সর্বশেষ আপডেট
পবিত্র কোরআনের হাফেজের মুখে লাথি মেরেছিল বুয়েট ছাত্রলীগ সভাপতি । মা’রতে মা’রতে ঘে’মে যায় অনিক, পা ধরে অ’নুনয় করেছিলো আবরার । যৌ’নপল্লীতে যাওয়া পুরুষদের গোপন তথ্য ফাঁ’স । গাছে ঝুলন্ত শিশুর পেটে বিদ্ধ দুটি ছুরিতে দুজনের নাম । দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা ভালো থাকলে বিনা মূল্যে হজ্জ পালনের সুযোগ দিতামঃ ইমরান খান । হাজারো ভক্তের হৃদয় ভেঙে বিয়ের পিঁড়িতে বসতে যাচ্ছেন সাবিলা নূর । বিসিএস সিলেবাস, যার শুরু আছে কিন্তু শেষ বলে কিছু নেই । লাক্স সুন্দরী এখন স্বামীসহ বিসিএস ক্যাডার । আবরার ফাহাদকে নিয়ে ভারতীয় তরুণীর যে হৃ*দয়*স্পর্শী স্ট্যাটাস ভা*ইরাল । চোখে নেই আলো, কুরআনের আলোয় আলোকিত ওরা তিন হাফেজ ।
ওজন বাড়ার যেসব কারণ খুঁজে পেয়েছেন গবেষকরা ।

ওজন বাড়ার যেসব কারণ খুঁজে পেয়েছেন গবেষকরা ।

বছরে একজন মানুষের কম পক্ষে আধা থেকে এক কেজি করে ওজন বাড়ে। যদিও মনে হচ্ছে এই পরিমাণ খুবই কম কিন্তু কয়েক বছরের মধ্যে এটা সাড়ে চার থেকে ৯ কেজি বেড়ে যায়।

স্বাস্থ্যকর খাবার ও নিয়মিত ব্যয়াম ওজন কমাতে সাহায্য করে। কিন্তু অনেকের আবার এসব করা সত্ত্বেও ওজন বেড়ে যায়। এর কয়েকটি কারণ খুঁজে পেয়েছেন গবেষকরা। আজকের পৃথিবীতে সবাই যার যার কাজে ব্যস্ত। একারণে অনেকে খাবারটাও অতি দ্রুত খায়। কিন্তু গবেষকরা বলছেন,

তাড়াহুড়া করে খাবার খেলে ওজন বাড়ে। গবেষণায় দেখা গেছে, যারা তাড়াহুড়া করে খায় তাদের মধ্যে মোটা হওয়ার প্রবণতা বেশি। দ্রুত খাবার খেলে পেট ভরে গেলেও মস্তিষ্ক শরীরকে সংকেত দিতে পারে না। একারণে ওজন কমাতে হলে খাবার ভালো করে চিবিয়ে ধীরে ধীরে খেতে হবে।

পর্যাপ্ত পানি পান না করলে পিপাসা লাগে। আর পিপাসা পেলে বারবার খাবার খেতে ইচ্ছে হয়। এক গবেষণায় দেখা গেছে, যারা সকালের নাস্তার আগে অন্তত দুই কাপ পানি পান করেন তারা অন্যদের চাইতে কমপক্ষে ২২ শতাংশ পরিমাণ কম ক্যালরির খাবার খান। পানিতে কোনো ক্যালরি থাকে না।

যদি খালি পেটে খালি পানি পান করতে কষ্ট হয় তাহলে পানির সঙ্গে শসা, লেবু অথবা অন্য কোনো ফল যোগ করতে পারেন। বেশি বেশি সামাজিক হওয়াটাও বিপদজনক। কারণ বেশি সামাজিক হলে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যেতে হয়। আর সেইসব অনুষ্ঠানে বিভিন্ন ধরনের ওজনসমৃদ্ধ খাবার, অ্যালকোহল থাকে। এসব নিয়মিত খেলে ওজন বাড়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

একটানা অনেকক্ষণ বসে থাকলেও ওজন বাড়ে। গবেষণায় দেখা গেছে, যারা দীর্ঘক্ষণ বসে কাজ করেন তাদের মধ্যে মোটা হওবার প্রবণতা বাড়ে। সেই সঙ্গে নানা ধরনের অসংক্রামক রোগের সম্ভাবনা এবং অকাল মৃত্যুর ঝুঁকি বেড়ে যায়।

ঘুম পর্যাপ্ত না হলেও ওজন বাড়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়। গবেষণায় দেখা গেছে, যারা গড়ে ৫ ঘণ্টার কম ঘুমান তাদের মধ্যে মোটা হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।যারা বিশ্রাম নেওয়ার একদম সময় পান না তারাও মোটা হওয়ার ঝুঁকিতে আছেন।

টেলিভিশন দেখতে দেখতে, ইন্টারনেট ব্রাউজিং করতে করতে কিংবা নিউজপেপার পড়তে পড়তে অনেকে খাবার খান। মনোযোগ দিয়ে খাবার না খেলে বেশি খাওয়ার প্রবণতা বেড়ে যায়। সেই সঙ্গে মোটা হোয়ার আশঙ্কাও থাকে।

প্রোটিন, ফাইবারযুক্ত খাবার পর্যাপ্ত পরিমাণে না খেলেও ওজন বাড়ে। অনেকে আছেন দুই, তিনতলা উঠতেও সিড়ির পরিবর্তে লিফট ব্যবহার করেন। এ ধরনের প্রবণতা ওজন বাড়াতে সাহায্য করে।

বেশিমাত্রায় ফাস্টফুড খেলে ওজন বাড়ে। আবার বেশি পরিমাণে দুধ দিয়ে তৈরি কফিও ওজন বাড়ায়। এক গবেষণায় দেখা গেছে , যারা অনিয়মিতভাবে খাবার খায় তাদের মধ্যে মোটা হওয়ার আশঙ্কা থাকে। অনিয়মিত সময়ে খাবার খেলে অসংক্রামক রোগের ঝুঁকিও বাড়ে। এজন্য প্রতিদিন একটা নির্দিষ্ট সময়ে খাবার খাওয়া উচিত।

সংবাদটি শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 newstodaybd.com
Design BY NewsTheme
[X]