এবার সৌদি- আরব আমিরাতের প্রশংসায় পঞ্চমুখ ইভানকা ট্রাম্প

নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠায় উল্লেখযোগ্য সংস্কার পদক্ষেপ নেয়ায় সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাতকে প্রশংসায় ভাসিয়েছেন ইভানকা ট্রাম্প।
বিদেশ ভ্রমণে নারীদের অনুমোদন ও পুরুষ আত্মীয়দের অনুমতি ছাড়াই পাসপোর্ট ইস্যুতে আইনে পরিবর্তন এনেছে সৌদি আরব। নারী স্বাধীনতার এই অগ্রগামী পদক্ষেপের জন্য সৌদি আরবকে অভিনন্দন জানিয়েছেন তিনি। দুবাইতে রোববার নারী উদ্যোক্তা ও আঞ্চলিক

নেতাদের এক সমাবেশে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের এই কন্যা ও উপদেষ্টা বলেন, আমরা জানি, যখন নারীরা স্বাধীন থাকেন, তখন তারা সফল হন, পরিবারে সমৃদ্ধি ঘটে, সম্প্রদায়গুলো বিকশিত হয় ও রাষ্ট্রগুলোও আরও শক্তিশালী হয়। এর আগে ২০১৮ সালে নারীদের গাড়ি চালানোর ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয় সৌদি আরব। দেশটির ভিশন ২০৩০ সামনে রেখে এই পরিবর্তন আনা হয়েছে।

মূলত তেল ও গ্যাসের ওপর থেকে নির্ভরশীলতা কমিয়ে অর্থনীতিতে আরও বৈচিত্র আনতে এসব পদক্ষেপ নিয়েছে সৌদি।এতে ব্যক্তিগত খাতের প্রবৃদ্ধি ও উদ্যোক্তা বাড়বে বলে মনে করা হচ্ছে। সিংহাসনের উত্তরসূরি মোহাম্মদ বিন সালমানের উত্থানের সঙ্গে সঙ্গে সৌদিতে এসব পরিবর্তন ঘটছে। কেবল সৌদি আরবই না, অন্যান্য আরব দেশের পরিবর্তনের দিকেও আভাস দিয়েছেন ট্রাম্প কন্যা। ৩৮ বছর বয়সী এই নারী বলেন,

কর্মক্ষেত্রে বৈষ;;ম্যের বি;;রুদ্ধে আইনপ্রণয়ন করেছে বাহরাইন। কর্মক্ষেত্রে রাতে নারীদের কাজের সক্ষমতার ওপর বিধিনিষেধ তুলে নিয়েছে জর্ডান। নারীদের ভূমি অধিকার বাড়িয়েছে মরোক্কো। আর গৃহ;;সহিংসতার বি;;রুদ্ধে নতুন আইন করেছে তিউনেশিয়া। তবে আরও বহু কাজ বাকি আছে বলে মনে করেন এই তিন সন্তানের জননী। ইভানকা বলেন, মধ্যপ্রাচ্যে বর্তমানে গড়ে একজন পুরুষের তুলনায় নারীর অধিকার অর্ধেক।