১০ বছর মেয়াদি পাসপোর্ট প্রথমে পাবেন যে প্রবাসীরা ।

১০ বছর মেয়াদি পাসপোর্ট প্রথমে পাবেন যে প্রবাসীরা ।

বাংলাদেশি নাগরিকদের জন্য চালু হতে যাচ্ছে ইলেকট্রনিক পাসপোর্ট (ই-পাসপোর্ট)। এর মেয়াদ হবে ১০ বছর। এই পাসপোর্ট প্রথম দেয়া হবে কয়েত প্রবাসীদের। কুয়েতে এক অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ সরকারের বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছেন লক্ষ্মীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য ও মারাফি কুয়েতিয়া কোম্পানির সিইও কাজী শহিদ ইসলাম পাপুল।

তিনি বলছেন, খুব শিগগিরই ১০ বছর মেয়াদের পাসপোর্ট পাবেন সবাই। খুশির খবর হলো যে, বিদেশে প্রথম কুয়েত প্রবাসীদের প্রদান করা হবে ১০ বছর মেয়াদি পাসপোর্ট। এই সংসদ সদস্য আরও বলেন, বর্তমান সরকার প্রবাসীদের জন্য একটি উদ্যোগ নিয়েছে। তা হলো- যেসব প্রবাসী বৈধ পথে টাকা পাঠাবেন, সরকার সেই টাকার দুই পারসেন্ট ফেরত দেবেন।

কুয়েতে বাংলাদেশ দূতাবাসের কাউন্সিলর ও দূতালয় প্রধান মোহাম্মদ আনিসুজ্জামানের বাবা নুর মোহাম্মদ বিশ্বাসের মৃত্যুতে এক মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে বৃহস্পতিবার (৫ সেপ্টম্বর) তিনি এসব কথা বলেন। মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি বলেন, মানবতার সেবা হলো উত্তম সেবা, যে যার মতো মানবতার সেবায় কাজ করা উচিত। এতে দুনিয়াতে ও আখিরাতে শান্তি পাওয়া যায়।

মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের করে কুয়েত প্রবাসী বাংলাদেশিরা। কুয়েতের খাইতান রাজধানী প্লেস হোটেলে এই মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন কুয়েতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এস এম আবুল কালাম। আব্দুল হাই ভূঁইয়ার সঞ্চালনায় মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ দূতাবাসের কাউন্সিলর ও দূতালয় প্রধান মোহাম্মদ আনিসুজ্জামান, কাউন্সিলর পাসপোর্ট ও ভিসা সচিব জহিরুল ইসলাম খান, প্রকৌশলী ফরিদ উদ্দিন, মরুলেখা সম্পাদক আব্দুর রউফ মাওলা।

আরও উপস্থিত ছিলেন মোহাম্মদ আবদুস সেলিম, তৌদিলুল আমল চৌধুরী, হাবিবুর রহমান, মাহফুজুর রহমান, হোসেন আজিজ, মো. গাজী প্রমুখ। এ ছাড়া কুয়েতের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার প্রবাসী বাংলাদেশি ও পরিবার, বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠানে কুরআন তেলায়াত ও দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন হাফেজ আবু বক্কর সিদ্দিক।

আরো খবর… নিউজ টুডে বিডির পক্ষ থেকে আপনাকে স্বাগতম, আজকে একবারের আলোচনায় রয়েছে, সৌদি প্রবাসীরা এখনই জেনে নিন – সৌদিতে অবৈধ ভাবে ভিসা বিক্রিতে ধরা পড়লে ৫০ হাজার রিয়াল জরিমানা সেই বিষয়ে বিস্তারিত ।

পুরো নিউজ টি পড়ে বিস্তারিত জানার অনুরোধ রইলো । সৌদি আরবে যে সকল প্রবাসীরা ভিসা কেনা বেচার সাথে জড়িত আছেন, তারা সাবধান । স্মপ্রতি রিয়াদে অনুষ্ঠিত এক সভায় সৌদি আরবের স্রমো ও সামাজিক উন্নয়ন মন্ত্রী জনাব আহমেদ আল রাজিস স্রমো আইনে নতুন করে বেশ কিছু সংশোধনের কথা জানিয়েছেন এবং সেই সাথে নতুন কিছু আইনের অনুমোদন দিয়েছেন ।

নতুন আইনে বলা হয়েছে যারা ওয়ার্ক ভিসা বিক্রির সাথে জড়িত বা ভিসা বিক্রির ক্ষেত্রে দালাল হিসেবে কাজ করে তাদেরকে সৌদি আরবের ৫০ হাজার রিয়াল জরিমানা করা হবে । নতুন স্রমো আইনে আরো বলা হয়েছে কোনো ফ্রামের মালিক বা নিইয়োগকারী যদি মন্ত্রণালয়কে ভিসা পাওয়ার জন্য ভুল তথ্য প্রদান করে তাহলে তাকে ২৫ হাজার রিয়াল জরিমানা করা হবে ।

এ ছাড়া কোনো ব্যক্তি যদি দালাল হিসেবে মদস্ততা করে অবৈধ ভাবে ওয়ার্কিং ভিসা প্রসেস করে তাকেও একি জরিমানা গুনতে হবে । স্রমো মন্ত্রি এই আইন কঠোর ভাবে কার্জকর করার জন্য স্রমো মন্ত্রনালয়কে নির্দেশ দিয়েছেন ।

শ্রমিকদের জন্য স্রমো ক্ষেত্র আরো সহজ ঝামেলামুক্ত এবং ভুগান্তিমুক্ত করার জন্যই এই আইন প্রনয়ণ করা হয়েছে । নতুন এই স্রমো আইন কার্যকর হলে অবশ্যই প্রবাসীদের জন্য ভালো হবে । খবরটি আপনারা যারা পোড়ছেন সকলে শেয়ার করুন । যাতে করে অণ্যরা জানতে পারে । সৌদি আরবের সকল গুরুত্তপূর্ণ খবর জানতে আমাদের সাথেই থাকুন ধন্যবাদ ।

আরো খবর… যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংস্থা দ্য হ্যানলি অ্যান্ড পার্টনার্স বিশ্বের ২০০টি দেশের ওপর গবেষণা জরিপ চালিয়ে একটি মূল্যায়ন সূচক তৈরি করেছে। সূচকটিতে বিভিন্ন দেশের পাসপোর্টের মূল্যায়ন তালিকা প্রকাশ করেছে। যেখানে বাংলাদেশের অবস্থান সম্পর্কে এ তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।সূচকটিতে বিভিন্ন দেশের পাসপোর্টের মূল্যায়ন তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থানের অবনমন ঘটেছে।

আগে ছিল ৯৫তম স্থানে, এখন ৯৭তম নেমে এসেছে। অর্থাৎ বলা যায়, বাংলাদেশি পাসপোর্টের মূল্যায়ন ওজন কমেছে। বাংলাদেশের সঙ্গে একই সূচকে আছে লেবানন, ইরান, কসোভো। বাংলাদেশের মানুষ এখন ভিসা ছাড়াই যেতে পারেন ৩৮টি দেশে। অর্থাৎ এই দেশগুলোতে যেতে হলে দেশ থেকে ভিসার জন্য প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হয় না; পাওয়া যায় ভিসামুক্ত সুবিধা।

শুধু পাসপোর্ট থাকলেই হয়।আন্তর্জাতিক বিমান পরিবহন সংস্থার (আইএটিএ) ভ্রমণ তথ্যভাণ্ডারের সহযোগিতা নিয়ে প্রতিবছর হ্যানলি অ্যান্ড পার্টনার্স সর্বশেষ এ সূচক তৈরি করে। দেশওয়ারি নম্বর (স্কোর) দেওয়া রয়েছে এ সূচকে। এ নম্বরটি হচ্ছে একটি দেশ আগে থেকে ভিসা ছাড়া বা আগমনী ভিসা (ভিসা অন অ্যারাইভাল) নিয়ে বিশ্বের কতটি দেশে যেতে পারেন তার ওপর নির্ভর করে।

সূচক তালিকায় সবচেয়ে শক্তিশালী পাসপোর্ট জাপান ও সিঙ্গাপুরের। দেশ দুটির পাসপোর্টেই যাওয়া যায় ১৮০টি দেশে। আর সবচেয়ে দুর্বলতম পাসপোর্টের দেশ আফগানিস্তান। দেশটির পাসপোর্টে যাওয়া যায় ২৪টি দেশে।আফগানিস্তানের ওপরেই আছে ইরাক। ভিসা ছাড়াই ২৭টি দেশে যেতে পারেন ইরাকের মানুষ। এছাড়া সিরিয়া রয়েছে ১০৩তম স্থানে। বাংলাদেশিরা যেসব দেশে ভিসামুক্ত সুবিধা পান:

এশিয়ার মধ্যে রয়েছে ভুটান, ইন্দোনেশিয়া, মালদ্বীপ, নেপাল, শ্রীলঙ্কা ও পূর্ব তিমুর।আফ্রিকার মধ্যে রয়েছে- কেপ ভার্দ, কমোরো দ্বীপপুঞ্জ, জিবুতি, গাম্বিয়া, গিনি বিসাউ, কেনিয়া, লেসোথো, মাদাগাস্কার, মরিশিয়া, মোজাম্বিক, সিসিলি, সেন্ট হেলেনা, টোগো, উগান্ডা।ক্যারিবীয় অঞ্চলের মধ্যে রয়েছে- বাহামা, বার্বাডোজ, ডোমিনিকা, গ্রেনাডা, হাইতি, জামাইকা, সেন্ট কিটস অ্যান্ড নেভিস, সেন্ট ভিনসেন্ট, ত্রিনিদাদ ও ব্রিটিশ ভার্জিনিয়া আইল্যান্ড।আমেরিকার মধ্যে রয়েছে- বলিভিয়া। এছাড়াওশেনিয়া অঞ্চলের মধ্যে কুক আইল্যান্ডস, ফিজি, মাইক্রোনেশিয়া, দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরীয় নিউই, সামাউ ও ভানুয়াতু।

সংবাদটি শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 newstodaybd.com
Design BY NewsTheme