সর্বশেষ আপডেট
লাইভ শোতে ২ সৌদি সমকামি তরুণীর ভালোবাসা প্রকাশ! ঝুড়িতে পাওয়া গেল কন্যা শি’শু, নাম দেওয়া হল ‘একুশে’ জরুরী আবহাওয়া বিজ্ঞপ্তিঃ সোমবার থেকে বৃষ্টি, চলবে তিনদিন! সুন্দরীর বিয়ের ফাঁদ, অপহরণ করে ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি, এরপর বেরিয়ে আসল চাঞ্চল্যকর তথ্য… বাসে বাবার বয়সী ব্যক্তির যৌ’ন হয়’রানি, কেঁদে বিচার চাইলেন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী আরব আমিরাতে করোনাভাইরাসে বাংলাদেশি প্রবাসী আ’ক্রা’ন্ত যুক্তরাষ্ট্রে কোরআন ছুঁয়ে শপথ নিলেন পুলিশ কর্মকর্তা গর্ভবতী হওয়া নিয়ে এবার মুখ খুললেন নায়িকা বুবলী, জেনে নিন নায়িকার স্বীকারুক্তি… কুমিল্লায় কয়েক হাজার কোটি টাকা নিয়ে শতাধিক কোম্পানি উধাও এবার নোবেলকে বিয়ে করছেন পূর্ণিমা!
বান্দরবানে বিরল প্রজাতির ছাগল উদ্ধার

বান্দরবানে বিরল প্রজাতির ছাগল উদ্ধার

বান্দরবানের আলীকদম উপজেলার দুর্গম পাহাড়ি এলাকা থেকে বিরল প্রজাতির একটি বন্য ছাগল উদ্ধার হয়েছে। উপজেলার সংরক্ষিত মাতামুহুরী বনাঞ্চলের দুর্গম ইয়ংনং মুরুং পাড়া থেকে ছাগলটি উদ্ধার করে বনকর্মীরা। উদ্ধারকৃত ছাগলটি ‘আন্তর্জাতিক প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ সংঘ (আইইউসিএন)’-এ বিশ্বে বিপন্ন প্রজাতির প্রাণী হিসেবে তালিকাভুক্ত। প্রকৃতিবিদদের মতে, এ প্রজাতির বনছাগল বাংলাদেশে বিরল।

জানা যায়, ছাগলটি একটি কুকুরের সঙ্গে খেলা করতে দেখে স্থানীয়রা ছাগলটি ধরে এনে লালন-পালন করছে, এমন সংবাদের ভিত্তিতে লামা বনবিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা এসএম কায়ছারের নেতৃত্বে সঙ্গীয় সদস্যরা বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারি) অভিযান চালিয়ে ছাগলটি উদ্ধার করেন। এসময় মাতামুহুরী রেঞ্জ কর্মকর্তা জহির উদ্দিন মিনার চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন। এ বিষয়ে প্রকৃতিপ্রেমি অপু নজরুল জানান, বনছাগল বা সোরা সন্ধ্যা খুব ভোরে খেতে বের হয়।

বনছাগল বাংলাদেশে অত্যন্ত বিপন্ন প্রাণী। তার মতে, প্রকৃতিতে মুক্ত বনছাগলের ছবি কেউ বাংলাদেশে তুলতে পারেনি। বিরল প্রজাতির বন্য ছাগল উদ্ধারের সত্যতা নিশ্চিত করে লামা বিভাগীয় বন কর্মকর্তা এস এম কায়ছার বলেন, উদ্ধারকৃত ছাগল ছানার ইংরেজি নাম রেড সেরো। এটি দেশের বিরল প্রজাতির একটি বন্যপ্রাণী। বাসস্থান ক্ষতি এবং শিকারের জন্য এ প্রজাতির বনছাগলের অস্তিত্ব খুবই কম। ছাগলটি সংরক্ষণের জন্য বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে কক্সবাজারের চকরিয়াস্থ ডুলহাজারার বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কের কর্মকর্তা মাজহারুল ইসলামের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে।

আরো পড়ুন,” যে ফুল চাষ করে বছরে আয় ৫ লাখ টাকা…” ফুল চাষ করে বছরে তার খরচ বাদ দিয়ে লাভ হয় ৫ লাখ টাকা… সাতক্ষীরা সদরের আলীপুর এলাকার আকরাম আলীর ভাগ্য বদলে দিয়েছে ফুল। অন্যের জমি ইজারা নিয়ে ফুল চাষ করেন তিনি। সেই ফুল বাগান থেকে বছরে আয় করছেন ৫ লাখ টাকা। মৃত আহাদুল্লাহ্ সরদারের ছেলে আকরাম আলী (৬০) বর্তমানে ৭ বিঘা ৮ কাঠা জমিতে রজনীগন্ধা, গোলাপ, গাঁধা ও গাজরা ফুল চাষ করছেন। বাড়ির পাশে ২ বিঘা জমিতে রয়েছে গাজরা ফুল।

এছাড়া পাটকেলঘাটা থানার নগরঘাটা ইউনিয়নের মিঠাবাড়ি এলাকায় ৫ বিঘা ৮ কাঠা জমিতে রয়েছে গোলাপ, রজনীগন্ধা ও গাঁধা ফুল। ফুল ব্যবসার লাভের টাকায় ১৫ বিঘা মাছের ঘেরও করেছেন। বসত ভিটার ১৫ শতক জমি ছাড়া তার কোনো জমি নেই। আকরাম আলী বলেন, ‘১৯৮০ সালে ৮ শতক জমি নিয়ে ফুল চাষ শুরু করি। ফুল চাষে লোকসানের সম্ভাবনা নেই। ঠিকমত পরিচর্যা ও চাষ করতে পারলে প্রচুর লাভ হয়।

বর্তমানে ৭ বিঘা ৮ কাঠা জমিতে ফুল চাষ করছি। এরমধ্যে বাড়ির পাশে ২ বিঘা জমিতে রয়েছে গাজরা ফুল। ২৫ হাজার টাকায় ২ বিঘা জমি ইজারা নিয়েছি। গাজরা ফুল চাষ করতে খরচ হয়েছে ২৫ হাজার টাকা। এ বাগান থেকে কমপক্ষে ২ লাখ টাকার ফুল বিক্রি করতে পারবো। এ চাষে বাড়তি কোনো খরচ নেই। এ বছর আরও ৩ বিঘা জমিতে গাজরা ফুলের চাষ করবো।’ পাটকেলঘাটার মিঠাবাড়ি এলাকার বাগান সম্পর্কে আকরাম আলী জানান,

পৌনে ২ বিঘা জমিতে রয়েছে রজনীগন্ধার চাষ। যা চাষ করতে তার খরচ হয়েছে ২ লাখ টাকা। বিক্রি হবে ৪ লাখ টাকার বেশি। ১২ কাঠা জমিতে রয়েছে গোলাপের চাষ। খরচ হয়েছে ১ লাখ টাকা। বিক্রি হবে ২ থেকে আড়াই লাখ টাকা। এছাড়া ২ বিঘা ১৫ কাঠা জমিতে রয়েছে গাঁধা ফুলের চাষ। যা চাষ করতে খরচ হয়েছে ১ লাখ টাকা। বিক্রি হবে ২ থেকে আড়াই লাখ টাকা। মোট ৫ বিঘা ৮ কাঠা জমিতে বছরে ইজারা দিতে হয় ৮৫ হাজার টাকা।

সব মিলিয়ে ফুল চাষ করে বছরে তার খরচ বাদ দিয়ে ৪-৫ লাখ টাকা লাভ হয়। সফলতা সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘ফুল ব্যবসার লাভের টাকা দিয়ে ১৫ বিঘা জমি ইজারা নিয়ে মাছের ঘের করেছি। এসব ফুল সাতক্ষীরা জেলার সব উপজেলাসহ যশোরের কেশবপুরে সরবরাহ করি। জেলায় আমি একমাত্র ফুল চাষি। ফলে ফুল চাষের কোনো পরামর্শমূলক সহযোগিতা নেওয়া সম্ভব হয় না। কৃষি বিভাগও কোনো সহযোগিতা করে না।

১৯৮০ সাল থেকে অল্প জমিতে ফুল চাষ শুরু করলেও ২০০০ সালে আলীপুর এলাকায় ১২ বিঘা জমিতে চাষ করেছিলাম। সেই থেকে বড় পরিসরে ফুল চাষের যাত্রা শুরু হয়। ২০১৮ সালে নগরঘাটার মিঠাবাড়ি এলাকায় চাষ শুরু করেছি। আমার একার পক্ষে জেলায় ফুলের চাহিদা মেটানো সম্ভব হয় না। ফলে ফুল ব্যবসায়ীদের অন্য জেলা থেকে ফুল আমদানি করতে হয়।’ ফুলের বাজার দর কম-বেশি হয় জানিয়ে আকরাম আলী বলেন,

‘প্রতি পিচ গোলাপ বিক্রি করি ৫ টাকা, রজনীগন্ধা ৬ টাকা ও গাঁধা ফুল ১ হাজার ১৫০ টাকা। প্রতিদিন বিক্রি করা দামের তারতম্য ঘটে। বিশেষ দিনগুলোতে ফুলের দাম বেশি হয়।’ স্থানীয় ইউপি সদস্য শাহাদত হোসেন বলেন, ‘তাদের অর্থনৈতিক অবস্থা খুবই খারাপ ছিল। তবে ফুলের ব্যবসা করে বর্তমানে অবস্থা ভালো। বর্তমানে পাটকেলঘাটা থানার নগরঘাটা এলাকায় গড়ে তুলেছেন ফুলের বাগান।’ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক অরবিন্দ বিশ্বাস বলেন, ‘জেলায় আকরাম আলী ছাড়া উল্লেখযোগ্য কোনো ফুল চাষি নেই। ফুল চাষি না থাকায় আমাদের কোনো জরিপ কার্যক্রমও নেই। তবে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করলে সার্বিক সহযোগিতা করা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 newstodaybd.com
Design BY NewsTheme