সর্বশেষ আপডেট
প্রবাসীরা সাবধানঃ মালয়েশিয়ায় করোনা ভাইরাসে ৪ জন সনাক্ত।

প্রবাসীরা সাবধানঃ মালয়েশিয়ায় করোনা ভাইরাসে ৪ জন সনাক্ত।

চায়নার প্রা”ণঘা”তী ভাইরাস ইতিমধ্যে মালয়েশিয়াসহ বিশ্বের ২০টির ও বেশি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। মালয়েশিয়া সর্বপ্রথম ৩৩ বছর বয়সী একজন চাইনিজ নাগরিকের দেহে ভাইরাসের অস্তিত্ব খুঁজে পায় এবং তাকে মালয়েশিয়ায় সুঙাই বুলু হসপিটালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে, তারপর আরো বাকি দুজনের দেহে করোনাভাইরাস এর অস্তিত্ব খুঁজে পায় জহুরবারু যারা সিঙ্গাপুর থেকে প্রবেশ করেছে মালয়েশিয়ায় গত ২৪ শে জানুয়ারি।

এই দুজনকে জহরবারু হসপিটালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন মালয়েশিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। কিন্তু গতকাল ৩ নাম্বার করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত একজন শিশুকে চিহ্নিত করেছে জহুরবারু হসপিটালের চিকিৎসকগণ দুই বছর বয়সী এই শিশুর দেহে করোনাভাইরাস প্রবেশ করেছে চায়না সফরকালে তবে এ শিশুর পিতা মাতার কারো দেহে ভাইরাস পাওয়া যায়নি। এদিকে মালয়েশিয়া সরকার সর্তকতা জারি করেছে চায়নিজ পর্যটকদের

ওপর যারা মালয়েশিয়ায় গমন করতে তাদেরকে স্বাস্থ্য পরীক্ষা দিয়ে মালয়েশিয়ায় প্রবেশ করতে হবে মালয়েশিয়া বিমানবন্দর ইমিগ্রেশনে কড়া নিরাপত্তা গ্রহণ করা হয়েছে প্রত্যেকটি নাগরিক চাইনিজ নাগরিক এবং চায়না থেকে যারা মালয়েশিয়ায় আসতেছেন সবাইকে আলাদা ভাবে
স্বাস্থ্য পরীক্ষা এবং হেলথ স্ক্রীনিং করে মালয়েশিয়ায় প্রবেশ করতে হবে। এদিকে মালয়েশিয়ার রাষ্ট্রীয় ইসলামী সংস্থা মালয়েশিয়ার মুসলমানদেরকে সালাতুল হাজত অর্থাৎ নফল নামাজ পড়তে বলেছেন সকল মুসলমানদেরকে এই রোগ থেকে মুক্তির জন্য আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাইতে বলেছেন।

আরো পড়ুন… অবশেষে জানা গেল যেখান থেকে করোনাভাইরাসের উৎপত্তি? ইতিমধ্যে চীন থেকে উৎপত্তি হওয়া করোনা ভাইরাস বিশ্বব্যাপী আ’তঙ্ক সৃষ্টি করেছে । চীনের সীমা ছাড়িয়ে ইতোমধ্যে আরও বেশ কয়েকটি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে এই ভাইরাস। অনেকে বলছেন, ভাইরাসটি এসেছে সাপ কিংবা বাদুড় থেকে। তবে এবার নতুন এক দাবি তুলেছেন ইসরায়েলের সা’মরিক গোয়েন্দা বিভাগের সাবেক কর্মকর্তা ও জীবাণু অ’স্ত্র বিশারদ ড্যানি শোহাম। চীন দীর্ঘদিন ধরে গো’পন জী’বাণু অ’স্ত্র নিয়ে গবেষণা করছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

দেশটি বরাবরই এই অভিযোগ অস্বীকার করে। তবে উহান প্রদেশের ওই গবেষণাগারেই করোনা ভাইরাসের উৎপত্তি বলে তথ্য ফাঁ’স করেছেন ইসরাইলের সামরিক বাহিনীর সাবেক এক কর্মকর্তা। তিনি উহান প্রদেশের ওই গবেষণাগারে এক সময় কাজ করতেন বলে জানিয়েছেন। তিনি বলেন, উহানে চীনের গো’পন জী’বাণু অস্’ত্র গবেষণা কার্যক্রমের ল্যাবরেটরি রয়েছে। সেখান থেকেই করোনা ভাইরাস প্রথম ছড়িয়ে থাকতে পারে।

ড্যানি শোহাম মাইক্রোবায়োলজিতে পিএইচডি করেছেন। ১৯৭০ থেকে ১৯৯১ সাল পর্যন্ত ইসরায়েলের সেনাবাহিনীর হয়ে মধ্যপ্রাচ্যসহ সারাবিশ্বে জী’বাণু ও রাসায়নিক অ’স্ত্র এবং সমরনীতি নিয়ে কাজ করেছেন তিনি। শোহাম মনে করেন, উহান ইনস্টিটিউট অব ভাইরোলজির আড়ালেই জীবাণু অ’স্ত্র নিয়ে গবেষণা চালাচ্ছে চীন। অবশ্য জীবাণু অ’স্ত্র নিয়ে গোপনে গবেষণা চালানোর ব্যাপারটি চীন বরাবরই অ’স্বীকার করে আসছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 newstodaybd.com
Design BY NewsTheme