কমে যাবে সিজার অপারেশন, শিক্ষার্থীর আলোড়ন তোলা আবিষ্কার

বাংলাদেশে বাচ্চা ডেলিভারির সময় তা সিজারে হবে নাকি নরমালে হবে তা নিয়ে হুলস্থুল কাণ্ড বেঁধে যায়। পরিবার নরমাল করাতে চাইলে ডাক্তার বলেন সিজার, আবার ডাক্তার নরমাল করাতে চাইলে পরিবার চায় সিজার। এবার এমন একটি মেশিন যা বলে দেবে সত্যিই ডেলিভারির জন্য সিজার প্রয়োজন আছে কি না। মেশিনটি আবিষ্কার করেছেন নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মোহাম্মদ কাওছার।

শনিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) তিনি ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির একটি সম্মেলনে নিজের আবিষ্কারের কথা তুলে ধরেন। কাওছার বলেন বলেন, আমার গবেষণাটি করার একমাত্র ভিশন এবং মিশন হচ্ছে একজন ডেলিভারি রোগীকে কি সত্যি সিজার করা লাগবে নাকি নরমাল ডেলিভারিতে হবে; সেটি এলগরিদম বলে দেবে। আমরা মেশিন লার্নিং অ্যান্ড ডিপ লার্নিং ব্যবহার করে মোটামুটি নির্ণয়

করতে সক্ষম হয়েছি একজন ডেলিভারি রোগীর কি সত্যি সিজার করা লাগবে কিনা। তিনি আরো বলেন, এক্ষেত্রে আমরা ৮৯ শতাংশের বেশি সঠিক প্রেডিকশন করতে সক্ষম হয়েছি। যেহেতু চিকিৎসক বা মেডিকেলগুলো এ ধরনের আবিষ্কারকে তাদের নিজেদের করে নেবে না, তাই তাদের মুনাফার ক্ষতি হবে। ভবিষ্যতে যদি কোনো ফান্ড পাই তাহলে সেটি এমনভাবে ডিজাইন করা হবে যেন মানুষ নিজেরাই ব্যবহার করে সিদ্ধান্ত নিতে পারে তাদের বেবি ডেলিভারি নর্মালে হবে নাকি সিজারে।

আরো পড়ুন… ওজন কমাতে ঠিক কতটুকু লবণ খাওয়া জরুরি? লবণ খেলে ওজন বাড়ে এমনই ধারণা সব স্বাস্থ্য সচেতন মানুষদের। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন ভিন্ন কথা। এ বিষয়ে বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, লবণ খেলে ওজন বাড়ে এই ধারণাটি পুরোপুরি সত্যি নয়। যদিও ওজন কমানোর জন্য অনেকেই খাবারে লবণের পরিমাণ কমিয়ে দেন। কারণ প্রচলিত রয়েছে, লবণ বেশি খেলে দেহে পানির পরিমাণ বেড়ে যায়। আসলে বিষয়টি তেমন নয়। ওজন নিয়ন্ত্রণ,

এমনকি যারা উচ্চ রক্তচাপ সমস্যায় ভোগেন তারাও লবণ খেতে পারবেন। তবে তা খেতে হবে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণে। নিশ্চয় প্রশ্ন থাকতে পারে, একজন ব্যক্তি ওজন কমাতে চাইলে প্রতিদিন কতটুকু লবণ খেতে পারবেন? চলুন জেনে নেয়া যাক- > একজন সুস্থ মানুষ দৈনিক এক চা চামচ লবণ খেতে পারেন। তবে কাঁচা লবণ না খেয়ে রান্নায় ব্যবহার করাই ভালো। লবণ কেনার সময় প্যাকেটের গায়ে আয়োডিনযুক্ত লেখা দেখে কিনুন।

> লবণের অভাবে দেহে সোডিয়ামের ঘাটতি দেখা দেয়। এতে রক্তচাপ কমে যাওয়া, মাথা ঘোরা ছাড়াও নানা শারীরিক সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই, দৈনন্দিন খাবারের তালিকা থেকে লবণ পুরোপুরি বাদ দেবেন না। > পাউরুটি, চিপস, চিজ, সস ইত্যাদি খাবারে লবণ থাকে। এসব খাবার খাওয়ার সময় লবণের পরিমাণের ওপর লক্ষ্য রাখুন। > এছাড়াও জিম করলে কিংবা কিডনি জনিত সমস্যা থাকলে একজন ডায়েটেশিয়ানের পরামর্শ নিয়ে খাবারে লবণের পরিমাণ ঠিক করে নিন।