অবশেষে ধরা পড়ল ‘সার্জেন্ট ইমরান আমার বন্ধু’ পরিচয়ধারী সেই বাইকার

অতি সম্প্রতি একটি বাইকের নম্বরপ্লেটে ‘সার্জেন্ট ইমরান আমার বন্ধু’ লেখাসহ একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার পর ধরা খেলেন সেই বাইকার।বুধবার কারওয়ানবাজার সোনারগাঁও ক্রসিংয়ে তাকে বাইকসহ আ;টক করেন দায়িত্বরত ট্রাফিক সার্জেন্ট। আলোচিত ওই বাইকার আবির একজন চাকরিজীবি। সোনারগাঁও ক্রসিংয়ে দায়িত্বরত সার্জেন্ট আসাদুজ্জামান জুয়েল তাকে শনাক্ত করে আ;;টকে দেন।

এ সময় তার বাইকের পেছনের নম্বর প্লেটে ‘সার্জেন্ট ইমরান আমার বন্ধু’ লেখার কারণ জানতে চান। এ বিষয়ে সার্জেন্ট জুয়েল বলেন, আমি তাকে আটকে বাইকের পেছনে লেমিনেটিং করা কাগজটি দেখতে পাই। তার কাছে কারণ জানতে চাই। উত্তরে তিনি বলেন, ইমরান তার একজন খুব ভালো বন্ধু। সে তাকে মোটরসাইকেল কেনা থেকে শুরু করে তাকে চালানো শিখিয়েছেন।

তাই বন্ধুর প্রতি কৃতজ্ঞতা থেকেই তিনি নম্বর প্লেটে এটি লাগিয়েছেন। ট্রাফিক সার্জেন্ট জুয়েল বলেন, মটরযানে নম্বরপ্লেটের স্থানে নম্বর ব্যাতীত কোন অঙ্কন, নাম লেখা, খোদাই করা, ঘষামাজা করা, বিজ্ঞাপন দেওয়া নিষিদ্ধ। মটরযান আইনের ২০১৮ এর ৯২ (২) ধারাতে এই অপরাধের জন্য ১০০০ টাকা জরিমানার বিধান রয়েছে। তবে আবিরের গাড়ির রেজিস্ট্রেশন,

লাইসেন্স, ইন্সুরেন্সসহ সব কাগজপত্র ঠিক ছিল। তিনি তার ভুল স্বীকার করেছেন এবং অনুতপ্ত হয়েছেন। তাই তাকে কোন মামলা না দিয়ে সতর্ক করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি বাইকের নম্বরপ্লেটে ‘সার্জেন্ট ইমরান আমার বন্ধু’ লেখাটি ভাইরাল হয়। এ নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার পর বাইকটির সন্ধান করছিলো ট্রাফিক পুলিশ।