ে প্রতিবাদ জানালেও তার সাহায্যে কেউ এগিয়ে আসেনি বলে অ’ভিযোগ ওই শিক্ষার্থীর। পরে চলন্ত বাসে আক্রান্ত হওয়ার বিবরণ তুলে ধরে বৃহস্পতিবার রাতে নিজের ফেসবুক পেজে লাইভে এসে ঘটনার বর্ণনা দেন তিনি।

ওই ছাত্রীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ঘটনার দিন সকালে ফার্মগেটে কাজে এসেছিলাম। কাজ শেষ করে দুপুরে বাসায় যাওয়ার জন্য বিআরটিসির বাসে উঠি।বাসে ৩৫-৫০ বছর বয়সী এক ব্যক্তি বারবার আমা’র শ`রীরে হাত দেয়ার চেষ্টা করছিল। একপর্যায়ে সুযোগ পেয়ে সে আমা’র পায়ে হাত দেয়।ওই ছাত্রী জানায়, শ`রীরে হাত দেয়ার পর আমি এর প্রতিবাদ জানাই।

প্রতিবাদ জানানোয় বাসের কেউ আমা’র সাহায্যে এগিয়ে আসেনি। বরং এই ঘটনার জন্য সবাই উল্টো আমাকেই দোষ দিতে থাকে। সবাই আমাকে চুপ করতে বলে। অথচ ওই ব্যক্তিকে কেউ কিছু বলে নাই।একজন বাবার বয়সী মানুষের কাছ থেকে এমন কিছু অ’প্রত্যাশিত ছিল।
ওই ছাত্রী আরও জানায়, বাসের অন্য যাত্রীদের আচরণ দেখে আমি বিস্মিত। একজন নারীর সাথে খা’রাপ আচরণের প্রতিবাদ না করে উল্টো

তাকে থামিয়ে দেয়া দেখে আমি বাকরুদ্ধ হয়ে যাই। তাদের আচরণ ছিল যেন ভুলটা আমা’রই।থানায় অ’ভিযোগ করেছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি জানান, ওই লোকটিকে আমি চিনি না। তাই অ’ভিযোগ করিনি। তার ছবি তোলার চেষ্টা করেও ভিড়ের কারণে তুলতে পারিনি। ফেসবুকে লাইভে আসার কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, সমাজের বর্তমান অবস্থায় নারীরা যেন আরো সচেতন হয় সেজন্য লাইভে এসেছি।

ভিডিওটি দেখতেএখানে ক্লিক করুন