সর্বশেষ আপডেট
যে ছেলেগুলোর মন সুন্দর ও পরিষ্কার হয়, এবং তারা কেয়ারিং হাজব্যান্ড ও হয় জানালেন গবেষণা । প্রেমিকাকে খুশি রাখতে গবেষণা যে সামান্য কাজ করতে বললেন । তখনই বুঝবেন আপনার স্ত্রী এ যুগের শ্রেষ্ঠ স্ত্রী? যে কারণে পুরুষরা খালি পেটে কাঁচা ছোলা খাবেন । দুই হাত ছাড়াই বিশ্ববিদ্যালয়ের গণ্ডি পেরিয়ে এই ফাল্গুনী আজ অফিসার । নে’কাব খুলতে বলায় বিমানবন্দর থেকেই ফি’রে গে’লেন মুসলিম না’রী । ১২০ কেজি স্বর্ণ খ’চিত নতুন গি’লাফে ঢে’কেছে পবিত্র কাবা । যে কারণে এয়ার ইন্ডিয়া বি’ক্রি করে দি’চ্ছে ভারত সরকার । ইউরোপের যে ৪ দেশ থেকে আসছে পেঁয়াজ,এখনি জানুন । বিদেশে নারীক’র্মী পা’ঠানো বন্ধে হাইকোর্টে রিট ।
মৃ ত্যুর আশা ছেড়ে দিয়েছেন ১৮৪ বছর বয়সী বৃ দ্ধ ।

মৃ ত্যুর আশা ছেড়ে দিয়েছেন ১৮৪ বছর বয়সী বৃ দ্ধ ।

নাম মহাশ্বেত মুরাসি। জন্ম ভারতের বেঙ্গা লুরুতে। বয়স ১৮৪। বেঁচে নেই তার সন্তানরা, এমনকি নাতি নাতনিরা। কিন্তু মৃ ত্যু এখনও পর্যন্ত গ্রাস করতে পারেননি তাকে। বৃ দ্ধ বলেন, ‘যম বোধহয় আমাকে নিতে ভুলে গেছে।’

ম হাশ্বেত বাবু এক সংবাদমাধ্যমকে দুঃখ করে বলেন, আমার চোখের সামনে আমার বহু নাতি নাতনিদের মা রা যেতে দেখেছি। কিন্তু আমাকে আজ পর্যন্ত মৃ ত্যু গ্রাস করতে পারেনি। এই বৃ দ্ধা মৃ ত্যুর আশা ছেড়ে দিয়েছেন। শেষ জীবনে মহাশ্বেতা বাবু চান বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক ব্যাক্তি হিসেবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পেতে। তিনি চান তাকে বিশ্বের সবথেকে বয়স্ক ব্যাক্তি হিসেবে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দেওয়া হোক।

এর আগে গিনিস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে সবথেকে প্রবীণ ব্যাক্তি হিসেবে নাম ছিল ফ্রান্সের জিয়ানে লুইস কালমেন্ট। ১২২ বছর বেঁচে রেকর্ড গড়েছিলেন তিনি। তার জন্ম হয়েছিল ১৮৭৫ সালে। মৃ ত্যু হয় ১৯৯৭ সালে। এক সংবাদমাধ্যমে বেরোনো রিপোর্ট অনুযায়ী মহাশ্বেত মুরাসি ১৮৩৫ সালের ৬ই জানুয়ারি। হিসেব মতো তার বয়স ১৮৪।

মুরাসির জন্মের প্রমাণপত্র হিসেবে ভারতীয় কার্ড ও জন্ম প্রমাণপত্র মিললেও কোনো মেডিক্যাল রিপোর্ট পাওয়া যায়নি। মুরাসি ১৯৭১ সালে শেষবার ডাক্তারের কাছে গিয়েছিলেন। সেই ডাক্তারও বর্তমানে আর নেই। মুরাসির বয়স যদি ১৮৪ বছর প্রমাণিত হয় তাহলেই তাকে বিশ্বের সবচেয়ে বৃ দ্ধ ব্যক্তির স্বীকৃতি দেওয়া হবে।

আরো পড়ুন… মায়ের প্রিয় খাবার দুধ ভাত আর কলা। তাই প্রতিদিনই স্কুল থেকে ফিরে এভাবেই পরম যত্নে নিজ হাতে মা’কে দুধ ভাত আর কলা খাওয়ান ফরিদপুরের চর টেপাখোলা উচ্চ বিদ্যালয়ের অফিস সহকারী তৈয়বুর রহমান স্বপন। খাওয়ানো ছাড়াও তিনি তার অশীতিপর মাকে নিয়মিত গোসল করান ও সময়মতো ওষুধ সেবন করান।

আরো পড়ুন… তবে কি মাত্র দেড় লক্ষ টাকার অভাবে মা’রা যাবে আমা’র মা! আমা’র মা মা’রা গেলে আমি কিভাবে বাঁচবো? আমা’র মাকে আপনারা বাঁ’চান! আমি একপ্রকার এতিমের মতই! আমা’র বাবা থেকেও নেই। অন্যখানে বিয়ে করে আজ বাবা ১০ বছর ধরে আমাদের কোন খবর রাখেনা। আম’রা একবেলা খেয়ে না খেয়ে থাকি। তার উপরে আমা’র মায়ের ভ’য়ংকর রোগ ধরেছে। অ’পারেশন ও থেরাপি না দিলে হয়তো আমা’র মা বাঁচবে না।

আমা’র মায়ের কোম’রসহ পিঠে প্রচন্ড ব্যাথা,পায়ে ও মাথায় প্রচন্ড ব্যাথা, সারা শরীর ঝনঝন করে সারাক্ষন, আমা’র মা প্রচন্ড ব্যাথায় সারাদিন চি’ৎকার করে, প্রতিদিন জ্বর আসে। আপনারা দয়া করে আমা’র মাকে বাঁ’চান। অঝোড়ে কাঁদতে কাঁদতে কথাগু’লি বলছিলেন অ’সুস্থ লুৎফুননেসার মে’য়ে জেরিন আক্তার। লুৎফুননেসার বাড়ি কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজে’লার দিগদারী গ্রামে।

উল্লেখ্য,’মাকে বাঁ’চাতে মে’য়ের করুন আকুতি!!’ শিরোনামে ‘সময়ের কন্ঠস্বরে গত ৯ই সেপ্টেম্বর খবর প্রকাশ হয়। কিন্তু খবর প্রকাশের পরে কেউই তার পাশে দাড়ায়নি। ফলে হতাশায় পড়ে যায় পরিবারটি।

লুৎফুননেসা মেরুদ’ন্ডের জটিল রোগ (পি,এল,আই,ডিতে) আক্রান্ত। স্বামী ছেড়ে যাবার পর ভিটেমাটি বিক্রি করে রংপুর কুড়িগ্রামের প্রায় হাফ ডজন ডাক্তার বদল করার পর রংপুরের ডাক্তার মাহামুদুনন্নবী ডলার জানিয়েছেন যে, তিনি মেরুদ’ন্ডের খুব জটিল রোগ পি,এল,আই,ডিতে আক্রান্ত। তার অ’পারেশন ও থেরাপি দ্রুত না দিলে তিনি যখন তখন কঠিন বিপদের মুখে পড়তে পারেন।

সেইসাথে ডাক্তার এটাও জানান অ’পারেশন ও থেরাপি দিতে ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা লাগবে। টাকার পরিমান শুনে মুশড়ে পড়ে জেরিন ও তার অ’সুস্থ মা! এখন বাড়িতে এসে আল্লাহপাকের উপর সব ছেড়ে দিয়ে বিনা চিকিৎসায় মৃ’ত্যুর প্রহর গুনছে জেরিনের মা। আর মায়ের এই আসহায়ত্ব নিরবে দেখে আর মায়ের সাথে সারাদিন কাঁদে জেরিন। জেরিন বেশ ভাল ছা’ত্রী জেএসসিতে গোল্ডেন এ+ ও এসএসসিতে ৪.০৬ পেয়ে পাস করে ভিতরবন্দ স্নাতক মহাবিদ্যালয়ে ইন্টারে ভর্তি হন। কিন্তু মায়ের এই অ’সুস্থতা ও টাকার অভাবে তারও পড়াশোড়া বন্ধ হবার পথে।

লুৎফুননেসার সাথে ‘সময়ের কন্ঠস্বরের এ প্রতিবেদকের সাথে কথা হলে তিনি, কাঁদতে কাঁদতে বলেন, আমা’র স্বামী আমাকে ছেড়ে অন্য খানে বিয়ে করেছে। আমি যদি ম’রে যাই তাহলে আমা’র মে’য়েটার কি হবে?? সে কার সাথে থাকবে? কি খাবে? আমি মে’য়েটার জন্য বাঁচতে চাই। আমাক তোম’রা বাঁ’চান। অসহায় মে’য়েটার মুখের দিকে দেখি আমাক তোম’রা বাঁ’চান।

প্রতিবেদকের দুটি কথা: সম্মানিত পাঠক, লুৎফুননেসা এমন একজন অসহায় মানুষের নাম যার পাশে দাড়ানোর মতো দুনিয়াতে কেউ নেই। যার ক’ষ্টের চি’ৎকার শুনে একটি গ্রাম কাঁদে! আমি নিউজ প্রকাশ করেও কোন সাড়া পাইনি। বা কেউ তার পাশে দাড়াইনি। আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি আপনাদের সকলের সহযোগীতা নিয়ে আমি নিজে এই মানুষটার চিকিৎসাটা করাবো। আল্লাহপাক মাফ করার মালিক। দয়া করে সমাজের হৃদয়বান বৃত্তবানেরা এগিয়ে আসলে দেড় লক্ষ টাকা যোগাড়ও সম্ভব এবং অ’পারেশন ও থেরাপিও সম্ভব। তাই আমি আবারও সকলকে সহযোগিতা করার বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি।

লুৎফুননেসার পাশে দাড়াতে তার ব্যাক্তিগত হিসাব নম্বর:২৬২.১৫১.১৫১৭০৪ হিসাবের নাম: লুৎফুননেসা, ব্যাংকের নাম: ডাচ বাংলা ব্যাংক লিমিটেড, শাখার নাম: কুড়িগ্রাম সদর শাখা, কুড়িগ্রাম। ভিডিও কলে লুৎফুননেসাকে দেখতে ও তার সাথে কথা বলতে আমাদের ষ্টাফ রিপোর্টার প্রভাষক ফয়সাল শামীম, ০১৭১৩২০০০৯১।

সংবাদটি শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 newstodaybd.com
Design BY NewsTheme
[X]