সর্বশেষ আপডেট
ভারতে পালানোর সময় গ্রে’ফতার হয় আবরার হ’ত্যার আরেক আসামী ।

ভারতে পালানোর সময় গ্রে’ফতার হয় আবরার হ’ত্যার আরেক আসামী ।

ভারতের সঙ্গে চুক্তির বিরোধিতার জেরে ছাত্রলীগের হাতে নি’র্মমভাবে নি’হত বুয়েটের মেধাবী ছাত্র আবরার ফাহাদ হ’ত্যা মা’মলার এজাহারভুক্ত আ’সামি এএসএম নাজমু’স সাদাতকে গ্রে’ফতার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পু’লিশ। দিনাজপুর জে’লার বিরামপুর থা*নার কাটলা বাজার এলাকা থেকে সোমবার দিনগত রাত সাড়ে ৩টার দিকে তাকে গ্রে’ফতার করা হয়।

বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে পি’টিয়ে হ’ত্যার ঘটনায় ভারতে পালিয়ে যাওয়ার সময় গ্রে’ফতার এজাহারভুক্ত আ’সামি এএসএম নাজমু’স সাদাতকে ৫ দিনের রি’মান্ডে পাঠিয়েছেন আ’দালত। বুধবার ঢাকা মহানগর হাকিম মোরশেদ আল মামুন ভুঁইয়া এ রি’মান্ড মঞ্জুর করেন। এর আগে আ’সামি সাদাতকে আ’দালতে হাজির করে তাকে ১০ দিনের রি’মান্ডে নেয়ার আবেদন করেন মা’মলার ত’দন্তকারী কর্মক’র্তা ডিবি পু’লিশের পরিদর্শক ওয়াহিদুজ্জামান।

শুনানি শেষে আ’দালত তার পাঁচদিনের রি’মান্ড মঞ্জুর করেন। গত সোমবার দিনগত রাত সাড়ে ৩টার দিকে দিনাজপুর জে’লার বিরামপুর থা*নার কাটলা বাজার এলাকা থেকে তাকে গ্রে’ফতার করা হয়। সাদাত বুয়েটের যন্ত্র কৌশল বিভাগের ১৭ ব্যাচের শিক্ষার্থী। তিনি জয়পুরহাট জে’লার কালাই থা*নার কালাই উত্তর পারার হাফিজুর রহমানের ছেলে।

ডিবি সূত্র জানায়, আববার হ’ত্যাকা’ণ্ডের পর থেকে পলাতক ছিলেন সাদাত। গ্রে’ফতার এড়ানোর জন্য তিনি দিনাজপুর জে’লার হিলি সীমান্ত দিয়ে ভারতে পালানোর চেষ্টা করছিলেন। প্রসঙ্গত, গত ৫ অক্টোবর দিল্লির হায়দরাবাদ হাউসে বাংলাদেশ ও ভারতের প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে দুই দেশের মধ্যে সাতটি চুক্তি ও সমঝোতা স্মা’রক স্বাক্ষরিত হয়। এসব চুক্তির সমালোচনা করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেন বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের তড়িৎ কৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবরার ফাহাদ।

পর দিন রাতে বুয়েট শেরেবাংলা হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে ডেকে নিয়ে আবরারকে পি’টিয়ে হ’ত্যা করে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগের একদল নেতাকর্মী। হ’ত্যার ঘটনায় আবরারের বাবা বরকত উল্লাহ বাদী হয়ে ১৯ জনকে আ’সামি করে রাজধানীর চকবাজার থা*নায় একটি মা’মলা করেন। collected: Dhaka News

বড় ভাইয়ের নির্দেশে মুখে কাপড় গুঁড়ে বুয়েটের মেধাবী শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে নি’র্যাতন করা হয়েছে। বুয়েট ছাত্রলীগ নেতা মেহেদী হাসান রবিন, অনিক সরকার, মনিরুজ্জামান মনির, মোজাহিদুল রহমান ও ইফতি মোশাররফ সকালের নির্দেশেই ফাহাদকে তার রুম থেকে ডেকে আনা হয়।

বুধবার ঢাকা মহানগর হাকিম মোর্শেদ আল মামুন ভূঁইয়ার আ’দালতে ফাহাদ হ’ত্যা মা’মলার এজাহারভুক্ত আ’সামি এএসএম নাজমু’স সাদাত রি’মান্ড শুনানিকালে এসব তথ্য দেন।শুনানি শেষে সাদাতের পাঁচ দিনের রি’মান্ড মঞ্জুর করেন আ’দালত।এর আগে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পু’লিশের (ডিবি) জিজ্ঞাসাবাদেও একই ধরনের তথ্য দিয়েছেন সাদাত।আ’সামিকে আ’দালতে হাজির করে ১০ দিনের রি’মান্ড আবেদন করা হয়।

মা’মলার ত’দন্তকারী কর্মক’র্তা ডিবি পু’লিশের পরিদর্শক মো. ওয়াহিদুজ্জামান এ আবেদন করেন। আবেদনে বলা হয়, গত ৬ অক্টোবর রাত ৮টার দিকে বুয়েট শিক্ষার্থী আবরারকে শেরে বাংলা হলের তার রুম (নম্বর ১০১১) থেকে হ’ত্যার উদ্দেশ্যে ডেকে নিয়ে যায়। ৭ অক্টোবর রাত আড়াইটা পর্যন্ত ওই হলের ২০১১ ও ২০০৫ নম্বর রুমে আ’সামিরা পূর্বপরিক’ল্পিতভাবে ক্রিকেট স্টাম্প ও লা’ঠিসোটা এবং রশি দিয়ে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় নি’র্মম নি’র্যাতন চালায়। এতে ঘটনাস্থলেই আবরার মা’রা যায়।

পরে আ’সামিরা ওই ভবনের দ্বিতীয় তলার সিঁড়িতে ফাহাদের মৃ’তদেহ ফেলে রাখে। কিছু ছাত্র তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃ’ত ঘোষণা করেন।ত’দন্তকালে সাক্ষ্য-প্রমাণে, ভিডিও ফুটেজ বিশ্লেষণ ও পারিপার্শ্বিক সাক্ষ্য-প্রমাণে আ’সামি নাজমু’স সাদাতের প্রত্যক্ষভাবে জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া গেছে।

ইতিপূর্বে আ’দালতে দোষ স্বীকারোক্তি দেয়া আ’সামিদের মধ্যে বেশ কয়েকজন আ’সামি নাজমু’স সাদাতের নাম প্রকাশ করেছে। মা’মলা’টি একটি চাঞ্চল্যকর হ’ত্যা মা’মলা। এজন্য আ’সামিদের ব্যাপক ও নিবিড়ভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করা একান্ত জরুরি।মা’মলার মূল র’হস্য উদ্ঘাটন, এজাহারভুক্ত পলাতক আ’সামিদের গ্রে’ফতার ও অ’জ্ঞাতনামা আ’সামিদের নাম-ঠিকানা সংগ্রহ করে তাদের গ্রে’ফতারের লক্ষ্যে আ’সামিকে রি’মান্ডে নেয়া প্রয়োজন।

বিকাল ৩টার দিকে নাজমু’স সাদাতকে আ’দালতে উপস্থাপন করা হয়। তাকে হাতকড়া পরিয়ে এজলাসের ডকে রাখা হয়। এ সময় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীসহ কয়েক সাংবাদিক আ’সামির সঙ্গে কথা বলেন। নাজমু’স সাদাত বলেন, আমি ফাদকেকে ডেকে আনি। কয়েকজন বড়ভাই আমাদের ডেকে আনতে বলেন।ফাহাদকে যখন তার রুম থেকে ডেকে ২০১১ নম্বর কক্ষে নেয়া হয় তখন আমা’র সঙ্গে ছাত্রলীগের আরও কয়েকজন ছিল।

আমাদের নি’র্যাতনের কারণেই তার মৃ’ত্যু হয়। মা’রধরের এক পর্যায়ে ফাহাদ পানি খেতে চায়।বিকাল ৩টা ১৫ মিনিটের দিকে এজলাসে বিচারক এলে বিচার কার্যক্রম শুরু হয়। শুরুতেই রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী হেমায়েদ উদ্দিন খান হিরণ আ’সামির রি’মান্ড চেয়ে শুনানি করেন।

শুনানিতে তিনি বলেন, এ মা’মলায় ছয় আ’সামি আ’দালতে দোষ স্বীকার করে জবানব’ন্দি দিয়েছে। ওই ছয় জনই এ আ’সামির নাম বলেছে। আ’সামিরা আবরারকে মুখে কাপড় দিয়ে মে’রেছে।পানি পর্যন্ত খেতে দেয়নি। সঠিক সময়ে ডাক্তারও দেখায়নি। এমনকি পু’লিশও ঢুকতে দেয়নি আ’সামিরা। মা’মলার সুষ্ঠু ত’দন্তের স্বার্থে আসমির সর্বোচ্চ রি’মান্ড মঞ্জুর করা হোক।

আ’দালতে আ’সামিপক্ষের কোনো আইনজীবী না থাকায় বিচারক সাদাতের কাছে তার কিছু বলার আছে কিনা তা জানতে চান। জবাবে সাদাত আ’দালতকে বলেন, আমি আবরারকে মা’রিনি। আমি বড়ভাইদের কথায় ফাহাদকে তার রুম থেকে ডেকে নিয়ে আসি। এ পর্যায়ে বিচারক আ’সামির কাছে জানতে চান, ‘বড়ভাই’ কারা? জবাবে সাদাত বলেন, অনিক, সকাল, মুজাহিদ, রবিন ও মনির। ওরাই ফাহাদকে মে’রেছে। আমি রাত সাড়ে ১২টার দিকে সেখান থেকে চলে আসি। এরপর কী’ হয়েছে তা আমি জানি না।

সংবাদটি শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 newstodaybd.com
Design BY NewsTheme
[X]