সর্বশেষ আপডেট
২৪ বছরে পা দিলো মৌসুমী-ওম’র সানীর ভালোবাসার সংসার ।

২৪ বছরে পা দিলো মৌসুমী-ওম’র সানীর ভালোবাসার সংসার ।

শোবিজ জগতের মানুষদের সংসার বা স’ম্পর্ক ভেঙে যাওয়ার একটা বাতিক আছে। এর মাঝেই আদর্শ কোনো তারকা দম্পতির কথা বলতে গেলেই যে প্রিয়মুখগুলো সামনে ভেসে ওঠে তাদের মধ্যে অন্যতম এক জুটি হলে ওম’র সানী ও মৌসুমী। তাদের ভালোবাসার গল্পটি কবেই খোলা বই হয়ে সবার কাছে পৌঁছে গেছে। লক্ষ-কোটি দম্পতির অনুপ্রেরণা হয়ে গেছেন তারা। ভাঙা-গড়ার মিডিয়া ভুবনেও দুটি মানুষ ভালোবেসে একটা জীবন পার করতে পারেন, তারই প্রকৃত উদাহরণ যেনো তারা। খুশির খবরটি হলো, আজ ২ আগস্ট এই তারকা দম্পতি তাদের সংসার জীবনের দুই যুগে পা রাখলেন। ওম’র সানী-মৌসুমী ১৯৯৫ সালের এই দিনে অনেকটা চুপিসারেই বিয়ে করেন। সেই

থেকে একে অ’পরকে আপন করে নিয়ে সুখে-দুখে একই সঙ্গে পথ চলছেন তারা। বিশেষ এই দিনটিতে ওম’র সানি বললেন, ‘আমি আর মৌসুমী ২৪ বছরে পা দিলাম। এই দিনে মৌসুমিকে নিয়ে এসেছিলাম আমা’র ছোট্ট সংসারে। আর আপনাদের মৌসুমী থেকে হয়েছে প্রিয়দর্শিনী। সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন বাকি জীবন এই ভাবে কা’টাতে পারি।’ অ’ভিনয় করতে এসেই মৌসুমী-ওম’র সানীর পরিচয়। এরপরে একসঙ্গে জুটি বেঁধে বেশ কিছু সিনেমায় অ’ভিনয় করেন তারা। নব্বইয়ের দশকে কিংবা তার পরবর্তী সময়ে মৌসুমী-ওম’র সানির কোনো সিনেমা মুক্তি পেলে দর্শকদের মধ্যে তা দেখার হিড়িক পড়ে যেত। অ’ভিনয় করতে করতেই দু’জনের প্রতি ভালোলাগা তৈরি হয়। একটা সময় প্রেম। তারপর বিয়ে। ঘর সংসার, সন্তান। আর এর মাঝেই চলে গেল ২৪টি বছর। ফারদিন এহসান স্বাধীন ও ফাইজা নামে দুই সন্তান রয়েছে তাদের। ফারদিন রাজধানীর উত্তরায় ‘মেরিমন্টানা’ নামের একটি রেস্টুরেন্ট পরিচালনা করছেন । রেস্টুরেন্ট ব্যবসায় নিজেদের পুত্রের সাফল্যে বেশ আনন্দিত ওম’র সানী-মৌসুমী। পাশাপাশি ফারদিন একজন নির্মাতাও। অকাল প্রয়াত সালমান শাহর বিভিন্ন স্টাইল ছড়িয়ে গেছে পুরো ভারতীয় উপমহাদেশের সিনেমায়। বলিউড শাহরুখ খান, আমির খান, বলিউড ভাইজান সালমান খান এমনকি ঢালিউডের জনপ্রিয় নায়ক শাকিব খানও অনুসরণ করেন ঢালিউড যুবরাজের নানান স্টাইল। কেবল সিনেমাতেই নয়, প্রজন্মের

তরুণদের ফ্যাশন আইন হয়ে উঠেছিলেন সালমান শাহ। ফ্যাশন সচেতন এই সুপার হিরো অনায়েশে মানিয়ে যেতেন যে কোন চরিত্রে। তার প্রথম ছবি কেয়ামত থেকে কেয়ামত যারা দেখেছেন, তারা খেয়াল করে থাকবেন যে সেখানে সালমান এতটাই সপ্রতিভ ও সহ’জাত ছিলেন যে কারও মনে হওয়ার উপায় ছিলো না ওটাই ছিলো তার প্রথম চলচ্চিত্র। অনেক বড় বড় অ’ভিনেতার প্রথম সিনেমায় জড়তা থাকে, দেখলেই বোঝা যায় নতুন এসেছেন। কিন্তু সালমান শাহ কোনো জড়তা ছাড়া অ’ভিনয় করে গেছেন প্রথম সিনেমাতেই। ২০১৪ সালে বলিউডের আশিকি টু চলচ্চিত্রের নির্মাতা শুটিং সেটে নায়ক আদিত্য রায় কাপুরকে চরিত্র বুঝিয়ে দিতে গিয়ে বলছিলেন, “তোমাকে আমি বাংলাদেশের প্রয়াত নায়ক সালমান শাহর লুকে চাই। সালমানের স্টাইলগুলো ফলো করো।” পরবর্তীতে সালমান শাহ অ’ভিনীত কিছু সিনেমা’র ভিডিও ফুটেজ দেখানো হয় আদিত্যকে। এ খবর ভারতীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়। সালমানের ফ্যাশন স্টাইল এতোটাই অনুকরণীয় যে এখনো উপমহাদেশের বিভিন্ন দেশে সালমানের আর্কাইভ ঘেটে তার স্টাইল অনুসরণ করা হয়। সালমান শাহের মাথায় কাপড় বাঁ’ধা স্টাইল সে সময় এতটাই জনপ্রিয় হয়ে যায় যে পাড়া মহল্লার তরুণদের মাথায় কাপড় বাঁ’ধায় হিড়িক পড়ে যায়। সালমান তখন স্ত্রী’কে নিয়ে পারিবারিক সফরে মুম্বাই গিয়েছিলেন। তখন শাহরুখই সালমানের সঙ্গে দেখা করতে চেয়েছিলেন। শাহরুখ খানের বলিউডে অ’ভিষেক

হয় ‘দিওয়ানা’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে ১৯৯২ সালে। ১৯৯৩ সালে সোহানুর রহমান সোহানের ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে অ’ভিষেক হয় সালমান শাহর। প্রথম ছবিতেই আকাশছোঁয়া সাফল্য পান সালমান। কিন্তু শাহরুখকে জনপ্রিয় হতে অ’পেক্ষা করতে হয় আরও কয়েক বছর। গত বছরের ১৩ অক্টোবর সেখান থেকে একটি ছবি পোস্ট করেন ফেসবুকে। ‘প্রেম পিয়াসী’র সালমানের একটি ছবির সঙ্গে শাকিবের এ ছবিটি হুবহু মিলে যায়। হেয়ার কাটিং, কানের দুল, তাকানোর স্টাইল- সবই সালমানের মতো। তবে সালমান শাহ চুলে রং করেননি। কিন্তু শাকিব চুল রাঙাতে ভুলেননি। এ ছাড়া শাকিব বলেন, “সালমান শাহ আইকন। সালমানের চুলের কাটিং, ক্যাপ, পোশাক-পরিচ্ছদ, চলাফেরা, বাচনভঙ্গি- সবই নতুনদের জন্য অনুকরণীয়। অন্তত এখনও সেটাই দেখা যায়। সাম্প্রতিক সময়েও পো’ড়ামন- ২ ছবির গল্পে আবর্তিত হয়েছে সালমানের স্টাইল। অ’ভিনেতা সিয়ামকে দেখা যায় সালমান ভক্ত হিসেবে। যেখানে সালমানের ফ্যাশন অনুকরণ করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 newstodaybd.com
Design BY NewsTheme