হোক মৃত্যু খালেদা জিয়ার, তবু প্যারোল নয়: মেজর আখতার

কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে নিয়ে সামাজিকমাধ্যমে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন দলটির সাবেক সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা মেজর (অব.) আখতারুজ্জামান।সম্প্রতি নিজের ফেসবুক আইডি থেকে দেয়া ওই স্ট্যাটাসে তিনি বলেন, দেশমাতা খালেদা জিয়া জনগণের। জনগণ ভাববে দেশমাতাকে নিয়ে। খালেদা জিয়া মানে দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব। খালেদা জিয়া মানে গণতন্ত্র,

গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থা, আইনের শাসন। ‘খালেদা জিয়া স্বৈরশাসকদের ত্রাস। তিনি কারাগারে আটক আছেন, বন্দি নয়। খালেদা জিয়ার মৃত্যু আছে, ধ্বংস নেই। তিনি অবিনশ্বর, অমর।’মেজর আখতার আরও বলেন, খালেদা জিয়ার অপর নাম মাথা তুলে বাঁচা। খালেদা জিয়ার নাম আপসহীন, অন্যায়ের প্রতিবাদ।‘মৃত্যু হবে জালিমের কারাগারে তবু

মাথা নোয়াবে না কোনো স্বৈরাচারী একনায়কের কাছে। প্যারোলে মুক্তির চেয়ে জালিমের কারাগারে মৃত্যু অনেক বেশি মহৎ ও গর্বের এবং সেই মৃত্যুকে তিনি হাসিমুখে বরণ করে নেবেন। বিএনপির এ নেতা বলেন, আমাদের দুর্বল চিত্তের আপনজন হলে হবে না। আমাদের কঠিন ইস্পাত শপথ নিয়ে মাথা তুলে দাঁড়াতে হবে দেশমাতার মুক্তি সংগ্রামে। তা হলে ইতিহাসে প্রমাণিত হবে দেশমাতার আপন ছিলাম আমরা।

আরো পড়ুন… প্যারোলে মুক্তি পাচ্ছেন খালেদা জি। কারাবন্দি সাবেক প্রধানমন্ত্রী বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া প্যারোলে মুক্তি চেয়ে আবেদন করলে ‘বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনার জন্য’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘আন্তরিক থাকবেন’ বলে মন্তব্য করেছেন স্থানীয় সরকারমন্ত্রী তাজুল ইসলাম। খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর ‘মানবিকতা’ চেয়ে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে ফোন করার পর দিন এ কথা বললেন সরকারের এই গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী।

গতকাল শনিবার ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলা পরিষদের সম্প্রসারিত ভবন উদ্বোধন ও বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন তিনি।এ সময় রাষ্ট্র খালেদা জিয়ার বিষয়ে আন্তরিক জানিয়ে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী বলেন, ‘খালেদা জিয়া জেলখানায় আছেন, উনি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। সংবিধানের দৃষ্টিতে সব নাগরিক সমান সুযোগ পাবেন,

বেগম জিয়া যেহেতু একটি দলের প্রধান এবং উনি সাবেক প্রধানমন্ত্রী তার ব্যাপারে রাষ্ট্র অত্যন্ত আন্তরিক।’ এ সময় আইনের বিধির কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়া প্যারোলে মুক্তির আবেদন করলে রাষ্ট্রের প্রচলিত আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।’ এ সময় ওবায়দুল কাদের খালেদা জিয়াকে প্যারোলে মুক্তি দেয়ার আশ্বাস দেন।

এ সময় প্রধানমন্ত্রীও আন্তরিক জানিয়ে তিনি বলেন, ‘যেটুকু সুযোগ আছে, সীমাবদ্ধতা এবং সুযোগ সবই আমার মনে হয় রাখবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রত্যেক নাগরিকের জন্য যেমনি আন্তরিক, খালেদা জিয়ার বেলায়ও সেখানে গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করার জন্য আন্তরিক থাকবেন। কিন্তু সংবিধান ও রাষ্ট্র ব্যবস্থাপনার যত সুযোগ আছে সেই সুযোগের বেশি তো আর দেয়া যায় না।’