সর্বশেষ আপডেট
এসএসসির ফরম পূরণে অতিরিক্ত অর্থ আদায়, অসহায় মায়ের কান্না । সৌদিতে না’রী ক’র্মীর বিষয়টি খুবই জটিলঃ পররা’ষ্ট্র ম’ন্ত্রী । মালয়েশিয়ার আদালতে ৪ বাংলাদেশি না’রীর কা’রাদ’ন্ড।, নেপথ্যে যে কারণ… ইতালিতে ম’সজিদে এ’কযো’গে হা’মলার প’রিক’ল্পনাঃ বিপুল পরিমান অ’স্ত্র উ’দ্ধার । মক্কায় ক্রে’ন দু’র্ঘটনাঃ আ’হত বাংলাদেশিকে যে প’রিমাণ ক্ষ’তিপূ’রণ দেয়া হলো । সৌদিতে গৃ’হক’র্মী নি’র্যা’ত’ন, দ্রু’ত’ই আ’সছে না কোন সু’সংবা’দ । গুলতেকিনের দ্বিতীয় বিয়ে নিয়ে যা বললেন বড় ছেলে নুহাশ । সৌদি থেকে ফিরেছে ৫৩ নারীর মরদেহ, যা বললেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী । কিশোরগঞ্জে কুমারী মাতার সন্তান প্রসব নিয়ে তোলপাড় । মেয়েরা মিলনের চেয়েও বেশি পছন্দ করে এই বিষয়গুলো ।
নাইমের সেরা ইনিংস তবুও যে কারণে হারলো বাংলাদেশ ।

নাইমের সেরা ইনিংস তবুও যে কারণে হারলো বাংলাদেশ ।

একজনের উপর ভর করে ম্যাচ জিতা সবসময় সম্ভব না,রান যখন ১৮০ ছুই ছুই,২ জন অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান ০ রানে সাজ ঘরে,ইতিহাস গড়ার ম্যাচে এভাবে হারতে হলো আর কি কৈফিয়ত দিবেন! কাকে দোষ দিবেন এবার। বাংলাদেশ ভারতের থেকে এগিয়ে ছিল, শুধু মুশফিক যদি দায়িত্ব নিয়ে খেলতো তাহলে শেষ হাঁসিটা আমরাই হাঁসতাম ভারত নাইমের মার দেখে ভয়ে ছিল। আজকের ম্যাচ টা একটু দায়িত্ব নিয়ে খেললে জেতা সম্ভব ছিলো কিন্তু সেটা আর হয়েও হলো না।

আর এখানে সবচাইতে বড় ভুলটা হয়েছে আমার কাছে মনে হয় মুশফিকুর রহিমকে পরে ব্যাটিংয়ে নামানো টা মিঠুনের জায়গায় মুশফিক নামলে আজকে ম্যাচটা আমরা জিততে পারতাম আমার মনে হয়। মোহাম্মদ মিথুন খুব খারাপ খেলছে সেটা কিন্তু না মিঠুনের ব্যাটিংটা টি-টোয়েন্টি ধাঁচের ছিল না ওয়ানডে ধাঁচের ছিলো। নাগপুরে সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচে নাইমের ৮১ চমৎকার ইনিংসের পরেও হারতে হয় বাংলাদেশকে। ভারতের হয়ে ব্যাট হাতে সর্বোচ্চ ৬২ করে শ্রেয়াস আইয়ার।

বল হাতে হ্যাটট্রিক করেন দিপাক চাহার। ভারতের দেওয়া ১৭৫ রানের লক্ষ্যে ব্যাটিং করতে নেমে শুরুতেই উইকেট হারায় বাংলাদেশ। লিটন ভালো শুরুর আশ্বাস দিলেও চাহারের বলে ক্যাচ তুলে দেন লিটন। তার বিদায়ের পরেই প্রথমবলে আউট হন সৌম্য। দ্রুত দুই উইকেট পড়লে শুরুতে চাপে পড়ে বাংলাদেশ। পাওয়ার-প্লের শেষ ওভারে চাহালের ওভারে রানের দলের রান বাড়ান তরুণ ওপেনার নাইম। তারপর থেকেই রানের সংগ্রহ বাড়াতে থাকেন নাইম ও মিঠুন মিলে।

নাইম দেখা পান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের প্রথম ফিফটি। দুই ব্যাটসম্যানের দায়িত্বশীল ব্যাটিং দলকে জয়ের আশা দেখাতে থাকে। তবে দলীয় ১১০ রানে চাহারের বলে ২৭ রান করে আউট হন মিঠুন। সেই সাথে ভাঙে ৯৮ রানের জুটিও। মিঠুনের বিদায়ের পরেই দুবের প্রথম বলেই বোল্ড হন মুশফিক। তার বিদায়ে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে বাংলাদেশ। তখনও দলকে জেতার আশা দেখাতে থাকেন নাইম। তবে দলীয় ১২৬ রানে ব্যক্তিগত ৪৮ বলে ৮১ রানের ইনিংস খেলে আউট হন নাইম।

পরের বলেই দুবের বলে আউট হন আফিফও। তখনই ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় অনেকটা। মাহমুদউল্লাহ যেন কিছু করতে পারলেন না। চাহালকে ডাউন দ্য উইকেটে মারতে এসে বোল্ড হন তিনি। তার বিদায়ের পর ম্যাচ থেকে পুরোপুরি ছিটকে যায় বাংলাদেশ। শেষদিকে হ্যাটট্রিক করেন দিপাক চাহার। সাত রানে তুলে নেন ছয় উইকেট। শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশের ইনিংস থামে ১৪৪ রানে। এর আগে টস হেরে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় মাহমুদউল্লাহ। এবারও শুরুতে রোহিতকে ফেরান শফিউল।

ধাওয়ান ফিরে যান ব্যক্তিগত ১৯ করে। ৩৫ রানে দুই উইকেট পড়লে সেখান থেকে দলকে ম্যাচে ফেরান শ্রেয়াস আইয়ার ও লোকেশ রাহুল। শুন্য রানে শ্রেয়াসের ক্যাচ ফেলে দেন আমিনুল। সেটির খেসারত দিতে হয় দলকে। জীবন পেয়ে সেই সুযোগের সঠিক ব্যবহার করেছেন তিনি। জীবন পেয়ে ফিফটি হাঁকিয়েছেন তিনি। সেই সাথে ফিফটি হাঁকিয়েছেন রাহুলও। ৫২ রান করে আল-আমিনের বলে আউট হন রাহুল। শ্রেয়াসের ৬২ রানের উপর ভর করে ১৭৪ রান সংগ্রহ করে ভারত। বল হাতে দুইটি করে উইকেট লাভ করেন সৌম্য ও শফিউল। সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ ভারত ১৭৪-৫ (ওভার ২০) শ্রেয়াস ৬২, রাহুল ৫২: সৌম্য ২-২৯ বাংলাদেশ ১৪৪ (ওভার ১৯.২) নাইম ৮১, মিঠুন ২৭: চাহার ৬-৭

সংবাদটি শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 newstodaybd.com
Design BY NewsTheme
[X]