যে ৩ খাবার খেলে দ্রুত কমবে পেটের অতিরিক্ত চর্বি

যে ৩ খাবার খেলে দ্রুত কমবে পেটের অতিরিক্ত চর্বি

পেটের অতিরিক্ত চর্বি হচ্ছে রোগের বাসা। তাই সুস্থ থাকতে হলে অতিরিক্ত চর্বি কমিয়ে ফেলতে হবে। অনিয়ন্ত্রিত খাদ্যাভ্যাস ও অনিয়মিত জীবনযাপনের হাত ধরে শরীরে জমে বাড়তি চর্বি। চর্বি কমানোর জন্য আমরা বিভিন্ন ধরনের ডায়েট করে থাকি। তবে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া এসব করা ঠিক নয়। কারণ এতে চর্বি তো কমবেই না, বরং বিভিন্ন ধরনের শারীরিক ক্ষতি হবে।

পুষ্টিবিদ সুমেধা সিংয়ের মতে, এমন কিছু ফ্যাটজাতীয় খাবার রয়েছে, যা ডায়েটে যোগ করলে চর্বি তো বাড়েই না, উল্টে তা কমাতে সাহায্য করে। বিশেষ করে বাদামসহ কিছু ড্রাই ফ্রুটস। অনেকের ধারণা, বাদাম ও ড্রাই ফ্রুটস বোধহয় মেদ বাড়িয়ে তোলে। কিন্তু নিয়ম মেনে ও প্রতি দিনের ডায়েটে এদের রাখলে চর্বি কমায়। আসুন জেনে নিই এমন কিছু খাবার সম্পর্কে যা খেলে অতিরিক্ত চর্বি কমবে। খেজুর: উচ্চ ক্যালোরির ডায়েটে বিশেষ কাজে আসে খেজুর। এতে ক্যালোরি খুব বেশি ও সহজে পেট ভরে বলে ক্ষুধা কম লাগে।

কয়েকটা খেজুর অনেক ক্ষণ খিদে কমিয়ে রাখতে পারে। তাই প্রতিদিন ৪-৫টা খেজুর রাখুন পাতে। এতে ওজন কমবে। কাজুবাদাম: খারাপ কোলেস্টেরলকে ভালো কোলেস্টেরলে পরিবর্তিত করে এই কাজুবাদাম। শরীরের প্রয়োজনীয় তেলের জোগানও কিছুটা মিটিয়ে দিতে পারে কাজুবাদাম। তাই ৪-৫টা কাজুও রাখুন ডায়েটে।

কিশমিশ: স্বাদে মিষ্টি বলে অনেকে ফ্যাট আসার ভয়ে এই খাবারকে সরিয়ে রাখেন। আসলে চর্বি কমাতে এর ভূমিকা অসীম। কিশমিশ খেলেই শরীরে রাসায়নিক বিক্রিয়া ঘটতে শুরু করে, যা শ্বাসপ্রশ্বাসের হারকে কিছুটা কমায়। এ ছাড়া এতে ‘গাবা’ নামক শক্তিশালী নিউরোট্রান্সমিটার থাকায় তা খিদে নিয়ন্ত্রণ করে। তাই কিশমিশও রাখুন ৩-৪টি।

আরো পড়ুন… বয়সের সাথে সাথে মানুষের চিন্তাশক্তি, স্মৃতিশক্তি কমতে থাকে। একটা সময়ে গিয়ে এটি ব্যাপক আকার ধারণ করে। একবার ভাবুন তো, কোনো কিছু মনে রাখতে পারছেন না আপনি। ফোন নম্বর, কলিগের নাম, এমনকি প্রিয় বন্ধুর জন্মদিন! এমনটি হবার কথা ভাবতেই ভয় লাগে, তাই না?

কিন্তু সত্য হল, জীবনের এক সময়ে এইরকম পরিস্থিতিতে আপনাকে পড়তে হবে। তবে এই পরিবর্তন যদি বয়স হওয়ার আগে ঘটে, তবে তা কারোরই কাম্য নয়। গবেষণায় দেখা গেছে কিছু অভ্যাস মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। এই অভ্যাসগুলো আয়ত্তে আনতে পারলে মস্তিষ্কের উৎকর্ষতা বৃদ্ধি পাবে।

১. গ্রুপিং এবং সম্পর্কযুক্ত শব্দ আপনি যখনই নতুন কোনো কিছুর সাথে পরিচিত হবেন বা নতুন কোনো কিছু শিখবেন সেই সম্পর্কযুক্ত আরেকটি শব্দ খুঁজে বের করুন। যেই শব্দটির সাথে আপনি পূর্বেই পরিচিত। যেমন নতুন কোনো মানুষের সাথে পরিচিত হলে তার নাম মনে রাখার জন্য সেই নামের সাথে মিল এমন কোনো পরিচিত মানুষের কথা মনে করুন। দেখবেন ভবিষ্যৎ তার নাম ভুলে যাচ্ছেন না। ফোন নাম্বার মনে রাখার জন্য বড় নাম্বারটি ভেঙ্গে ভেঙ্গে মনে রাখুন, যেমন ১১ সংখ্যার কোনো নম্বরকে ৩ সংখ্যা ৩ সংখ্যা করে মনে রাখুন।

২. নিয়মিত ব্যায়াম এবং স্বাস্থ্যকর খাবার বৈজ্ঞানিকভাবে প্রমাণিত হয়েছে ব্যায়াম মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করে থাকে। আপনি যতবার ব্যায়াম করবেন, ততবার আপনার মস্তিষ্কে একটি করে নতুন কোষ তৈরি হয়ে থাকে।ব্যায়াম মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধির সবচেয়ে সহজ এবং ভাল উপায়।

আমাদের শরীরের যেমন জ্বালানির প্রয়োজন পড়ে,তেমনি ব্রেনেরও জ্বালানির প্রয়োজন পড়ে। আমরা সবাই জানি ফল, শাকসবজি, মাছ স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। ফল, শাকসবজির সাথে ওমেগা থ্রি সমৃদ্ধ খাবার, বাদাম, বিনস, পালং শাক, মিষ্টি কুমড়োর বীচি, সামুদ্রিক মাছ, রঙিন ফল, গ্রীণ টি ইত্যাদি খাবার মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে।

৩. ঘুম ঘুমকে আমরা অনেকেই গুরুত্ব দেই না। কিন্তু শরীর এবং মনকে সুস্থ রাখতে ঘুমের ভূমিকা অপরিসীম। ঘুম মস্তিষ্কের অন্যতম ডিটক্সিফাইন কর্ম। ঘুমের সময় আমাদের শরীরে কোষের পূর্ণবিন্যাস করে এবং বিষাক্ত পদার্থ দূর করে থাকে। চেষ্টা করুন রাত ৯টা থেকে ১০টার মধ্যে ঘুমাতে যাবার। মধ্যরাত ঘুমের জন্য সবচেয়ে ভাল সময়।

৪. মেডিটেশন স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধিতে মেডিটেশন অন্যতম একটি মাধ্যম। ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালফোনিয়ার গবেষকরা ৪৮ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে গবেষণা করে দেখেছেন যে মেডিটেশন মস্তিষ্কের উৎকর্ষতা বৃদ্ধি করে। তারা শিক্ষার্থীদেরকে দুই ভাগে ভাগ করে দেখেছেন, এর মধ্যে এক ভাগ পুষ্টি বিষয়ক ক্লাস করেছেন, আরেক ভাগ মেডিটেশন গ্রহণ করেছেন। ক্লাস শেষে তারা দেখতে পান যারা মেডিটেশন করেছেন তাদের স্মৃতিশক্তি অধিক বৃদ্ধি পেয়েছে অন্যদের তুলনায়।

৫. স্ট্রেস থেকে দূরে থাকুন স্ট্রেস আপনার স্মৃতিশক্তি নষ্ট করে দেওয়ার জন্য অনেকখানি দায়ী। স্ট্রেস আপনার সাময়িক স্মৃতিশক্তি নষ্ট করার সাথে সাথে দীর্ঘমেয়াদী স্মৃতিশক্তিও নষ্ট করে থাকে। স্ট্রেস কমানোর সহজ এবং কার্যকরী উপায় হল লম্বা শ্বাস গ্রহণ করা। এটি মস্তিষ্কে রক্ত চলাচল স্বাভাবিক রেখে মস্তিষ্ককে সচল রাখে।

এই অভ্যাসগুলোর পাশাপাশি ধূমপান, মদ্যপান থেকে বিরত থাকুন। নিয়মিত বই পড়ার অভ্যাস করুন, এটি আপনাকে নেতিবাচক চিন্তা থেকে দূরে রাখবে। ছোটখাটো হিসাব করার জন্য ক্যালকুলেটর ব্যবহার করা বন্ধ করুন। ইলেকট্রনিক্স ডিভাইস বা ক্যালকুলেটরের উপর নির্ভরতা আমাদের মস্তিষ্ককে অলস করে দেয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 newstodaybd.com
Design BY NewsTheme