সর্বশেষ আপডেট
প্রেমিককে পেতে কনকনে শীতে ভারত থেকে বাংলাদেশে আসলো ১৪ বছরের কিশোরী । আমাদের নিয়ে আযহারী হুজুর ছাড়া আর কেউ এমন কথা বলেনিঃ হিজড়া প্রধান । প্রভাকে বিয়ে করলেন ইন্তেখাব দিনার । বিয়েতে সৌদি নারীদের পছন্দের শী’র্ষে বাংলাদেশি পুরু’ষরা । আজ ১৯/০১/২০২০ তারিখ, দিনের শুরুতেই দেখে নিন আজকের টাকার রেট কত । দেহ ব্যবসা করতে করতে যেভাবে আন্ডারওয়ার্ল্ড ডন হলেন আলিয়া । শারীরিক সম্পর্কে মোটা পুরুষেরা বেশি সক্রিয়, বলছে গবেষণা । ওয়াজে তারেক মনোয়ারের বক্তব্য নিয়ে ফেসবুকে তুমুল আলোচনা । পরকীয়া প্রেমিকের সঙ্গে হোটেলে গিয়ে যেভাবে খু’ন করা হল গৃহবধূকে । ফেব্রুয়ারির ১ তারিখে হচ্ছেনা এসএসসি পরীক্ষা ।
স্ত্রীকে ২২ ভরি ওজনের গয়না দিয়ে বি’পাকে টমটম চালক!

স্ত্রীকে ২২ ভরি ওজনের গয়না দিয়ে বি’পাকে টমটম চালক!

রোদ বৃষ্টি সামাল দিতে পলিথিন ঝুলিয়ে রাখা ছোট একটি মাটির ঘর। সেই ঘরে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে বাস করেন সৈয়দ নূর (৩৬) নামে একজন টমটম (ইজিবাইক) চালক। তিনি ইংরেজি নববর্ষের প্রথম দিনে স্ত্রীকে দিয়েছেন ২২ ভরি ওজনের স্বর্ণের হার। যার মূল্য ১৪ লাখ টাকা। সৈয়দ নূরের বাড়ি কক্সবাজারের টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের রঙ্গিখালী গাজিপাড়া এলাকায়।

হতদরিদ্রের আসল চেহারা ধরা পড়েছে বৃহস্পতিবার রাতে পুলিশের অভি’যানে। বিশাল ই’য়াবা কারবারের হোতা তিনি। আলোচিত মাটির ঘরেই মিলেছে ১০ হাজার ই’য়াবা। জানা গেছে, দুই সপ্তাহ আগে টেকনাফের বড় ই’য়াবা ব্যবসায়ী নুর হাফেজ ব’ন্দু’কযু’দ্ধে নি’হত হন। সে সময় পাওয়া কিছু তথ্যের ভিত্তিতে পুলিশের নজর পড়ে স্থানীয় টমটম চালক সৈয়দ নুরের দিকে।

তবে তিনি বড় মাপের ই’য়াবা ব্যবসায়ী এমন ধার না মেলেনি। সৈয়দ নুর বসবাস করেন একটি ছোট্ট মাটির ভা’ঙাচোরা ঘরে। কথিত শ্রমজীবীর সেই মাটির ঘরেই সন্দে’হবশত পুলিশ অভি’যান চালিয়ে ১০ হাজার ই’য়াবার চালানসহ সৈয়দ নুরকে হাতেনাতে আ’টক করে। এরপর ঘরের মালামাল তল্লা’শি করতে গিয়ে পুলিশের নজরে আসে আকর্ষণীয় একটি স্বর্ণের হার।

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে সৈয়দ নুর জানান, বছরের প্রথম দিনে স্ত্রীকে উপহার দিয়েছেন ২২ ভরি ওজনের স্বর্ণের হারটি। ঘরেই পাওয়া যায় স্বর্ণালঙ্কার কেনার রশিদ। মূল্য দেখা যায় ১৪ লাখ টাকা। পুলিশ টাকার রশিদসহ হারটি জ’ব্দ করেছে।টেকনাফ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ বলেন, সীমান্তে গত দুই বছর ধরে ই’য়াবা আটকের অভি’যান চালাচ্ছি।

এবারের ঘটনা পুরোটাই ভিন্ন। আটক ই’য়াবা ব্যবসায়ী সৈয়দ নূরকে স’ন্দেহ করার মতো কোন ধারণাই ছিল না। দিনের আলোয় তিনি একজন টমটম চালক। প্রত্যন্ত রঙ্গিখালী গাজিপাড়ার বাসিন্দা সৈয়দ নুর সম্পর্কে তথ্য মেলে ইয়া’বা ডন নুর হাফেজ ব’ন্দুকযু’দ্ধে নি’হত হবার পর পরই। এখন নিশ্চিত হওয়া গেছে নুর একজন বড় মাপের ই’য়াবা ব্যবসায়ী।

ই’য়াবা ব্যবসায়ী সৈয়দ নূরের গ্রে’প্তারসহ অবা’ক করা কাহিনী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তুলে ধরেছেন কক্সবাজারের পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন। তিনি জানান, ই’য়াবা ব্যবসায়ীরা এখন কৌশল পরিবর্তন করেছেন। তারা প্রকাশ্যে দীনহীন জীবনযাপন করছেন। আগের ই’য়াবা ব্যবসায়ীরা এলাকায় আলিশান বাড়ি নির্মাণ করে সবার নজরে পড়েছিলেন। সেসব বাড়ি অভিযা’নে ভে’ঙে দেয়ার কারণে এখন তারা মাটি ও খড়ের ভা’ঙাচোরা ঘরে বাসবাসের কৌশল নিয়েছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 newstodaybd.com
Design BY NewsTheme