সর্বশেষ আপডেট
পবিত্র কোরআনের হাফেজের মুখে লাথি মেরেছিল বুয়েট ছাত্রলীগ সভাপতি । মা’রতে মা’রতে ঘে’মে যায় অনিক, পা ধরে অ’নুনয় করেছিলো আবরার । যৌ’নপল্লীতে যাওয়া পুরুষদের গোপন তথ্য ফাঁ’স । গাছে ঝুলন্ত শিশুর পেটে বিদ্ধ দুটি ছুরিতে দুজনের নাম । দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা ভালো থাকলে বিনা মূল্যে হজ্জ পালনের সুযোগ দিতামঃ ইমরান খান । হাজারো ভক্তের হৃদয় ভেঙে বিয়ের পিঁড়িতে বসতে যাচ্ছেন সাবিলা নূর । বিসিএস সিলেবাস, যার শুরু আছে কিন্তু শেষ বলে কিছু নেই । লাক্স সুন্দরী এখন স্বামীসহ বিসিএস ক্যাডার । আবরার ফাহাদকে নিয়ে ভারতীয় তরুণীর যে হৃ*দয়*স্পর্শী স্ট্যাটাস ভা*ইরাল । চোখে নেই আলো, কুরআনের আলোয় আলোকিত ওরা তিন হাফেজ ।
স্বামীকে সঙ্গে নিয়ে অষ্টমীর অঞ্জলি দিলেন নুসরাত জাহান ।

স্বামীকে সঙ্গে নিয়ে অষ্টমীর অঞ্জলি দিলেন নুসরাত জাহান ।

বিয়ের পরে প্রথম পুজা৷ সেই কারণে এই পুজা তো একটু আলাদা হবেই৷ কেননা স্বামী নিখিলকে পাশে নিয়ে মহাষ্টমীর পুজা দিলেন তৃণমূলের তারকা সাংসদ নুসরাত জাহান৷

কলকাতার অন্যতম সেরাপুজো সরুচি সংঘে পুজা দিলেন অষ্টমীর সকালে৷ এই সময় তারই পাশে ছিলেন রাজ্যের মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসও৷ নিখিলকে প্রশ্ন করা হলে তিনি বললেন কলকাতার রাস্তার খাবার খেতে তিনি খুবই ভালবাসেন৷

গতকাল অর্থাৎ সপ্তমীতে কাজের জন্য তিনি খেতে পারেননি৷ মহাষ্টমীতে জমিয়ে আড্ডা ও চুটিয়ে খাবেন তিনি৷ প্রতিবারই মহাষ্টমীতে অঞ্জলি দিয়ে থাকেন নুসরাত তাই এইবারেও অঞ্জলি দিয়েছেন৷ বিয়ের পরে যেহেতু প্রথম পুজা তাই এই পুজা বিশেষ ভাবে উপভোগ্য পুজা৷

স্বামী নিখিল জৈনকে সঙ্গে নিয়ে পুজা মণ্ডপে হাজির হয়ে ছিলেন। অষ্টমীর সকালে তাই হলদে পাড় লাল টুকটুকে শাড়ি পরে এক্কেবারে খাঁটি বাঙালি হিন্দু বৌয়ের মতো সাজলেন নুসরাত৷ খোপায় ছিল ফুল, সিঁথিতে চওড়া সিঁদুর৷ নিখিল পরেছিলেন লাল পাঞ্জবী আর চোস্ত পাজামা৷ সেজেগুজে দুই জন পৌঁছে গেলেন সুরুচি সংঘে৷ ঢাক বাজালেন, প্রতিমা দর্শন করলেন ও অঞ্জলি দিলেন ভক্তি ভরে৷

সম্প্রতি বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে টালিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী নুসরাত জাহান ও কলকাতার ব্যবসায়ী নিখিল জৈন’র। বিদেশে ডেস্টিনেশন ওয়েডিংয়ের পর সদ্য কলকাতার বিলাসবহুল হোটেলে হয়েছে তাদের রিসেপশন। এরই মধ্যে বিপদে পড়লেন নুসরাতের স্বামী নিখিল জৈন। এদিকে জানা গেছে, আর্থিক প্রতা রণার শিকার হয়েছেন নিখিল জৈন। তাও আবার রিসেপশনের ঠিক আগে। যার জন্য থানা-পুলিশও করতে হয়েছে তাকে।

এ বিষয়ে সাইবার ক্রাইম থানায় দায়ের হওয়া অভিযোগের ভিত্তিতে জানা যায়, মাসখানেক আগে একটি মোবাইল সার্ভিস প্রোভাইডার সংস্থা থেকে ই-মেল আসে নিখিলের কাছে। সেই মেলে তাকে একটা ভিভিআইপি নম্বর অর্থাৎ মোবাইলের বিশেষ নম্বর দেওয়া হবে বলে জানানো হয়। এর জন্য নির্দিষ্ট অ্যাকাউন্টে টাকা জমা করার কথাও জানানো হয়। নিখিলের কাছে দু-টি ই-মেল আসে।

এদিকে নিখিল দাবি করেছেন, ই-মেলে দেওয়া অ্যাকাউন্ট নম্বরে তিনি ৪৫ হাজার টাকা ট্রান্সফারও করে দেন, কিন্তু তার কাছে কোনও ভিআইপি নম্বর আসেনি। কিন্তু এর পরে খোঁজ খবর নিয়ে জানতে পারেন ওই ই-মেল মেসেজটি আদতে ভুয়া। যে মোবাইল সার্ভিস প্রোভাইডারের নামে ই-মেল এসেছিল, তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন ‘রঙ্গোলি শাড়ি’ সংস্থার ডিরেক্টর নিখিল। কিন্তু তারা স্পষ্টতই জানিয়ে দেয়, ওই ধরনের কোনও মেসেজ তারা পাঠায়নি। এরপরই সাইবার ক্রাইম থানায় অভিযোগ দায়ের করেন তিনি।

এদিকে সচরাচর কোনও মোবাইল সার্ভিস প্রোভাইডার কোম্পানির বিশেষ নম্বর নিতে গেলে গ্রাহককে বাড়তি টাকা খরচ করতে হয়। এই নম্বরগুলো বিশেষ বৈশিষ্টযুক্ত হওয়ায় ভিভিআইপি নম্বর বলা হয়। সেই ফাঁদেই পা দিয়েছিলেন নিখিল। তবে জানা গেছে, আসলে এ রকম একটি চক্র রয়েছে, যারা এইভাবে ফাঁদ পেতে টাকা নিচ্ছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 newstodaybd.com
Design BY NewsTheme
[X]