গোয়াল ঘরে সৌদি প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষণ করে ভিডিও করলো দুধ বিক্রেতা

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলায় এক গৃহবধূকে ধ’র্ষণের অভিযো’গে আমির হোসেন (৪৫) নামের এক দুধ বিক্রেতাকে আ’টক করেছে পুলিশ। শনিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে উপজেলার কাশিনগর ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে। ভু’ক্তভো’গি গৃহবধূ একই ইউনিয়নের সৌদি আরব প্রবাসীর স্ত্রী। খোঁজ নিয়ে যানা যায়, আমির হোসেন দুধ ক্রয়-বিক্রয়ের কাজ করেন।

সে সুবাদে দীর্ঘদিন ধরে তিনি ওই নারীর বাড়ি থেকে গাভীর দুধ ক্রয় করে আসছেন। প্রতিদিনের মত শনিবার আমির ওই বাড়িতে গাভীর দুধ নিতে যান। এক পর্যায়ে তিনি ভু’ক্তভো’গীকে দুধ মাপার কথা বলে গোয়াল ঘরে ডেকে নিয়ে ধ’র্ষণের চেষ্টা করেন। এতে ব্যর্থ হয়ে তার মুখে গামছা দিয়ে এবং হাত-পা রশি দিয়ে বেঁধে ধ’র্ষণ করা হয়। এ সময় ধ’স্তাধ’স্তির এক পর্যায়ে ওই গৃহবধূর

হাতে ছু’রি দিয়ে আঘা’ত করেন আমির। ছাড়া বিব’স্ত্র করে মোবাইলে ভিডিও চিত্রও ধারণ করেন তিনি। আমির চলে যাওয়ার সময় পাশের ঘরের নারীরা বিষয়টি টের পেয়ে স্থানীয় লোকজনকে জানায়। এ সময় তারা আমিরকে আ’টক করে বেঁধে রেখে পুলিশে খবর দেয়।চৌদ্দগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল্লাহ আল-মাহফুজ জানান,

ধ’র্ষণের ঘটনায় স্থানীয়রা এক দুধ বিক্রেতাকে আ’টক করে। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ভু’ক্তভো’গি গৃহবধূকে চিকিৎসার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে। ডাক্তারি পরীক্ষায় জানা যাবে ওই গৃহবধূ ধ’র্ষ’ণের শি’কার হয়েছেন কিনা।তিনি আরও জানান, বর্তমানে আমির হোসেন পুলিশের কাছে আ’টক রয়েছে। মা’মলা হলে তাকে কা’রাগারে পাঠানো হবে।

আজকের আলোচিত খবর…প্রবাসীর স্ত্রীর গোসলের ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়ানোর ভ’য় দেখিয়ে একাধিকবার ধ’র্ষণ। কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে প্রবাসীর স্ত্রীর গোসলের ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়ানোর ভ’য় দেখিয়ে টানা পাঁচদিন ধ’র্ষণ করেছে মো. মামুন নামের এক যুবক। সে উপজে’লার শ্রীপুর ইউপির নারচর গ্রামের ওহাব ডাক্তারের বাড়ির মকবুল আহাম্মদের ছেলে। এ ঘটনায় ধ’র্ষক মামুনসহ তিনজনকে আ’সামি করে নারী ও শি’শু নি’র্যাতন দ’মন আইনে মা’মলা করেছে ভু’ক্তভোগী প্রবাসীর স্ত্রী। অপর দুই আ’সামিরা হলেন মামুনের পিতা মকবুল আহাম্মদ ও সহযোগী একই ইউপির বারৈয়া গ্রামের রুবেল।

মা’মলা সূত্রে জানা গেছে, ভু’ক্তভোগী নারীর স্বামী সৌদি আরব থাকেন। ফলে তিনি জমজ সন্তানসহ নারচর গ্রামে বাবার সঙ্গে বাস করেন। আ’সামিরা প্রতিবেশী হওয়ার সুবাদে তাদের ঘরে নিয়মিত যাতায়াত করতো। দেড় বছর আগে প্রবাসীর স্ত্রী বাথরুমে গোসল করা অবস্থায় গো’পনে অ’ভিযুক্ত মামুন মোবাইল ফোনে স্থিরচিত্র ও ভিডিও ধারণ করে। মামুন অসৎ উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য

প্রতিনিয়ত ওই স্থিরচিত্র ও ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়ানোর ভ’য় দেখিয়ে বিভিন্ন সময়ে পাঁচ লাখ টাকা আদায় করে। গত ৩১ জানুয়ারি মোবাইল ফোনের মাধ্যমে মামুন প্রবাসীর স্ত্রীকে ভ’য়ভীতি দেখিয়ে স্বর্ণালঙ্কার ও টাকা নিয়ে কাশিনগর বাজারে যেতে বলে। প্রবাসীর স্ত্রী তার আট ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ চল্লিশ হাজার টাকা নিয়ে কাশিনগর বাজারে যায়। সেখানে মামুন তার সহযোগী রুবেলের সহায়তায় জো’রপূর্বক স্বর্ণালঙ্কার ও টাকা লুটে অ’পহরণ করে চট্টগ্রাম নিয়ে যায়।

পরে প্রবাসীর স্ত্রীকে রুবেলের নানার বাড়িতে নিয়ে জো’রপূর্বক ধ’র্ষণ করে। পরবর্তীতে দুই ফেব্রুয়ারি প্রবাসীর স্ত্রীকে ঢাকায় একটি ব্যাচেলর বাসায় নিয়েও ধ;’র্ষ;ণ করে। ৪ ফেব্রুয়ারি বিকেলে প্রবাসীর স্ত্রী কৌশলে বাসা থেকে বের হয়ে বাসে করে বাবার বাড়িতে চলে আসে। ঘটনাটি পরিবারের লোকজনকে অবহিত করলে তারা মামুনের বাবাকে বি’ষয়টি জানালে তিনি উল্টো হু’মকি দিতে থাকেন।

এ ঘটনায় ১০ ফেব্রুয়ারি কুমিল্লা আ’দালতে ওই তিনজনকে অ’ভিযুক্ত করে মা’মলা দা’য়ের করা হয়। এ ব্যাপারে মা’মলার বা’দীর অ্যাডভোকেট সোনিয়া জানান, আ’দালতের নির্দেশে মা’মলাটি পিবিআই ত’দন্ত করছে। পিবিআই কুমিল্লার এডিশনাল এসপি ওসমান গণির সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি একটি মিটিংয়ে আছি। মা’মলার নথি দেখে পরে বিস্তারিত জানাব।