আমার সাফল্যের পেছনে অদিতির ভূমিকা অ’নস্বীকার্য: অপূর্ব

ভালোবেসে হাতটা ধরলেও ৯ বছরেই ভেঙে যায় সুখের সংসারটা। ছোট পর্দার জনপ্রিয় অ'ভিনেতা জিয়াউল ফারুক অ’পূর্ব ও নাজিয়া হাসান অদিতিকে এতদিন সুখী দম্পতি হিসেবে জেনে আসলেও সেই সংসারে এখন বিচ্ছেদের ঘনঘটা।

রোববার বিকালে নিজের ফেসবুকে রিলেশনশিপ স্ট্যাটাস ‘ম্যারিড’ পরিবর্তন করে ‘ডিভোর্সড’ লিখেন অ’পূর্বের স্ত্রী। এরপর নিজের ফেসবুকে নিজেদের অবস্হান পরিষ্কার করে একটি স্ট্যাটাস দেন অদিতি।

অনেক যোগাযোগের পরও মুঠোফোনে পাওয়া যায় নি এ দুজনকে। এরপর অদিতি নিজের অবস্হান পরিষ্কার করে স্ট্যাটাস দেন এবং জানান তাদের এমন সি'দ্ধান্তে যেন সবাই তাদের পাশে থাকেন এবং সা'পোর্ট করেন। অ’পূর্বর ব্যক্তিগত জীবন নয়, তাঁর কাজ দিয়েই যেন সবাই তাঁকে বিচার করেন।

এরপর রোববার মধ্যরাতে নিজের ফেসবুকে এ বি'ষয়ে স্ট্যাটাস দেন অ’পূর্ব। সেখানে তিনি লিখেন,

আপনাদের ওপর শান্তি বর্ষিত হোক। ভারী ও ক্ষত হৃদয়ের জানাচ্ছি যে, আমি আমা'র ৯ বছরের সংসার জীবনে নাজিয়া হাসানের সাথে আমা'র যাত্রা ছিল দুর্দান্ত, সে এসেছিলো অযাচিত মোড়কে এবং আমাকে কিছুটা 'হতবাক করে দিয়েছে। যদিও এটি আমর'া নিজের জন্য চেয়েছিলাম তা নয়। কিন্তু দুঃখের বি'ষয় এখানেই আজ আমা'দের জীবন এনে দিয়েছে।

এত বছর যাব'ত আমর'া এক সাথে ছিলাম। সবকিছুর সর্বদা দুর্দান্ত অংশীদার এবং সত্যিকারের শুভাকাঙ্ক্ষী ছিলো সে। আমা'র অনেক সাফল্যের পেছনে অদিতি মূল ভূমিকা পালন করেছে। অদিতি খুব অমায়িক, একজন আ'ত্মবিশ্বা'সী উদ্যোক্তা এবং সর্বোপরি অত্যন্ত দয়ালু এবং মানবিক ব্যক্তি।

তিনি আরও লিখেন, যদিও আমি আমা'র ক্যারিয়ারে অনেককিছু অর্জন করেছি, তবুও আমা'র সর্বকালের সবচেয়ে বড় অর্জন সর্বদা আমা'দের ছেলে আয়াশ। পিতৃত্বের এই দুর্দান্ত উপহারের জন্য আমি নাজিয়াকে পর্যা'প্ত পরিমাণে ধন্যবাদ জানিয়ে শেষ করতে পারব না। তিনি আমা'র সন্তানের অনুকরণীয় মা হয়েছেন এবং আমা'দের ছেলের প্রতিপালনের অংশীদার হিসাবে আমা'দের যাত্রা সর্বদা অব্যা'হত থাকবে।

আমি বুঝতে পারি যে বিয়ের মতো একতা ভা''ঙ্গা অনেক প্রশ্ন উত্থাপন করতে পারে, তবে আমি আমা'র বন্ধুবান্ধব, আমা'র সহকর্মীদের এবং আমা'র লাখো ভক্তদের অনুরোধ করছি যে দয়া করে আমা'দের ভাবুক। আমা'দের সবার পক্ষে এটিই সর্বোত্তম বিশ্বা'স করি যে, আমা'দের উভয় পরিবার সহায়ক ছাড়াও কিছু ছিল। আমি আশা করি যে আপনিও তাই করবেন যাতে আমি এবং নাজিয়া আমা'দের এই পরীক্ষার কঠিন সময়গু'লি পার করতে পারি।

আশা করবো আমা'দের তিনজনকে আপনারা আপনাদের প্রার্থনায় রাখবেন। ২০১১ সালের ১৪ জুলাই ভালোবেসে নাজিয়া হাসান অদিতিকে বিয়ে করেন অ’পূর্ব। তাদের সেই সংসারে জায়ান ফারুক আয়াশ নামে একটি পুত্র সন্তান রয়েছে।