সর্বশেষ আপডেট
জাকির নায়েককে ফেরত না দিলে ভারতের উদ্দেশ্যে যে পদক্ষেপ নিচ্ছে মালয়েশিয়া ।

জাকির নায়েককে ফেরত না দিলে ভারতের উদ্দেশ্যে যে পদক্ষেপ নিচ্ছে মালয়েশিয়া ।

ভারতীয় নাগরিক আলোচিত ধর্মপ্রচারক বর্তমানে মালয়েশিয়ায় অবস্থান করছেন। ভারতে তার বিরুদ্ধে অর্থপ্রচারের মামলা রয়েছে তাই তাকে ফেরত চাইছে ভারত সরকার। কিন্তু জাকির নায়েককে ফেরত দিতে রাজি নয় মালয় সরকার। তাই তারা এর কারণ দেখিয়ে ভারত সরকারের কাছে মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী দাতুক সাইফুদ্দিন আবদুল্লাহ। মালয়েশিয়ার ইংরেজি গণমাধ্যম দ্য স্টার অনলাইনের খবরে এমন তথ্য জানা গেছে।

বৃহস্পতিবার ( ৭ নভেম্বর) সাইফুদ্দিন বলেন, চিঠিতে যথাযথ আধেয় সংযুক্ত করতে অ্যাটর্নি জেনারেল টম্মি থমাসের সঙ্গে তিনি আলোচনা করবেন। ভারত তাকে ফেরত চেয়ে অনুরোধ করেছে জানিয়ে তিনি বলেন, জাকির নায়েককে কেন পাঠানো হবে না, ইতিমধ্যে প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ সেই ব্যাখ্যা দিয়েছেন।‘ ব্যাংককে গত সপ্তাহে ৩৫তম এশিয়ান শীর্ষ সম্মেলনের ফাঁকে বৈঠকে ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস. জয়শঙ্কর সবিনয়ে বিষয়টি উঠিয়েছেন। আনুষ্ঠানিক জবাব হিসেবে একটি চিঠি দেয়ার অনুরোধও তিনি জানিয়েছেন,’ বললেন মালয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

নানা কূটনৈতিক তৎপরতার পর এবার বাংলাদেশের জন্য সুখবর তৈরি হলো। বাংলাদেশ থেকে আগামী ডিসেম্বর থেকে শ্রমিক নেবে দেশটি। এবার মালয়েশিয়া যাওয়ার পূর্বে মাত্র একবার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হবে। পাশাপাশি ন্যূনতম অভিবাসন ব্যয়ে কর্মী পাঠানো হবে। বুধবার (৬ নভেম্বর) মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরে পার্লামেন্ট ভবনে অনুষ্ঠিত এক ফলপ্রসূ বৈঠকে এসব বিষয়ে একমত হয়েছে দুদেশের মন্ত্রীরা। বৈঠকে নিজ নিজ দেশের নেতৃত্ব দেন মালয়েশিয়ার মানবসম্পদ মন্ত্রী এম কুলাসেগারান ও বাংলাদেশের প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ।

এদিকে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয় জানায়, বৈঠকে ন্যূনতম অভিবাসন ব্যয়ে কর্মী পাঠানো, উভয় দেশের রিক্রুটিং এজেন্সিদের সম্পৃক্ততার পরিধি, মেডিকেল পরীক্ষা, কর্মীর সামাজিক ও আর্থিক সুরক্ষা এবং ডাটা শেয়ারিং বিষয়ে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে। বিশেষ করে, ন্যূনতম অভিবাসন ব্যয়ে কর্মী প্রেরণ এবং কর্মীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার বিড়ম্বনা নিরসনের জন্য বাংলাদেশ থেকে বহির্গমনের পূর্বে মাত্র একবার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করার বিষয়ে তারা একমত হন। মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি কর্মীদের চাহিদার কথা সভায় বিশেষভাবে উল্লেখ করা হয়েছে।

এদিকে বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আগামী ২৪ ও ২৫ নভেম্বর ঢাকায় জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের পরবর্তী সভা অনুষ্ঠিত হবে। জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের সভার পর বাংলাদেশ থেকে মালয়েশিয়ায় কর্মী প্রেরণ পুনরায় শুরু হবে বলে উভয় পক্ষ আশাবাদ ব্যক্ত করেন। বৈঠকে মন্ত্রীর সঙ্গে মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সেলিম রেজা, অতিরিক্ত সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন, যুগ্ম-সচিব ফজলুল করিম, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক মো. আজিজুর রহমান, বিএমইটির পরিচালক মো. নুরুল ইসলাম, হাইকমিশনার মুহ. শহীদুল ইসলাম এবং কাউন্সিলর (শ্রম) মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া মালয়েশিয়া প্রতিনিধি দলে ছিলেন মানবসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সেক্রেটারি জেনারেল দাতু আমির বিন ওমর, ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেল দাতু কয়া আবুন, ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেল মো. খাইরুজ্জামান, লেবার ডিপার্টমেন্টের মহাপরিচালক দাতু মোহাম্মদ জেফরি জোয়াকিম আসরি, আন্ডার সেক্রেটারি মিস বেটি হাসান, আন্ডার সেক্রেটারি আব্দুর রহমান, ডেপুটি আন্ডার সেক্রেটারি শাহাবুদ্দিন এবং ডেপুটি আন্ডার সেক্রেটারি শাহ বাচিক প্রমুখ।

সংবাদটি শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 newstodaybd.com
Design BY NewsTheme
[X]